Logo

August 13, 2020, 5:36 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ৩ «» ব্যক্তি-গোষ্ঠীর স্বার্থে যেন শোক দিবসের পরিবেশ বিনষ্ট না হয় «» স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তোড়জোড় ত্যাগীদের মূল্যায়ন করবে আওয়ামী লীগ «» কানাইঘাটে ক্যান্সার ও কিডনি সহ জটিল রোগে আক্রান্তের মধ্যে চেক বিতরণ «» জগন্নাথপুর উপজেলা জমিয়তের কাউন্সিল আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর: আহবায়ক কমিটি গঠন «» কানাইঘাট থানা ও ভূমি অফিস পরিদর্শনে সিলেটের জেলা প্রশাসক «» জগন্নাথপুরে স্টুডেন্ড’স ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টের উদ্যোগে এসএসসি, দাখিল ও প্রবাসীদের সংবর্ধনা প্রদান «» ছাতকে অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় সিএনজি খাদে, কিশোরীর মৃত্যু «» সর্বস্থরের জনগনের ভালবাসায় আবারো সিক্ত হলেন জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান মিন্টু রঞ্জন ধর ও উনার সহ-ধর্মিনী হেপী রানী ধর «» প্রকল্পে ‘অস্বাভাবিক খরচ’ না মানার বিষয়ে একমত মন্ত্রীসহ ৩০ সচিব

সুনামগঞ্জে বানের পানিতে ডুবছে হাওর, লোকালয়

স্বদেশ ডেস্ক::

বানের পানিতে ডুবছে নগর, ডুবছে হাওর। নগর ও হাওরের বিস্তীর্ণ লোকালয়ে পানি আর পানি। উজানের পাহাড়ি ঢল ও অতিবৃষ্টির পানি কান্নার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে জেলার লাখো মানুষের। জেলার সবকটি উপজেলার গ্রামীণ হাটবাজার গুলোতে পানি থৈথৈ করছে। এ যেন দুর্যোগের মহাকাল নেমে এসেছে মেঘ পাহাড়ের দেশ সুনামগঞ্জে।

সদর, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর দোয়ারাবাজার, ছাতক, জামালগঞ্জ, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, ধর্মপাশা, জগন্নাথপুরসহ জেলার ১১ টি উপজেলা ও চারটি পৌরসভার লাখো মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। বানের পানি খেলা করছে তাদের বাড়ির আঙ্গিনা ও বসত ঘরে।  বন্যায় বয়স্ক  নারী পুরুষ  ও শিশুরা সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন।

 

 

 

 

 

 

প্রতিটি উপজেলার নিম্নাঞ্চল বানের পানিতে সয়লাব হয়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে আছে উপজেলা সদর থেকে। গ্রামীণ সড়ক গুলো ডুবে আছে কয়েক ফুট পানির নিচে। উপজেলা ও জেলা শহরের প্রধান সড়কে এখন নৌকা চলে অবাধে। লাগাতার ভারী বৃষ্টি ও দমকা হাওয়া মানুষের দুর্ভোগ বাড়িয়ে দিয়েছে। সহায় সম্বলহীন মানুষেরা কোন রকমে গরুবাছুর নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন উঁচু স্থানে।

 

 

 

 

 

 

খড়ের বড়বড় পিরামিড পড়ে গেছে পানির নিচে। নদনদীর পানি বাড়ায় জেলা সদরের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে আছে তাহিরপুর, বিশ্বম্ভরপুর, ছাতক, জামালগঞ্জ উপজেলার।  সুনামগঞ্জ পৌর এলাকার অন্যতম বাণিজ্যিক কেন্দ্র মধ্যবাজার, পশ্চিমবাজার, সাববাড়িরঘাট এলাকার প্রধান সড়কে আবাদে নৌকা চলছে।

 

অন্যদিকে শহরের কাজীরপয়েন্ট, উকিলপাড়া, ষোলঘর, নবীনগর, ধোপাখালী, মল্লিকপুর, বড়পাড়া, তেঘরিয়া, ওয়েজখালী, কালীপুর হাছনবসত, শান্তিবাগ, মরাটিলা টিলাপাড়া, নুতনপাড়াসহ ৯টি ওয়ার্ডের সবকটি আবাসিক এলাকা পানিতে নিমজ্জিত হয়ে আছে।

 

 

 

 

 

 

 

এসব এলাকার সড়ক গুলো ৫ থেকে ৮ ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। সুরমা নদীর ৩০ টি পয়েন্ট দিয়ে প্রবল বেগে শহরের পানি ঢুকছে। সকাল থেকে বন্যা পরিস্থিতি অবনতির দিকে ধাবিত হয়ে ঘণ্টার মধ্যে পুরো শহর পানির দখলে চলে যায়। রাতভর ভারী বর্ষণ ও উজানের ঢলে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদেও চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন বলেন, পুরো তাহিরপুর উপজেলা মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত। পাহাড়ি ঢলের পানিতে শুরুতে প্লাবিত হয় উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন। হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েন। প্রথম দফার বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই দ্বিতীয় দফা বন্যা শুরু হয়ে গেছে। এতে হাওর এলাকায় মানবিক বিপর্যয় নেমে এসেছে।

 

 

 

 

 

 

 

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায় সুরমা নদীর পানি আজ সন্ধ্যা ৬ টায় ষোলঘর পয়েন্টে বিপদসীমার ৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১২৩ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শক্তিয়ারখলা পয়েন্টে বিপদ সীমার ১৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

 

 

 

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সবিবুর রহমান বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টায় পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে। এতে হাওর ও নদনদীর পানি আরও বেশি বৃদ্ধি পাবে। চেরাপুঞ্জিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

 

 

 

 

 

জেলা প্রশাসনের বন্যা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ সূত্রে জানা যায়, বন্যার কারণে ২৫৬ টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এসব আশ্রয় কেন্দ্রে ১৩৪৪ টি পারিবারের ৫২৭৬ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। তাদেও মধ্যে ১৮৫০ জন পুরুষ,১৮২১ জন নারী ও ১৬০৫ জন বিভিন্ন বয়সের শিশু কিশোর রয়েছেন। জেলার ৮১ টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌর সভার ২০ ওয়ার্ডেও ৭০ হাজার ৩২০টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ৩৩৭ মেট্রিকটন চাল, ২০ লাখ ১৮ হাজার ৫০০ টাকা ও ৩৬০০ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

 

 

 

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ জানান, আশ্রয় কেন্দ্র ও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় মানবিক সহায়তা কর্মসূচির মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। এছাড়া দুর্গত এলাকায় পানি বিশুদ্ধ করণ ট্যাবলেট ও প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র সহ মেডিকেল টিম কাজ করছে।

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম