Logo

July 5, 2020, 10:42 am

সংবাদ শিরোনাম :

সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করে পরীক্ষা হতে পারে প্রাথমিক-মাধ্যমিকে

স্বদেশ ডেস্ক::

করোনার থাবায় থমকে গেছে লাখ লাখ শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন। এ বছর সব মিলিয়ে ক্লাস হয়েছে দু’মাসের মত। বাকি রয়ে গেছে পুরো সিলেবাসই।

শিক্ষকরা বলছেন, সিলেবাস কিছুটা সংক্ষিপ্ত করে পরীক্ষা নেয়া গেলে ক্ষতি পোষানো সম্ভব হবে। এ বিষয়ে এনসিটিবি বলছে মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা পেলেই তারা উদ্যোগ নিবে। যদিও মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর জানায়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হলেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত।

 

 

 

 

 

 

৬ আগস্ট পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হলেও এ ছুটি কবে নাগাদ শেষ হবে তা জানান নেই কারোরই। এদিকে শিক্ষাবর্ষ পঞ্জিকা এরই মধ্য পার করল অর্ধবার্ষিকী। এ অবস্থা চলমান থাকলে শিক্ষা খাতের ক্ষতি কমিয়ে আনা কষ্টসাধ্য হবে জানিয়ে শিক্ষাবর্ষ শেষ করতে সিলেবাস কমিয়ে আনা প্রয়োজন বলে মনে করছেন শিক্ষকরা।

 

 

 

 

 

 

বাংলাদেশ মাধ্যমিক সরকারি শিক্ষক সমিতি’র সভাপতি মো. আবু সাঈদ ভূঁইয়া জানান, পূর্ণাঙ্গ সিলেবাসের ওপর পরীক্ষা নেয়াটা খুব কঠিন হবে। এটা সম্ভব হবে না। সিলেবাস কিছুটা সংক্ষিপ্ত করে নিয়ে এ বছর পরীক্ষাটা শেষ করতে পারলে শিক্ষার্থীদের জন্যে ভালো হবে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড জানায়, মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা পেলেই এ বিষয়ে উদ্যোগ নেয়া হবে।

 

 

 

 

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা জানান, চিন্তা ভাবনা করছে সেটা ঠিক আছে। কিন্তু কোন সিদ্ধান্ত এখনোও হয়নি। মন্ত্রী মহোদয় এ বিষয় নিয়ে একটা মিটিং করতে পারে। সেখানে যে ধরণের নির্দেশনা আসবে, আমরা সকলেই সেটা বাস্তবায়ন করবো।

 

 

আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরই এ সকল বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে জানিয়ে মাউশি মহাপরিচালক জানান, গ্রাম পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা যাতে পিছিয়ে না পড়ে সেজন্য বিশেষ কর্মপরিকল্পনা করছে সরকার।

 

 

 

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক জানান, আমরা যখন স্কুল খুলবো সেই সময়টাকে বুঝে আমরা ব্যবস্থা নেবো। সেই প্রস্তুতি আমরা নিয়ে রাখছি। আমরা চেষ্টা করবো যেন যা পড়ার কথা তা যেন ওরা পড়তে পারে।

এদিকে কিছু কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনলাইনে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নিলেও সেখানে সব শিক্ষার্থীর উপস্থিতি নিশ্চিত করা যাচ্ছে না।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম