Logo

December 3, 2020, 1:13 pm

সংবাদ শিরোনাম :

১৪ দেশ নিয়ে বিশ্বের বৃহৎ বাণিজ্য চুক্তি চীনের

স্বদেশ ডেস্ক::

প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ১৫টি দেশ রিজিওনাল কম্প্রিহেনসিভ ইকোনমিক পার্টনারশিপ (আরসিইপি) নামক একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। বিশ্বের বৃহত্তম বাণিজ্য চুক্তিতে আসিয়ান ভুক্ত দশটি দেশ, জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়া-সহ ১৪টি দেশের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে চীন।

রোববার (১৫ নভেম্বর) ভিয়েতনামে ৩৭তম আসিয়ান সম্মেলনের শেষ দিনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়। খবর মার্কিন বাণিজ্য বিষয়ক সংবাদ মাধ্যম ব্লুমবার্গের।

ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি’র জানিয়েছে ভারত এই চুক্তির অন্তর্ভুক্ত হয়নি। গত বছরই এই প্রকল্প থেকে সরে দাঁড়ায় দেশটি।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

নতুন এই জোটের অর্থনীতির আয়তন বিশ্বের মোট জিডিপির ৩০ শতাংশ। ফলে, এই চুক্তি বিশ্বের সবচেয়ে বড় অবাধ বাণিজ্য এলাকা তৈরি করবে। যুক্তরাষ্ট্র-কানাডা এবং মেক্সিকোর মধ্যে যে মুক্তবাণিজ্য অঞ্চল রয়েছে সেটি বা ইউরোপীয় ইউনিয়নের চেয়েও এশিয়ার নতুন এই বাণিজ্য অঞ্চলটির পরিধি বড় হবে। ব্যবসা বিষয়ক পরামর্শক সংস্থা আইএইচএস মারকিটের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান অর্থনীতিবিদ রাজিব বিশ্বাসকে উদ্ধৃত করে বার্তা সংস্থা এএফপি বলছে. “এই অঞ্চলে বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের উদারীকরণে এই চুক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অগ্রগতি। কারণ, তার মতে, “আরসিইপি বিশ্বের বৃহত্তম বাণিজ্যিক অঞ্চলে পরিণত হবে।”

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আসিয়ান জোটের দশ সদস্য (ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর ও থাইল্যান্ড, ব্রুনেই, কম্বোডিয়া, লাওস, মিয়ানমার, এবং ভিয়েতনাম) ছাড়াও চুক্তিতে পক্ষভুক্ত হয়েছে জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড। এ চুক্তির মূল উদ্যোক্তা এবং রূপকার চীন।

 

চুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত দেশগুলোর জনসংখ্যা ২০০ কোটিরও বেশি। অবশ্য একশ কোটির বেশি জনসংখ্যা চীনেরই। যেখানে বিশ্ব ব্যাংকের ২০১৮ সালের প্রতিবেদন দেখা যায় পৃথিবীর জনসংখ্যা প্রায় ৮শ কোটি। তাই আন্তর্জাতিক অঙ্গণে এ চুক্তির রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মূল্য অনেক বেশি। গত বছর এ চুক্তির খসড়া চূড়ান্ত হওয়ার পর প্রায় একশ ৩০ কোটি জনসংখ্যার দেশ ভারত চুক্তি থেকে বেরিয়ে যায়। ভারত এ চুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত থাকলে প্রায় পৃথিবীর অর্ধেক জনসংখ্যা একটি প্লার্ট ফর্মে চলে আসতো। যা অন্য যেকোনো বাণিজ্যিক গোষ্ঠী বা পক্ষের জন্য মাথা ব্যথার কারণ হয়ে উঠতে পারতো।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী চুক্তি থেকে বের হওয়ার বিষয়ে বলেন, রিজিওনাল কম্প্রিহেনসিভ ইকোনমিক পার্টনারশিপ বা আরসিইপি ভারতীয়দের জীবনযাত্রায় প্রভাব ফেলবে। তবে পরে এই বাণিজ্য চুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে ভারত।

 

গবেষণা সংস্থা কার্নেগী এনডাওমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল পিসের ইভান ফেইগেনবমকে উদ্ধৃত করে ওয়াশিংটনের গবেষণা-ভিত্তিক সাময়িকী দি ডিপ্লোম্যাট লিখেছে, “এশিয়ায় প্রধান দুই বাণিজ্য চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্র নেই, ফলে এশিয়ায় বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের শর্ত ও মান নির্ধারণের ক্ষমতার হাতবদল হবে, এবং কয়েক প্রজন্ম ধরে সে মতই ঐ অঞ্চলে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চলবে।”

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

রোববার (১৫ নভেম্বর) চুক্তি স্বাক্ষরের পর ভিয়েতনামের প্রধানমন্ত্রী এনগুয়েন জুয়াম ফুক বলেছেন, বহুজাতীয় বাণিজ্যের ক্ষেত্রে আসিয়ান দেশগুলি এই চুক্তির মাধ্যমে গোটা বিশ্বকে একটা দিশা দিল। করোনা মহামারির অর্থনৈতিক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কাজ করবে এই বাণিজ্য চুক্তি। শুল্ক কমিয়ে, সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নতি করে নতুন ই-কমার্স নীতি প্রণয়ন করা হবে এ চুক্তির মাধ্যমে।

 

আরসিইপি চুক্তিতে সদস্য দেশগুলো থেকে যন্ত্রাংশ কিনলে রপ্তানিতে কোনো সমস্যা হবে না। এই বিষয়টিকেই আসিয়ান জোটের সদস্যদের নতুন এই বাণিজ্য চুক্তিতে বিশেষভাবে আকৃষ্ট করেছে। তবে তার চেয়েও বড় আকর্ষণ চীনের বাজারে শুল্কমুক্ত রপ্তানির সুযোগ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম