Logo

July 6, 2020, 5:33 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» সুনামগঞ্জে ২০ একরের উর্দ্ধে জলমহাল ইজারা বিষয়ে ভূমি মন্ত্রী’র ভিডিও কনফারেন্স «» জগন্নাথপুরে নতুন করে এক মহিলা’র করোনা পজেটিভ «» সুনামগঞ্জে অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলে ডেস্কটপ ও শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ল্যাপটপ প্রদান «» শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দেয়ার উদ্যোগ «» সুনামগঞ্জে ইএএলজি প্রকল্পের আওতায় করোনা ভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান «» নবীগঞ্জে দু’টি পরিবারকে সমাজচ্যুত করেও ক্ষান্ত হয়নি গ্রাম্য মোড়লরা! নির্যাতিত পরিবারের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে আহত «» সুরমা নদীর ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী প্রতিরক্ষা কাজ বাস্তবায়ন করা হবে: হুইপ পীর মিসবাহ এমপি «» অবশেষে মুক্তি পেলেন খুলনার সেই সালাম ঢালী «» জগন্নাথপুর পৌরসভার ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষণা «» নবীগঞ্জে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ভাতা সুবিধাভোগীর টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা

স্বদেশ ডেস্ক::

পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় হাত-পা বেঁধে তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। হত্যাকাণ্ড আড়াল করতে দুর্ঘটনা বলে ময়নাতদন্ত ছাড়াই ইসরাত জাহান ইমা নামে এ গৃহবধূকে দাফন করা হয়।

গত বৃহস্পতিবার (১১ জুন) বিকেলে বরিশালের হিজলা উপজেলার বড়জালিয়া ইউপির খুন্না গবিন্দপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ইসরাত জাহান ইমা একই উপজেলার হরিনাথপুর ইউপির মহিষখোলা গ্রামের শফিকুল ইসলাম মাসুমের মেয়ে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

হিজলা থানার ওসি অসীম কুমার সিকদার বলেন, এ ঘটনায় নিহতের বাবা গত রোববার (২১ জুন) থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় নিহতের স্বামী খুন্না গবিন্দপুর টেকের বাজারের মুদি ব্যবসায়ী মহসিন রেজা, ভাশুর মোস্তফা ব্যাপারী, শ্বশুর দেলোয়ার হোসেন ব্যাপারী ও প্রেমিকা শাহনাজ বেগমকে আসামি করা হয়েছে। তবে বিষয়টি টের পেয়েই আসামিরা আত্মগোপনে চলে যান। তবে তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

 

 

 

 

 

 

 

নিহতের চাচা মাজহারুল ইসলাম জানান, আট বছর আগে পারিবারিক ভাবে উপজেলার হরিনাথপুর ইউনিয়নের মহিষখোলা গ্রামের শফিকুল ইসলাম মাসুমের কন্যা ইসরাত জাহান ইমার বিয়ে হয় পার্শ্ববর্তী বড়জালিয়া ইউনিয়নের খুন্না গবিন্দপুর টেকের বাজারের মুদি ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন বেপারীর ছেলে মহসিন রেজার সাথে। আট বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের পাঁচ বছরের একটি কন্যা ও দেড় বছরের পুত্র সন্তান রয়েছে। তাছাড়া ইসরাত জাহান ইমা তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলো।

 

 

 

 

তিনি আরো জানান, সম্প্রতি মহসিনের খালাতো বোন শাহনাজ বেগমের সাথে মহসিন রেজার পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর থেকে মহসিন ও ইমার দাম্পত্য জীবনে কলহ শুরু হয়। এ নিয়ে প্রায়ই ইমাকে তার স্বামী শারীরিক নির্যাতন করে আসছিলো। সবশেষ গত ১০ জুন একই বিষয় নিয়ে তাদের স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে তুমুল বাগবিতণ্ডা হয়। খবর পেয়ে ইমার মা ইয়াসমিন বেগম মেয়ের স্বামীর বাড়িতে যান। ওইদিন শাশুড়ির সামনেই স্ত্রীকে মারধর করে মহসিন রেজা।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এ ঘটনার পরেরদিন ১১ জুন ইমার মা বাড়ি চলে যান। ওই দিন বিকেলে স্থানীয় শিপন ও রফিক নামের দুই যুবক অগ্নিদগ্ধ ইমাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলেও স্ত্রীর খোঁজ নেয়ার চেষ্টা করেনি মহসিন রেজা। ফলে বিষয়টি নিয়ে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। উল্টো মহসিন তার শ্বশুরকে ফোন করে জানায় গ্যাসের চুলায় অগ্নিসংযোগে ইমা মারা গেছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

পরে ইমার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় প্রথমে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে এবং পরবর্তীতে ওইদিন রাতেই অ্যাম্বুলেন্স যোগে রাজধানীর শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে নিয়ে ১২ জুন সকালে ইমাকে ভর্তি করেন। ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৮ জুন সকালে ইমা মারা যায়।

তিনি আরো জানান, মৃত্যুর আগে ইমা তার উপর নির্যাতন এবং পুড়িয়ে মারার ঘটনার বর্ণনা দিয়ে গেছে। যার ১১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও রেকর্ড রয়েছে। এরপরেও ইমার মাকে শাহাবাগ থানায় কর্মরত এক পুলিশ কনস্টেবলের মাধ্যমে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে লাশ নিয়ে আসা হয়। তাই হত্যার বিষয়টি গোপন করে দুর্ঘটনার কথা বলে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিট থেকে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ হিজলায় এনে দাফন করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

গৃহবধূর মৃত্যুর আগে রেখে যাওয়া ভিডিও রেকর্ডিং গত কয়েকদিন আগে ছড়িয়ে পরলে পুরো উপজেলা জুড়ে তোলপাড় শুরু হয়। এটি দুর্ঘটনা নয়, বরং হত্যা বলে গুঞ্জন ওঠে। ভিডিও রেকর্ডে শোনা যায় গৃহবধূ বলেন, পরকীয়া প্রেমের জের ধরে প্রথমে তাকে চেয়ার দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়। তিনি অচেতন হয়ে পরার পর তার হাত-পা বেঁধে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়।

 

 

 

 

 

 

 

 

স্থানীয়রা জানায়, একটি ভবনের দ্বিতীয় তলায় থাকতেন ইমা ও মহসিন। ঘটনার দিন বিকেলে ইমার চিৎকারে ওই ভবনের দুই প্রতিবেশী ঘটনাস্থলে যান। পরে তারা ইমাকে পুড়তে দেখে নিজেদের ঘর থেকে পানি নিয়ে আগুন নেভান। এ সময় ইমার স্বামী জানালার কাছে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

হিজলা থানার ওসি অসীম কুমার সিকদার বলেন, ১১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও পেয়েছি। যেখানে ইসরাত জাহান ইমা মৃত্যুর কিছুটা বর্ণনা দিয়েছেন। এতে কিছুটা হলেও স্বামীকে ইঙ্গিত করা হয়েছে।

ওসি আরো বলেন, এরইমধ্যে এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে গৃহবধূর মরদেহ কবর থেকে তুলে ময়নাতদন্ত করা হবে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম