Logo

October 29, 2020, 2:01 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» জগন্নাথপুরে প্রবাসী সাবেক ছাত্রদের পক্ষ থেকে শিক্ষকের পরিবারে অনুদান «» কানাইঘাট পৌর মেয়রের অনিয়ম-দুর্নীতি তুলে ধরে নাগরিক কমিটির প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত «» জগন্নাথপুরের কথিত সংবাদ কর্মী আলী হোসেনের বিরুদ্ধে আদালতে চাঁদাবাজির মামলা দায়ের «» দোয়ারাবাজারে আলাউদ্দিনের নামে মুক্তিযোদ্ধা সনদ ও সেনা গেজেট বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন «» ফ্রান্সে মহানবী সা.এর অবমাননার প্রতিবাদে জগন্নাথপুরের ভবেরবাজারে তৌহদী জনতার বিক্ষোভ মিছিল «» পীর হাবিবুর রহমানের বাসায় ভাংচুরের প্রতিবাদে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের মানববন্ধন «» দেড় বছরের মেয়ের গলায় ছুরি ধরে গৃহবধূকে ধর্ষণ «» ফ্রান্সে মহানবী (সা:) কে অবমাননার প্রতিবাদে তরুণ প্রজন্ম জগন্নাথপুরের মানববন্ধন «» মৌলভীবাজার কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর কর্তৃক তদারকি অভিযান «» জগন্নাথপুরে ভেজাল বিরোধী অভিযানে ৪৩ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

ধর্ষণচেষ্টার প্রতিশোধ নিতেই ‘২৫ কোপে’ হত্যা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

কয়েক বছর ধরে অবৈধ সম্পর্কের জেরে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে এক নারী। এমনকি তাকে ধর্ষণের চেষ্টাও করা হয়েছে। অবশেষে এই নির্যাতন আর সইতে না পেরে কুপিয়ে মেরে ফেলে প্রতিশোধ নিয়েছেন ওই নারী। কিন্তু সেটা নেহাত এক বা দুই কোপ নই, টানা ২৫ বার ছুরিকাঘাত করে মেরেছেন তিনি।

ভারতীয় গণমাধ্যম জি নিউজের একটি প্রতিবেদনে এমনি তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশের গুনায় এলাকায়। ভারতীয় কংগ্রেস থেকে বহিষ্কৃত নেতা ব্রজভূষণ শর্মার ওপর এতটাই রাগ ছিল ওই নারীর।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

সম্প্রতি কংগ্রেস থেকে বহিষ্কৃত ওই নেতা রাত ১১টার দিকে ওই নারীর বাড়িতে যান। সেখানে কথা কাটাকাটির পর তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এরপর ওই নারী কংগ্রেস নেতার উপর ছুরি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন। টানা ২৫টি ছুরির কোপ মারেন তার শরীরে। ঘটনাস্থলেই সেই কংগ্রেস নেতার মৃত্যু হয়। খুন করার পর ওই নারী নিজেই পুলিশকে ফোন করে খবর দেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

মৃত কংগ্রেস নেতার স্ত্রী অবশ্য ওই নারীকেই আসল দোষী বলে অভিযোগ করেছেন। তার দাবি, ব্রজভূষণকে নিজের প্রেমের জালে ফাঁসিয়েছিলেন ওই নারী। তার থেকে নিয়মিত টাকা-পয়সা, গয়না-গাটি নিতেন ওই নারী। কোনো কারণে ঝগড়া হওয়ায় তিনি তার স্বামীকে কুপিয়ে খুন করেন বলে অভিযোগ করেছেন ব্রজভূষণের স্ত্রী।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ওই নারীর স্বামী একজন শিক্ষক। তিনি বাড়িতে ছিলেন না। আর সেই সুযোগে কংগ্রেস নেতা তার বাড়িতে যান। পুলিশ জানতে পেরেছে- কয়েক বছর ধরেই ওই নারীর সঙ্গে কংগ্রেস নেতার অবৈধ সম্পর্ক ছিল। কিন্তু ঠিক কী কারণে ওই নারী তাকে খুন করেছে, তা এখনও পরিষ্কার নয়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এই ঘটনায় পুলিশও রীতিমতো অবাক হয়েছে। কতটা ঘৃণা ও হিংসা ভেতরে জমে থাকলে একজন নারী পঁচিশবার কুপিয়ে কাউকে খুন করতে পারে! আপাতত আদালতের নির্দেশে পুলিশি হেফাজতে রয়েছেন ওই নারী। তার বিরুদ্ধে খুনের মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম