Logo

July 6, 2020, 5:32 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» সুনামগঞ্জে ২০ একরের উর্দ্ধে জলমহাল ইজারা বিষয়ে ভূমি মন্ত্রী’র ভিডিও কনফারেন্স «» জগন্নাথপুরে নতুন করে এক মহিলা’র করোনা পজেটিভ «» সুনামগঞ্জে অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলে ডেস্কটপ ও শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ল্যাপটপ প্রদান «» শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দেয়ার উদ্যোগ «» সুনামগঞ্জে ইএএলজি প্রকল্পের আওতায় করোনা ভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান «» নবীগঞ্জে দু’টি পরিবারকে সমাজচ্যুত করেও ক্ষান্ত হয়নি গ্রাম্য মোড়লরা! নির্যাতিত পরিবারের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে আহত «» সুরমা নদীর ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী প্রতিরক্ষা কাজ বাস্তবায়ন করা হবে: হুইপ পীর মিসবাহ এমপি «» অবশেষে মুক্তি পেলেন খুলনার সেই সালাম ঢালী «» জগন্নাথপুর পৌরসভার ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষণা «» নবীগঞ্জে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ভাতা সুবিধাভোগীর টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

২৪ ঘণ্টায় ৫ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

দেশের সকল প্রধান নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী ৩ দিন পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। এছাড়া আগামী ২৪ ঘণ্টায় ৫ জেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকতে পারে দুই জেলায়। আর ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টায় ৬ পয়েন্টে নদীর পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে।

 

 

 

শনিবার (২৭ জুন) দেশের নদ-নদীর পূর্বাভাসে এমন তথ্য জানিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর, সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। অপরদিকে লালমনিরহাট ও নীলফামারী জেলার বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকতে পারে।

jagonews24

আগামী ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদী সারিয়াকান্দি ও কাজিপুর পয়েন্টে এবং ৪৮ ঘণ্টায় সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রমের আশঙ্কা রয়েছে। আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টায় উত্তর-পূর্বাঞ্চলের কুশিয়ারা, সমেশ্বরী ও ভোগাই-কংস নদীর পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে।

এছাড়া আগামী ২৪ ঘণ্টায় তিস্তা নদীর পানি স্থিতিশীল ও বিপৎসীমার নিচে অবস্থান করতে পারে। অপরদিকে ধরলা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত অথবা স্থিতিশীল থাকতে পারে এবং বিপৎসীমার উপরে অবস্থান করতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র আরও জানায়, দেশের ১০১টি পানি পর্যবেক্ষণ স্টেশনের মধ্যে ৭৮টিতে পানি বাড়ছে, ২৩টিতে কমছে। আর ৯টির স্টেশনে পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

 

 

 

তার মধ্যে ধরলা নদীর পানি কুড়িগ্রাম পয়েন্টে বিপৎসীমার ৪১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে, তিস্তার পানি ডালিয়া পয়েন্টে ১৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে, ব্রহ্মপুত্রের পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে ২১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে, ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে ৩৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে,

 

 

 

যমুনার পানি ফুলছড়ি পয়েন্টে ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে, যমুনার পানি বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে ১৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে, সুরমার পানি কানাইঘাটে ৪০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে, কুশিয়ারার পানি সুনামগঞ্জ পয়েন্টে ৪৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে, জাদুকাটা পানি লরেরগড় পয়েন্টে বিপৎসীমার ১২১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

jagonews24

 

 

 

এদিকে বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং ভারতের বাংলাদেশ সংলগ্ন বেশকিছু অঞ্চলে প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে। ২৬ জুন সকাল ৯টা থেকে ২৭ জুন সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশের লরেরগড়ে ২৪২ মিলিমিটার, দুর্গাপুরে ১৫১, কানাইঘাটে ১০০,

 

মহেশখোলায় ২৩১, শেওলায় ১২৫, লাটুতে ১০০, সুনামগঞ্জে ১৯০, সিলেটে ১১০ এবং ডালিয়ায় ৮৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। অন্যদিকে একই সময়ে ভারতের চেরাপুঞ্জিতে ৪৮৯৫ মিলিমিটার, পাসিঘাটে ১৫৯, শিলংয়ে ১৬৮ এবং জলপাইগুড়িতে ১৪৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার