Logo

August 10, 2020, 7:44 am

সংবাদ শিরোনাম :

নবীগঞ্জে জানাজার নামায পড়ে বাড়ি ফেরা হলোনা আওয়ামীগ নেতা কামাল মিয়ার: দূর্বৃত্তদের সন্ত্রাসী হামলায় খুন হলেন তিনি

এম.মুজিবুর রহমান, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) থেকে:

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়ার ভাঙ্গা ইউনিয়নের  শিবগঞ্জ বাজারের পাশে উমরপুর এম.এ.খালেক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর সামনে উপজেলার  পার্শ্ববর্তী  বানিয়াচং উপজেলার বড়ইউরি ইউনিয়নের হলদারপুর গ্রামের বাসিন্দা ও ইউপি আওয়ামীলীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক কামাল মিয়া (৩৫) নামের এক ব্যক্তিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে  কুপিয়ে খুন করেছে এক দল দুর্বৃত্ত।

 

 

 

 

 

 

 

জানাযায়, গতকাল বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে নবীগঞ্জ উপজেলার উল্লেখিত স্থানে বানিয়াচং উপজেলার বড়ইউরি ইউনিয়নের হলদারপুর গ্রামের বাসিন্দা ও ইউপি আওয়ামীলীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক কামাল মিয়া পার্শ্ববর্তী নোয়াগাঁও  গ্রামের এক মুরব্বীর স্বাভাবিক মৃত্যুতে তাঁর  জানাজার নামাজ আদায় করে তিনি বাড়িতে যাওয়ার পথিমধ্যে মোটরসাইকেল যোগে শিবগঞ্জ বাজারের নিকটে যাওয়া মাত্রই  উমরপুর এম. এ. খালেক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সামনে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী একদল দুর্বৃত্তরা তাকে  রামদা দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ক্ষত-বিক্ষত  করে ।

 

 

 

 

 

 

 

 

এ সময় কামাল মিয়া বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে  গুরুত্বর আহত অবস্থায়  উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যান। সেখানে  কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে  জরুরী  চিকিৎসা সেবা দিয়ে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১টার দিকে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন৷

 

 

 

 

 

তাঁর এ মৃত্যুর খবর  এলাকায় জানাজানি হলে দু’ পক্ষের লোকজনের মধ্যে টানাটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনায় ঐ এলাকার আবারো বড় ধরনের  কোন অঘটন বা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের  ঘটতে পারে বলে ধারণা করছেন স্থানীয়রা।

 

 

 

খোঁজ নিয়ে আরো জানাযায়, নিহত কামাল মিয়া মৃত্যুর পূর্বে তাঁর উপর হামলাকারী বেশ কয়েকজনের নাম তিনি  বলে গেছেন, কামাল  মিয়ার সাথে বড়ইউরি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ হাবিবুর রহমানের  দীর্ঘদিন ধরে পূর্ব  বিরোধ চলে আসছিলো, কামাল  মিয়াকে চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের লোকজন অতর্কিত হামলা করেই খুন করেছেন বলে অভিযোগ নিহতের পরিবারের৷

 

 

 

 

 

 

৪ সন্তানের জনক কামাল মিয়ার এক ছেলে প্রতিবন্ধি বলে জানা গেছে। ঐ এলাকার মধ্যে চলছে অরাজগতা। একালার সচেতন লোকজন প্রশাসনের সু- দৃষ্টি রাখার দাবী জানান।

 

 

 

 

 

 

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আজিজুর রহমান এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মারামারি ঘটনার খবর পেয়েছি। তবে তার  মৃত্যুর  খবর এখনো  পাইনি। যদি তিনি মারা যান, তবে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা আবশ্যই নেয়া হবে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার