Logo

August 13, 2020, 4:57 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ৩ «» ব্যক্তি-গোষ্ঠীর স্বার্থে যেন শোক দিবসের পরিবেশ বিনষ্ট না হয় «» স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তোড়জোড় ত্যাগীদের মূল্যায়ন করবে আওয়ামী লীগ «» কানাইঘাটে ক্যান্সার ও কিডনি সহ জটিল রোগে আক্রান্তের মধ্যে চেক বিতরণ «» জগন্নাথপুর উপজেলা জমিয়তের কাউন্সিল আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর: আহবায়ক কমিটি গঠন «» কানাইঘাট থানা ও ভূমি অফিস পরিদর্শনে সিলেটের জেলা প্রশাসক «» জগন্নাথপুরে স্টুডেন্ড’স ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টের উদ্যোগে এসএসসি, দাখিল ও প্রবাসীদের সংবর্ধনা প্রদান «» ছাতকে অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় সিএনজি খাদে, কিশোরীর মৃত্যু «» সর্বস্থরের জনগনের ভালবাসায় আবারো সিক্ত হলেন জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান মিন্টু রঞ্জন ধর ও উনার সহ-ধর্মিনী হেপী রানী ধর «» প্রকল্পে ‘অস্বাভাবিক খরচ’ না মানার বিষয়ে একমত মন্ত্রীসহ ৩০ সচিব

প্রাইভেট না পড়ায় শিক্ষার্থীর বই নিয়ে গেলেন শিক্ষক

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

বাসায় এসে ছাত্রী আয়েশা আক্তারকে প্রাইভেট পড়ান উপজেলার রাধাসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তপন সাহা। এক দিন অনেক দেরি করে পড়াতে এসে দেখেন ছাত্রী ঘুমিয়ে পড়েছে। এতে প্রধান শিক্ষক তপন সাহা গেলেন রেগে, যাবার সময় সঙ্গে করে নিয়ে গেলেন ছাত্রীকে সরকারের দেওয়া পঞ্চম শ্রেণীর পাঠ্য বইগুলো। ১৫ দিন পার হয়ে গেলেও বইগুলো এখনো ফেরত দেননি তিনি। ঘটনাটি ঘটেছে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ২ নম্বর বাকিলা ইউনিয়নে।

আয়েশার মা বলেন, ‘স্যার আসার কথা সকাল ১০টায়। আসলেন বিকাল ৩টায়। এ দিকে স্যারের দেরি দেখে আমার মেয়ে দুপুরে ভাত খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। করোনার সময়ে স্যার বাসায় গিয়ে প্রাইভেট পড়ান। ছাত্রী প্রাইভেট না পড়ে ঘুমিয়ে পড়ায় রেগে গেলেন স্যার। আমাকে গালিগালাজ করেন। মেয়েকে স্কুলে পাঠাতে নিষেধ করেন। যাওয়ার সময় নিয়ে যান আমার মেয়েকে সরকারের দেওয়া পঞ্চম শ্রেণীর পাঠ্য বইগুলো। আমার মেয়ে মেধাবী ছাত্রী। আজ ১৫ দিন হয়ে গেল, স্যার বইগুলো ফেরত দিচ্ছেন না। আমি ইউপি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানিয়েছি।’

 

ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান ইউছুফ পাটওয়ারী বলেন, ‘প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে এ ব্যাপারে ফোনে কথা বলেছি। তিনি বলেছেন, বই ফেরত দিয়ে দেবেন।’ গতকাল মোবাইল ফোনে প্রধান শিক্ষক তপন সাহার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি বইগুলো এনেছি। রবিবার (আজ) বইগুলো ফেরত দিয়ে দেবো।’

 

হাজীগঞ্জ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার মিজানুর রহমান বলেন, ‘শিক্ষার্থীর বাবা বাবুল মিজি আমাকে ঘটনাটি ফোনে জানিয়েছেন। আমি ওই ক্লাস্টারের দায়িত্বরত কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে বলেছি এবং শিক্ষার্থীর বাবাকে একটি লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি। প্রধান শিক্ষক বই ফেরত নেওয়ার অধিকার রাখেন না।’

 

 

 

আজকের স্বদেশ/এবি