Logo

November 26, 2020, 3:42 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» চলে গেলেন ফুটবলের মহানায়ক ম্যারাডোনা «» সন্তানের আশায় শুয়ে আছেন নারীরা, তাদের ওপর দিয়ে হাঁটছেন পুরোহিত! «» সরকারকে টেনে নামাতে গিয়ে রশি ছিঁড়ে পড়েছে বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী «» সুনামগঞ্জে প্রতিবন্ধিদের সাথে অশালীন আচরণ করায় লক্ষনশ্রী ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন «» পুলিশ কর্মকর্তার এক থাপ্পড়ে বিদ্যুৎহীন ৩৫ গ্রাম! «» সুনামগঞ্জে জেলা প্রশাসকের প্রত্যাহারের দাবীতে আইনজীবী সমিতি’র মানববন্ধন «» ২০২১ সালে প্রায় ৭ কোটি ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ «» সুনামগঞ্জে ৪৭ দম্পতির মামলা আপোষে নিস্পত্তি করে ফুল দিয়ে বাড়িতে পাঠাল আদালত «» জামালগঞ্জের বিছনায় আরিফ আলী ফাউন্ডশনের শীত বস্ত্র বিতরণ সম্পন্ন «» ছাতকে মাস্ক ব্যবহার না করায় জরিমানা

অবৈধ মোবাইল বন্ধে প্রযুক্তি সরবরাহের প্রতিষ্ঠান চূড়ান্ত

স্বদেশ ডেস্ক::

অবৈধ মোবাইল হ্যান্ডসেট বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি সরবরাহে সিনোসিস আইটি লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি

বিটিআরসি জানিয়েছে আগামী ২ ডিসেম্বরের মধ্যে এ বিষয়ে সিনোসিস আইটিকে চুক্তি করতে বলা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিকে পাঠানো চিঠিতে, চুক্তি করার ১২০ কার্যদিবসের মধ্যে পুরো ব্যবস্থাটি চালু করতে হবে। সেই হিসেবে আগামী বছরের এপ্রিলের মধ্যে অবৈধ ফোন বন্ধের উদ্যোগ কার্যকর হবে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

২০১২ সালে প্রথম দেশে অবৈধ মুঠোফোন সেট বন্ধের উদ্যোগ নেয় বিটিআরসি। এর প্রায় আট বছর পর গত ১৮ ফেব্রুয়ারি দরপত্র আহ্বান করে বিটিআরসি।

 

বিদেশি মুদ্রায় ২৩ লাখ ৯ হাজার ৪৬৯ মার্কিন ডলার এবং বাংলাদেশি ১০ কোটি ২ লাখ ৯২ হাজার ৯৫০ টাকা অর্থাৎ মোট প্রায় ৩০ কোটি টাকায় নির্বাচিত সিনোসিস আইটি এ প্রযুক্তি সেবা সরবরাহ করবে বলে জানান বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহুরুল হক।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

তবে অবৈধ পথে দেশে আসা মুঠোফোন বন্ধের আগে নিবন্ধনের সুযোগ দেয়া হবে বলে জানান জহুরুল হক। এরপরও হ্যান্ডসেট নিবন্ধন না করলে, অবৈধ হ্যান্ডসেটে প্রাথমিকভাবে নির্দিষ্ট একটি সিম ছাড়া অন্য কোনো সিম কাজ করবে না। নির্দিষ্ট সময় পরে কোনো সিমই কাজ করবে না। ফলে নকল বা অবৈধ হ্যান্ডসেটের ব্যবহার বন্ধ হবে। বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইম্পোর্টার্স এসোসিয়েশনের বিএমপিআইএ’র তথ্যমতে, দেশের মুঠোফোনের প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ অবৈধ পথে আমদানি হয়। যার বাজার মূল্য প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম