Logo

September 22, 2020, 9:00 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» জামাইর ছুরিকাঘাতে শ্বশুর খুন «» নুরের বিরুদ্ধে এবার ধর্ষণ-ডিজিটাল আইনে মামলা সেই ছাত্রীর «» স্বাধীন বাংলা দলের ফুটবলার নওশেরুজ্জামান আর নেই «» স্ত্রীর স্বপ্ন পূরণে জমি বিক্রি করে হাতি কিনে দিলেন স্বামী «» ৩ জেলা, ৯ উপজেলা ও ৬১ ইউনিয়নে আ.লীগের প্রার্থী যারা «» ভিপি নুর গ্রেফতার «» কানাইঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন «» সাংবাদিক কায়েস চৌধুরীর মাতার ইন্তেকাল, জগন্নাথপুর অনলাইন প্রেসক্লাবের শোক «» কানাইঘাট হাসপাতাল ব্যবস্থা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত «» সাংবাদিক কায়েস চৌধুরীর মাতার ইন্তেকাল, জানাযা সম্পন্ন: বিভিন্ন মহলের শোক

ঢাকায় ভূমিকম্পের ঝুঁকি পরিমাপে তৈরি হচ্ছে সংবেদনশীল ম্যাপ….পরিকল্পনামন্ত্রী

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

ভূমিকম্প মোকাবিলায় নেয়া ‘আরবান রেজিলিয়েন্স প্রজেক্ট (ইউআরপি) : রাজউক অংশ’ প্রকল্পের সংশোধন আনা হয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় ঢাকা শহরের একটি সংবেদনশীল মানচিত্র তৈরি করা হবে। যার মাধ্যমে জানা যাবে শহরের কোন এলাকা বা বাড়িটি ভূমিকম্পের কতটুকু ঝুঁকিতে রয়েছে।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘এটার মূল ইস্যু হলো আমাদেরকে ভূমিকম্প মোকাবিলার সক্ষমতা অর্জন করা। ঢাকা ইতিমধ্যে পরিচিত হয়েছে ভূমিকম্প প্রবণ শহর বা জনপথ হিসেবে। এটাকে মোকাবিলার জন্য প্রয়োজন একটা উচ্চতর বিজ্ঞান। আমরা এ বিজ্ঞানে প্রবেশ করছি। এই প্রকল্পের আওতায় ঢাকা শহরের একটা ম্যাপ তৈরি করা হবে। সংবেদনশীল ম্যাপ। কোন এলাকা, কত ধরনের ঝুঁকিতে। আমার বাসা, তার বাসা, ওর বাসা, এই এলাকা ইত্যাদি। ইট (ম্যাপ) সুড বি ইউজফুল। যদি কোনো সময় আল্লাহ না করুক যদি কিছু হয়।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমাদের যারা কাজ করেন রাজউকে বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে, তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হবে এ প্রকল্পের মাধ্যমে। আপনারা জানেন, দুর্যোগ মোকাবিলায় ইতিমধ্যে আমরা সারাবিশ্বে প্রশংসিত। আমরা অনেক সক্ষমতা অর্জন করেছি। বিশেষ করে উপকূলীয় এলাকায়। এখন আমরা চাচ্ছি, ভূমিকম্প যে হয় এটাও যেন ভালোভাবে মোকাবিলা করতে পারি।’

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, সাভার পৌরসভা, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। ২০২২ সালের এপ্রিলের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। আজকের সংশোধনীতে প্রকল্পের খরচ বাড়ানো হয়েছে। প্রকল্পের মূল খরচ ছিল ৪২৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা। এখন তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৫৩৬ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। তার মধ্যে সরকার দিচ্ছে ৩৫ কোটি ১৫ লাখ টাকা। আর বিশ্ব ব্যাংক ঋণ হিসেবে দিচ্ছে ৫০১ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

প্রকল্প সংশোধনের কারণ হিসেবে বলা হয়েছে প্রকল্প ঋণের পরিমাণ ৫৩ মিলিয়ন ইউএস ডলার থেকে ৫৯ মিলিয়ন ইউএস ডলারে বৃদ্ধি করা, ডলারের বিনিময় মূল্য (১ ইউএস ডলার ৭৭ টাকা হতে ৮৫ টাকা) বৃদ্ধির কারণে প্রকল্প ঋণের পরিমাণ বৃদ্ধি করা।

আরবান রেজিলিয়েন্স ইউনিট ভবনের ডিজাইন পরিবর্তন : মূল অনুমোদিত ডিপিপিতে ২৫ তলা ফাউন্ডেশনের উপর তিনটি বেজমেন্টসহ ৪তলা স্টিল স্ট্রাকচার ভবন নির্মাণের সংস্থান ছিল। ভবন ডিজাইনের সময় বিশ্বব্যাংক, পরিকল্পনা কমিশনের কার্যক্রম বিভাগ এবং রাজউক জমির পরিমাণ ও ভবন নির্মাণের বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করে একটি ভবনের পরিবর্তে দুটি পর্যায়ে দুটি ভবন নির্মাণের সুপারিশ করে। প্রথম পর্যায়ে আলোচ্য প্রকল্পের আওতায় দুটি বেজমেন্টসহ ১০ তলা ভবন নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে।

সরকারের অর্থায়নের পরিমাণ বৃদ্ধি, মূল অনুমোদিত প্রকল্পে শুধু জনবলের বেতন-ভাতা ও সম্মানী বাবদ সরকারের অর্থায়নের পরিমাণ ছিল ২১ কোটি ৮০ লাখ টাকা। সংশোধিত প্রকল্পে জনবলের বেতন-ভাতা ও সম্মানী বাবদ ১৩ কোটি ৫৪ লাখ টাকা এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন ইউনিট সংস্কারসহ আরবান রেজিলিয়েন্স ইউনিট ভবন নির্মাণ বাবদ আইডিএর অর্থায়নে ঘাটতি থাকায় সরকার থেকে ২১ কোটি ৬১ লাখ টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে।

বিভিন্ন অঙ্গের পরিমাণ ও ব্যয়ের হ্রাস/বৃদ্ধি বাস্তবতার নিরিখে জনবলের বেতন-ভাতা, প্রশিক্ষণ, যানবাহন ক্রয়, কম্পিউটার ও এক্সেসরিজ ক্রয়, কম্পিউটার সফটওয়্যার, ল্যাবরেটরি এবং ফিল্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ইক্যুইপমেন্ট, ফার্নিচার ক্রয়, টেলিকমিউনিকেশন ইক্যুইপমেন্ট ক্রয় এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন ইউনিট সংস্কারের সঙ্গে ব্যয় হ্রাস পেয়েছে। অন্যদিকে অপারেশন কস্ট, অফিস ইক্যুইপমেন্ট ক্রয়, ভবন নির্মাণ এবং কনসালটেন্সি অঙ্গে ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া, কাস্টমস ডিউটি অঙ্গটি আরডিপিপিতে নতুনভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

প্রকল্পের বাস্তবায়ন মেয়াদ বৃদ্ধি প্রকল্পের জনবল ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগে বিলম্বের কারণে যথাসময়ে প্রকল্প কার্যক্রম শুরু না হওয়ায় প্রকল্পটি অনুমোদিত মেয়াদে সমাপ্ত করা সম্ভব হয়নি। বিশ্বব্যাংক ঋণ চুক্তির সময়সীমা এপ্রিল ২০২২ পর্যন্ত বর্ধিত করায় প্রকল্পের বাস্তবায়ন মেয়াদ এপ্রিল ২০২২ পর্যন্ত বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে।

প্রকল্পটিার প্রধান কার্যক্রমগুলোর মধ্যে রয়েছে পরামর্শক নিয়োগ, জনবল নিয়োগ, দেশে ও বিদেশে প্রশিক্ষণ, ২৫টি যানবাহন ক্রয়, ১৩৬টি কম্পিউটার ও এক্সেসরিজ ক্রয়, কম্পিউটার সফটওয়্যার ক্রয় ৯টি, ইঞ্জিনিয়ারিং ও অন্যান্য ইক্যুইপমেন্ট ক্রয় ৯৬০টি, অফিস ইক্যুইপমেন্ট ক্রয় ১৩৭টি, আরবান রেজিলিয়েন্স ইউনিট ভবন নির্মাণ ৯৭৬০ বর্গমিটার এবং ফার্নিচার ক্রয়সহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজ করা হবে।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার