Logo

November 26, 2020, 4:47 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» ৬ মাসে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রে «» চলে গেলেন ফুটবলের মহানায়ক ম্যারাডোনা «» সন্তানের আশায় শুয়ে আছেন নারীরা, তাদের ওপর দিয়ে হাঁটছেন পুরোহিত! «» সরকারকে টেনে নামাতে গিয়ে রশি ছিঁড়ে পড়েছে বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী «» সুনামগঞ্জে প্রতিবন্ধিদের সাথে অশালীন আচরণ করায় লক্ষনশ্রী ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন «» পুলিশ কর্মকর্তার এক থাপ্পড়ে বিদ্যুৎহীন ৩৫ গ্রাম! «» সুনামগঞ্জে জেলা প্রশাসকের প্রত্যাহারের দাবীতে আইনজীবী সমিতি’র মানববন্ধন «» ২০২১ সালে প্রায় ৭ কোটি ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ «» সুনামগঞ্জে ৪৭ দম্পতির মামলা আপোষে নিস্পত্তি করে ফুল দিয়ে বাড়িতে পাঠাল আদালত «» জামালগঞ্জের বিছনায় আরিফ আলী ফাউন্ডশনের শীত বস্ত্র বিতরণ সম্পন্ন

বাবা তোমার দরবারে সব পাগলের খেলা: রমজান আলী মিয়া

মো. রমজান আলী মিয়া:

 

বাবা তোমার দরবারে সব পাগলের খেলা, হরেক পাগল দিয়া মেলাইছে মেলা।  বাংলা কাওয়ালী নামক এ গানটি আজকাল জনমনে বেশ আলোড়িত। অনাকাঙ্ক্ষিত কোনো ঘটনা, না ঘটার মতো কোন গঠনা, না বলার মতো কোন ঘটনার ভিডিও আপলোডের সাথে প্লেব্যাক হিসেবে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে সবার নজর কেড়ে নেয় এই গানটি।

 

“মাইট ইজ রাইটস” “পাওয়ার ইজ বাইন্ড” যা-ই বলি না কেন, এ কথাগুলোর সাথে কিছু কিছু মানব জীবনের চলনে-বলনে যথেষ্ট মিল পাওয়া যায়।

জমিদার প্রথা থেকে শুরু করে বর্তমান সমাজেও অনেকটাই বলবৎ ।

 

মানুষ পরিবার থেকে শুরু করে সমাজ, ইউনিয়ন ও থানা সহ বিভিন্ন পর্যায়ে যেখানে সে অবস্থান করে নিতে পারে সেখানেই নেতৃত্বের দাপট দেখাতে শুরু করে। আজ থেকে প্রায় দেড় হাজার বছর পূর্বে যখন ইসলামের আবির্ভাব হয়নি। তখন বিভিন্ন কওম বা গোত্রে-গোত্রে মারাত্বক হানাহানির মতো জঘন্যতম অপরাধ বিরাজমান ছিল যা আমরা বিভিন্ন ইতিহাস বা ঐতিহাসিক  ঘটনা পর্যালোচনা করলেই সহজে বুঝে নিতে পারি।

 

মানুষকে হেদায়েত করার জন্য, সুপথে চলার জন্য ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে মহান রাব্বুল  আলামিন বিভিন্ন সময় কওম এর মাঝে পথ প্রদর্শক হিসাবে নবী রাসূলদের প্রেরণ করেছেন।

 

হযরত মুসা(আ:) মিসরের বনি ইজরায়েল গোত্রের একজন পয়গাম্বর ছিলেন। হযরত মুসা (আ:)-এর চাচাতো ভাই ছিলেন “কারুণ”। ধন- সম্পদ ও ঐশ্বর্যে  ভরা কৃপন ব্যাক্তি  ছিল “কারুন”। যার সম্পর্কে পবিত্র কুরানের সুরা কাসাসে বর্ণনা করা হয়েছে। হযরত মুসা (আ:) “কারুণকে ” তার সম্পত্তির যাকাত আদায় করতে বললে “কারুণ” উত্তরে বলতো, “আমি ধন সম্পদ নিজে কষ্ট করে অর্জন করেছি। এ সম্পদ কাউকে দেওয়া যাবে না”। ছোটবেলায় আমরা অনেকের মুখে শুনেছি “ এ -তো কারুণের ধনের মতো গুজে রেখেছে বের করার মতো না”।

 

বিভিন্ন ঘটনায় যখন আল্লাহ নারাজ। তখন কোন একসময় আল্লাহ “কারুণ”-কে মাটির নিচে দাবিয়ে দিলেন। সাথে তার সম্পদগুলো মাটির নিচে চলে গেল। ক্ষমতার দম্ব আর ঐশর্যের ভরাই আর রইলো না। তাই আল্লাহ রিজিক দেন, আবার রিজিক মূহুর্তের মধ্যে উঠিয়ে নেন।

 

সমাজে আজ বড়াই করার লোকের অভাব নেই। ক্ষমতার জোরে যাকে-তাকে মারধর করতেও দ্বিধা করে না। দাপট দেখিয়ে বেশী দিন চলা যায় না। মনে হতে পারে আমি যা করি তা স্বাভাবিক। কিন্তু অস্বাভাবিক হতে এক মূহুর্ত লাগে না।

তাই বর্শা, তীর আকাশে যতো উপড়েই উঠুক না কেন, কোনো একসময় মাটিতেই পড়তেই হয়।

 

আজকাল টর্চার সেল শব্দটি বেশ পরিচিত। যে-ই লোক তার অপকর্মের জন্য ধরা পড়ে আইন শৃংখলা বাহিনী বা অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে দেখা যায় তার নিজস্ব ভবনে একটা টর্চার সেল আছে। এত রীতিমত জমিদারি প্রথার আরেক নতুন রুপ। জমিদার বলতেই অন্যায়কারী, শোষক, নায়েব, পেয়াদার মাধ্যমে জমিনে খাজনা পরিশোধ করতে  না পারলেই নিরীহ প্রজাদের উপর অত্যাচার করা হতো। গাছের সাথে বেধে নির্যাতন, কখনো প্রচন্ড শীতে পুকুরের পানিতে দাড় করিয়ে রাখতো। কখনো মাথায় ইট দিয়ে প্রচন্ড রোদ্রে দাড় করিয়ে রাখতো।

 

এখন তো নির্যাতনের চিত্র আলাদা।

প্রকাশ্যে কোন কিছু না হলেও গোপনে বিদ্যুত্যের শক দেওয়া হয়। বিদ্যুতের শক দেওয়ার প্রথাটা হলিউড সিনেমায় দেখেছি।

 

এবার বাংলা সিনেমায় আসি, দেখা যেত অত্যাচারি জমিদারের একজন রাজকুমার ভালো মানুষ। যিনি নিস্ব, অসহায়, দরিদ্র সম্বলহীন মানুষের কষ্ট বুঝতে পারতো। তা-ই সে বিভিন্ন অপকর্মের জন্য প্রতিবাদ করতো। পরিশেষে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হতো।

 

বর্তমান সমাজে আমরা চাই, যারা বয়সে তরুন। যাদের ভালো কিছু করার সুযোগ আছে। যারা অন্যের সুবিধার কথা চিন্তা করে। তথা দেশকে ভালোবাসে। তারাই পারবে সমাজকে উন্নয়নের দিকে নিয়ে যেতে।

 

 

মো. রমজান আলী মিয়া (ট্রাফিক ইন্সপেক্টর, সুনামগঞ্জ জেলা ট্রাফিক বিভাগ)

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার