Logo

December 3, 2020, 2:34 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» স্থানীয় পর্যায়ে টেকসই উন্নয়নের লক্ষে কানাইঘাটে অভিষ্ট বাস্তবায়ন কর্মশালা সম্পন্ন «» পরকীয়ায় প্রবাসী স্বামীকে হত্যায় স্ত্রীসহ ৫ জনের ফাঁসি «» কায়স্থগ্রাম সবজিগ্রাম সমিতির টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ «» সংশোধিত কাবিটা নীতিমালা ২০১৭ অনুযায়ী কাবিটা স্কিম প্রনয়ন ও বাস্তবায়ন সংক্রান্ত জেলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত «» ছাতকে ইউপি চেয়ারম্যান গয়াছ আহমদের মতবিনিময় «» সুনামগঞ্জ-মঙ্গলকাটা রাস্তা মেরামতের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ «» জগন্নাথপুরে প্রথমবারের মত ভোট হবে ইভিএমে «» এ বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছেন যারা «» শেরপুর পুলিশ ফাঁড়ির তত্বাবধানে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ «» এমসি কলেজে গণধর্ষণ : ৮ ছাত্রলীগ কর্মীকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট

নারীদের বিদেশ পাঠানোর নামে প্রতারণা, দু’জনের কারাদণ্ড

স্বদেশ ডেস্ক::

নারীদের বিদেশে পাঠানোর নামে প্রতারণার করার দায়ে রাজশাহীতে দু’জনকে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুক্রবার (২০ নভেম্বর) সকালে রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম এই দণ্ড দেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দুজন হলেন মো. মামুন হোসেন (৩০) ও জান্নাতুন নিশি (২১)। মামুনকে এক বছর ও নিশিকে তিন মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এদিন সকালে রাজশাহী নগরের মতিহার থানার ফুলতলা এলাকার একটি ভাড়া বাসায় অভিযান চালিয়ে ওই দুজনকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করে তাঁদের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম বলেন, ‘কুষ্টিয়ার মানুন হোসনের সঙ্গে কাজলা এলাকার জান্নাতুন নিশির সম্পর্ক দুই বছর ধরে। মামুন সম্প্রতি কাজলা এলাকার নিপা বেগম নামের এক নারীর বাসা ভাড়া নেন। বাসাভাড়া নেওয়ার সময় মামুন বলেছিলেন, মাঝেমধ্যে তিনি এখানে এসে নারীদের ফ্যাশন ডিজাইনের প্রশিক্ষণ দেবেন। এরপর ৮০ থেকে শতভাগ স্কলারশিপে তাদের ফ্যাশন ডিজাইনের ওপর পড়াশোনার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে। সেখানে পড়াশোনা শেষ করে তারা চাকরি করবেন জারা কোম্পানিতে। মামুনের শর্ত হচ্ছে, এই কাজে ১৮ থেকে ২২ বছর বয়সী নারী হতে হবে। বিবাহিত হলে তাঁদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে না। প্রতারণার এমন অভিযোগ পেয়ে অভিযান চালিয়ে দুজনকে আটক করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

প্রশাসন সূত্র জানায়, মামুন জারা কোম্পানির কোনো কাগজপত্র, কিংবা কোনো পাসপোর্ট ও ভিসাসংক্রান্ত কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। তাঁর নিজের কোনো প্রতিষ্ঠানও নেই। নারীদের প্রলোভন দেখিয়ে ফাঁদে ফেলে প্রতারণা করে আসছিলেন তিনি।

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম