Logo

December 3, 2020, 1:58 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» স্থানীয় পর্যায়ে টেকসই উন্নয়নের লক্ষে কানাইঘাটে অভিষ্ট বাস্তবায়ন কর্মশালা সম্পন্ন «» পরকীয়ায় প্রবাসী স্বামীকে হত্যায় স্ত্রীসহ ৫ জনের ফাঁসি «» কায়স্থগ্রাম সবজিগ্রাম সমিতির টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ «» সংশোধিত কাবিটা নীতিমালা ২০১৭ অনুযায়ী কাবিটা স্কিম প্রনয়ন ও বাস্তবায়ন সংক্রান্ত জেলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত «» ছাতকে ইউপি চেয়ারম্যান গয়াছ আহমদের মতবিনিময় «» সুনামগঞ্জ-মঙ্গলকাটা রাস্তা মেরামতের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করলেন পীর মিসবাহ «» জগন্নাথপুরে প্রথমবারের মত ভোট হবে ইভিএমে «» এ বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছেন যারা «» শেরপুর পুলিশ ফাঁড়ির তত্বাবধানে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ «» এমসি কলেজে গণধর্ষণ : ৮ ছাত্রলীগ কর্মীকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট

ইতালিতে ফের লকডাউন, সংক্রমণ ১০ লাখ ছাড়ালো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ধাপের প্রাদুর্ভাবে বিপর্যস্ত ইতালি। প্রতিদিন বাড়ছে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা। দ্বিতীয় ধাপে সংক্রমণ শুরুর পর ইতিমধ্যে দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ও মৃত্যুর সংখ্যা ৪৩ হাজার ছাড়িয়েছে। এই প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে কয়েকটি অঞ্চলে আবার নতুন করে লকডাউন শুরু হয়েছে।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে শুরু হওয়া করোনাভাইরাসে গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ১০ লাখ ৬৬ হাজার ৪০১ জন। মোট মারা গেছেন ৪৩ হাজার ৫৮৯জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যুবরণ করেছে ৬৩৬ জন।

বৃহস্পতিবার টেস্ট করা হয় দুই লাখ ৩৬ হাজার ৬৭২ জন। এর মধ্যে আক্রান্ত ৩৭ হাজার ৯৭৮জন। একই সঙ্গে বেড়ে চলেছে দেশটিতে গুরুতর অসুস্থ রোগীর সংখ্যা। প্রায় শূন্যে নেমে যাওয়া গুরুতর অসুস্থ রোগীর সংখ্যা বর্তমানে ৩ হাজার ১৭০ জনে দাঁড়িয়েছে।

এ অবস্থায় গত ৬ নভেম্বর থেকে দেশের নয়টি ঝুঁকিপূর্ণ স্থান ও চারটি বিভাগীয় অঞ্চলকে ১৫ দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছে ইতালির সরকার। প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষরিত অধ্যাদেশে বলা হয়েছে, অতীতের মতো আবারো সমগ্র ইতালিকে তিনভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। যেসব অঞ্চলে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে সেসব অঞ্চলকে রেড জোনের তালিকায় আনা হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা একটু কম এমন অঞ্চলকে কমলা জোন এবং যেসব অঞ্চলে আক্রান্তের সংখ্যা খুবই কম, সেসব অঞ্চলকে হলুদ জোনের আওতায় আনা হয়েছে।

বর্তমানে রেড জোনের তালিকাভুক্ত মিলানের বিভাগীয় অঞ্চল লোম্বারদিয়া, পিয়েমন্তে, ভালে দি অস্তা ও কালাব্রিয়া এ চারটি অঞ্চলে গত শুক্রবার থেকে জারি করা হয়েছে লকডাউন।

সরকারের ঘোষিত অধ্যাদেশ অনুযায়ী লকডাউনের সময় জরুরি প্রয়োজন ছাড়া এসব অঞ্চলের কেউ ঘর থেকে বের হতে পারবে না। এছাড়াও এ সময় রেড জোনের তালিকাভুক্ত অঞ্চল থেকে কেউ হলুদ বা কমলা জোনে যেতে ও আসতে পারবে না। তবে শুধুমাত্র চাকরি, শিক্ষা ও চিকিৎসার প্রয়োজনে প্রমাণসহ অন্য অঞ্চলে যাতায়াত করতে পারবে। তবে, এসব অঞ্চলে মুদি দোকান ও ফার্মেসিসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দোকান খোলা থাকবে। বাচ্চাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হয়েছে। রেস্টুরেন্ট চালু থাকবে। কিন্তু কেউ যেতে পারবে না। শুধুমাত্র অনলাইন এবং ফোনের মাধ্যমে খাবার অর্ডার করে বাসায় আনার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

এদিকে করোনার প্রভাবে ইতালির স্বাস্থ্য ব্যবস্থা প্রায় ভেঙে পড়েছে। হাসপাতালে জায়গা নেই। দেশের তুরিনোসহ কয়েকটি অঞ্চলে গির্জা গুলোতে অস্থায়ী হাসপাতাল তৈরি করা হচ্ছে। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে অ্যাম্বুলেন্সের লাইন লেগেই আছে। এমনইএকটি ছবি কয়েকদিন যাবত ইতালির বিভিন্ন মিডিয়ায় আলোচিত হচ্ছে। দেশটির নেপোলিতে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের বাইরে অপেক্ষারত অ্যাম্বুলেন্সে করোনারোগীর মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। এমতবস্থায় সরকার দেশের হোটেলগুলোকে করোনাহাসপাতাল তৈরির চিন্তাভাবনা করছে।

করোনা আক্রান্ত এবং মৃত্যু সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় নতুন আইন আসতে পারে বলে জানা গেছে। সেক্ষেত্রে বিভিন্ন অঞ্চলে নতুন করে লাল, কমলা এবং হলুল রংয়ের পরিবর্তন করা হবে। তবে দেশটির চিকিৎসক সংগঠন আগের মতোই সারা দেশে টোটাল লকডাউন দেয়ার জন্য সরকারের নিকট আবেদন জানিয়েছে।