Logo

September 22, 2020, 8:26 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» জামাইর ছুরিকাঘাতে শ্বশুর খুন «» নুরের বিরুদ্ধে এবার ধর্ষণ-ডিজিটাল আইনে মামলা সেই ছাত্রীর «» স্বাধীন বাংলা দলের ফুটবলার নওশেরুজ্জামান আর নেই «» স্ত্রীর স্বপ্ন পূরণে জমি বিক্রি করে হাতি কিনে দিলেন স্বামী «» ৩ জেলা, ৯ উপজেলা ও ৬১ ইউনিয়নে আ.লীগের প্রার্থী যারা «» ভিপি নুর গ্রেফতার «» কানাইঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন «» সাংবাদিক কায়েস চৌধুরীর মাতার ইন্তেকাল, জগন্নাথপুর অনলাইন প্রেসক্লাবের শোক «» কানাইঘাট হাসপাতাল ব্যবস্থা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত «» সাংবাদিক কায়েস চৌধুরীর মাতার ইন্তেকাল, জানাযা সম্পন্ন: বিভিন্ন মহলের শোক

ইউএনও’র ওপর হামলা : প্রধান আসামি ৭ দিনের রিমান্ডে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীর ওপর হামলার ঘটনায় করা মামলার প্রধান আসামি আসাদুল ইসলামের সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বিচারক। রোববার (০৬ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (আমলি আদালত-৭) মনিরুজ্জামান সরকারের আদালতে আসাদুল ইসলামকে হাজির করা হয়। শুনানি শেষে তার সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।

 

 

 

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় আসাদুলকে ঘোড়াঘাট থানা পুলিশে হস্তান্তর করে র‌্যাব। শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে আসাদুলকে দিনাজপুর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করে ঘোড়াঘাট থানা পুলিশ। দিনাজপুর ডিবি পুলিশের ওসি ইমাম জাফর বলেন, অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আসাদুল ইসলামের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলাম। বিচারক সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলাটি আমরা গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছি।

 

 

 

ইমাম জাফর বলেন, এটি চুরির মামলার রিমান্ড নয়; যাবতীয় বিষয়গুলো জানার জন্য তাকে রিমান্ড নেয়া হয়েছে। আশা করছি রিমান্ডে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেবে আসাদুল ইসলাম। শনিবার একই মামলার অপর আসামি রঙমিস্ত্রি নবিরুল ইসলাম ও সান্টু রায়ের সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিশির কুমার বসু। রোববার সকাল থেকে নবিরুল ও সান্টু রিমান্ড শুরু হয়েছে।

 

 

 

গত বুধবার রাতে সরকারি ভবনের ভেন্টিলেটর ভেঙে বাসায় ঢুকে ইউএনও ওয়াহিদা ও তার বাবার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এ সময় ইউএনওর মাথায় গুরুতর আঘাত এবং তার বাবাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে ইউএনওকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হয়। তিনি বর্তমানে রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

 

 

 

 

এ হামলার ঘটনায় ইউএনও ওয়াহিদার ভাই শেখ ফরিদ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) রাতে ঘোড়াঘাট থানায় মামলা করেন। একই সঙ্গে ঘটনা তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) জাকির হোসেনকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল ওয়াহাব।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার