Logo

July 6, 2020, 5:04 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» সুনামগঞ্জে ২০ একরের উর্দ্ধে জলমহাল ইজারা বিষয়ে ভূমি মন্ত্রী’র ভিডিও কনফারেন্স «» জগন্নাথপুরে নতুন করে এক মহিলা’র করোনা পজেটিভ «» সুনামগঞ্জে অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলে ডেস্কটপ ও শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ল্যাপটপ প্রদান «» শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দেয়ার উদ্যোগ «» সুনামগঞ্জে ইএএলজি প্রকল্পের আওতায় করোনা ভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান «» নবীগঞ্জে দু’টি পরিবারকে সমাজচ্যুত করেও ক্ষান্ত হয়নি গ্রাম্য মোড়লরা! নির্যাতিত পরিবারের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে আহত «» সুরমা নদীর ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী প্রতিরক্ষা কাজ বাস্তবায়ন করা হবে: হুইপ পীর মিসবাহ এমপি «» অবশেষে মুক্তি পেলেন খুলনার সেই সালাম ঢালী «» জগন্নাথপুর পৌরসভার ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষণা «» নবীগঞ্জে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ভাতা সুবিধাভোগীর টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

চীনা শিবির গুড়িয়ে দিতে ক্ষেপণাস্ত্রসহ ৪৫ হাজার সেনা পাঠাল ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

গালওয়ান উপত্যাকায় ভারতীয় ভূখণ্ড দখণ্ড দখল করে সেখানে ১৬টি সেনা স্থাপনা বানিয়েছে চীনের সেনাবাহিনী। প্রায় ৯ কিলোমিটার এলাকা দখল করে এসব স্থাপনা বানানো হয়েছে। পরিস্থিতিন নিয়ন্ত্রণে আনতে ওই এলাকা ভারী অস্ত্রসহ ৪৫ হাজার সেনা পাঠিয়েছে ভারত।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি রোববার (২৮ জুন) এ খবর প্রকাশ করেছে। খবরে স্যাটেলাইটে ধরা পড়া চীনা স্থাপনার ছবিও প্রকাশ করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

আনন্দবাজার বলতে, গেল ২২ থেকে ২৬ জুনের মধ্যে তোলা ছবি বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গালওয়ানে ১৫ জুন সংঘর্ষের স্থানে অবকাঠামো তৈরি করেছে চীন। বলা হচ্ছে, ১৪ নম্বর টহল পয়েন্টটি ভারতের নিয়ন্ত্রণে ছিল বলে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। কিন্তু সেই স্থানে একের একের পর অবকাঠামো তৈরি করে সেনা বাড়াচ্ছে বেইজিং।

 

 

 

 

 

 

 

 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গোয়েন্দাদের দাবি, গালোয়ান নদী বরাবর প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে প্রায় ১৩৭ মিটার অভ্যন্তরে প্রবেশ করেছে চীন। বলা হচ্ছে ওই এলকায় দীর্ঘদিন থেকে টহল দিচ্ছে ভারতীয় বাহিনী।

 

 

 

 

 

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, ভারত যেমন বন্ধুত্ব জানে, তেমনই চোখে চোখ রেখে কথা বলতেও জানে। চীনের মোকাবিলায় ভারত যে প্রয়োজনে কড়া মনোভাব নিতে দ্বিধা করবে না, মাসের শেষ রোববার (২৮ জুন)  ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে ভারতবাসীকে সেই বার্তাই দিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

নিয়ম মেনেই মাসের শেষ রোববার বেলা ১১টায় ‘আবির্ভাব’ হল তার। তবে মোদীর এদিনের ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে দেশবাসীর উদ্দেশে বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি নাম না-করে নিশানা করলেন চীনকে। করোনা, আমপান, পঙ্গপাল হানার পাশাপাশি এদিন প্রধানমন্ত্রীর মুখে এসেছে লাদাখে হানাদারির প্রসঙ্গও।

তিনি বলেন, লাদাখে ভারতীয় ভূখণ্ডের দিকে যারা নজর দিয়েছিল, তাদের সমুচিত জবাব দেওয়া হয়েছে।’

 

 

পাশাপাশি এসেছে, নাম না-করে চীনা পণ্য বয়কটের প্রসঙ্গও, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রাপ্ত আসামের এক নাগরিকের মন্তব্যের প্রসঙ্গ এনে নরেন্দ্র মোদী বলেন, পূর্ব লাদাখের ঘটনার পরে উনি শুধুমাত্র দেশীয় পণ্য কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

এছাড়া গালওয়ান উপত্যকায় চীনা সেনাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় সেনার প্রতিরোধের প্রসঙ্গ তুলে মোদী এ দিন বলেন, আমাদের বীর সেনারা দেখিয়ে দিয়েছেন তাঁরা কোনও অবস্থাতেই ভারতমাতার গৌরবে আঁচ আসতে দেবেন না।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম