Logo

September 19, 2020, 12:08 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» করোনা: ইউরোপে ২য় ঢেউ, থাইল্যান্ডে ১০০ দিন পর ১ম মৃত্যু «» কানাইঘাট পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে প্রার্থী হতে চান নাজমুল ইসলাম হারুন «» আল্লামা শফীর জানাজা শনিবার, দাফন মাদরাসাতেই «» কানাইঘাটে এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও কিশোর জাহাঙ্গীরের খোঁজ মিলেনি «» আহমদ শফী কওমি শিক্ষার আধুনিকায়নে ভূমিকা রেখেছেন : প্রধানমন্ত্রী «» জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় পরিষদ কানাইঘাট শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন «» জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন: সভাপতি শাহ রুহেল, সাধারণ সম্পাদক সুবল দেব «» আখেরি চাহার শোম্বা ১৪ অক্টোবর «» জগন্নাথপুরে ইয়াবাসহ মাদকসেবী আটক «» আল্লামা আহমদ শফী আর নেই

তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু, শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলায় নুসরাত জাহান নোহা (১০) নামে তৃতীয় শ্রেণীর এক ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। স্কুলশিক্ষকের বেত্রাঘাতে অভিমানে গলায় ফাঁস দিয়ে নোহা আত্মহত্যা করেছে বলে তার বাবা থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। তবে নোহার মা ও একাধিক স্বজনের দাবি, নোহাকে তার সৎ মা ঝুমুর বেগম বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেছেন। এরপর আত্মহত্যা বলে প্রচার করছেন।

মৃত নুসরাত জাহান নোহা আগৈলঝাড়া উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের খাজুরিয়া দারুল ফালাহ প্রি-ক্যাডেট একাডেমির ছাত্রী ছিল। বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টার দিকে ময়নাতদন্তের জন্য নোহার মরদেহ বরিশাল শের-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সকালে নোহার বাবা মো. সুমন বাদী হয়ে আগৈলঝাড়া থানায় আত্মহত্যা প্ররোচনার একটি মামলা করেন। মামলায় নোহার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল ফালাহ প্রি-ক্যাডেট একাডেমির শিক্ষক শফিকুল ইসলামকে আসামি করা হয়েছে।

 

 

নোহা উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের খাজুরিয়া গ্রামের মো. সুমনের মেয়ে। কয়েক বছর আগে নোহার মা তানিয়া বেগমের সঙ্গে সুমনের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। সুমন বর্তমানে চার নম্বর স্ত্রী ঝুমুর বেগমকে নিয়ে সংসার করছেন। নোহা সৎমায়ের সংসারে থাকতো।

 

 

 

আগৈলঝাড়া থানা পুলিশের ওসি মো. আফজাল হোসেন মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে বলেন, নোহা উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের খাজুরিয়া গ্রামের দারুল ফালাহ প্রি-ক্যাডেট একাডেমির তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী ছিল। করোনার কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ৫ সেপ্টেম্বর ওই প্রতিষ্ঠানে মাসিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। তিনদিন পরে ওই পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয় বুধবার দুপুরে। প্রকাশিত ফলাফলে নোহা অকৃতকার্য হয়।

 

 

এজন্য স্কুলের শিক্ষক শফিকুল ইসলাম নোহাকে ক্লাস কক্ষে গালমন্দ ও বেত্রাঘাত করেন। নোহা স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে স্বজনদের কাছে ঘটনাটি বলে কান্নাকাটি করে। সহপাঠীদের সামনে শিক্ষকের মারধর ও গালমন্দের কারণে অভিমান করে বুধবার দুপুরে নোহা নিজেদের ঘরের দোতলার আড়ায় ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

 

 

 

ওসি মো. আফজাল হোসেন বলেন, নোহার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। তবে এত ছোট একটি শিশু আত্মহত্যা কেন করবে, সত্যিই কি আত্মহত্যা করেছে, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঝুলন্ত অবস্থায় নোহার মরদেহ পাওয়া যায়নি। হাসপাতাল থেকে নোহার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এসব কারণে সবকিছু মাথায় রেখেই তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। প্রয়োজনে নোহার বাবা, সৎমা ও স্বজনের জিজ্ঞাসাবাদ করে হবে।

ওসি মো. আফজাল হোসেন আরও জানান, ঘটনার পর শিক্ষক শফিকুল ইসলাম পালিয়েছেন। শফিকুল ইসলাম উজিরপুর উপজেলার সাতলা গ্রামের আব্দুল লতিফ পাইকের ছেলে।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার