Logo

July 6, 2020, 5:22 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» সুনামগঞ্জে ২০ একরের উর্দ্ধে জলমহাল ইজারা বিষয়ে ভূমি মন্ত্রী’র ভিডিও কনফারেন্স «» জগন্নাথপুরে নতুন করে এক মহিলা’র করোনা পজেটিভ «» সুনামগঞ্জে অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলে ডেস্কটপ ও শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ল্যাপটপ প্রদান «» শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দেয়ার উদ্যোগ «» সুনামগঞ্জে ইএএলজি প্রকল্পের আওতায় করোনা ভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান «» নবীগঞ্জে দু’টি পরিবারকে সমাজচ্যুত করেও ক্ষান্ত হয়নি গ্রাম্য মোড়লরা! নির্যাতিত পরিবারের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে আহত «» সুরমা নদীর ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী প্রতিরক্ষা কাজ বাস্তবায়ন করা হবে: হুইপ পীর মিসবাহ এমপি «» অবশেষে মুক্তি পেলেন খুলনার সেই সালাম ঢালী «» জগন্নাথপুর পৌরসভার ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষণা «» নবীগঞ্জে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ভাতা সুবিধাভোগীর টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

একাত্তরে আওয়ামী লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক::

দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্ব দেওয়া উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও বৃহৎ রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আজ গৌরবোজ্জ্বল ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। পুরান ঢাকার বিখ্যাত রোজ গার্ডেনে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঐতিহ্যবাহী এ দলটির জন্মলাভের মধ্য দিয়েই রোপিত হয়েছিল বাঙালির হাজার বছরের লালিত স্বপ্ন স্বাধীনতা সংগ্রামের বীজ। গৌরব ও ইতিহাসের নানা বাঁক পেরিয়ে আজ ৭২ বছরে পা দিল মাওলানা অাব্দুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শামসুল হক আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া আওয়ামী লীগ।

 

 

 

মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশের স্বাধীনতা অর্জনে নেতৃত্ব দেয় দলটি। আওয়ামী লীগ মানেই জাতির অর্জন, সমৃদ্ধি আর সম্ভাবনার স্বর্ণালি দিন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী ও যোগ্য নেতৃত্বের কারণে জনপ্রিয়তায় ও দেশকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে দলটি।

 

 

 

 

বহু ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্যে কখনও বিরোধী দলে, কখনও সরকারে থেকে দেশ গঠনে অনন্য অবদান রেখে চলেছে মাটি ও মানুষের রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ভাষা আন্দোলন, গণআন্দোলন, স্বাধিকার আন্দোলন, স্বাধীনতা যুদ্ধ- স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাসের পাতার পরতে পরতে একটিই নাম আওয়ামী লীগ। সব পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগের হার না মানা নেতৃত্ব। উপমহাদেশের রাজনীতিতে সাত দশক ধরে নিজেদের অপরিহার্যতা প্রমাণ করেছে আওয়ামী লীগ। হয়ে উঠেছে গণমানুষের দল।

 

 

 

 

এদেশের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে আওয়ামী লীগের ভূমিকা প্রত্যুজ্জল। ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬২’র ছাত্র আন্দোলন, ৬৬’র ছয় দফা, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, ৭০’র যুগান্তকারী নির্বাচন আর ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা আন্দোলন সবখানেই সরব উপস্থিতি ছিল আওয়ামী লীগের।

 

 

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও আবুল হাশিমের নেতৃত্বাধীন তৎকালীন বঙ্গীয় প্রাদেশিক মুসলিম লীগের একাংশের সম্মেলনের মধ্য দিয়ে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার টিকাটুলীর কে এম দাস লেন রোডের রোজ গার্ডেন প্যালেসে ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ’ প্রতিষ্ঠিত হয়, যার সভাপতি ছিলেন মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী এবং সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক। তখন কারাবন্দি অবস্থায় তরুণ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত হন।

 

 

 

 

 

 

১৯৫৩ সালে ময়মনসিংহে দলের দ্বিতীয় কাউন্সিলে মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী সভাপতি এবং শেখ মুজিবুর রহমান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৫৫ সালের ২১-২৩ অক্টোবর ঢাকার সদরঘাটের রূপমহল সিনেমা হলে দলের তৃতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক সংগঠনে পরিণত হয়। ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে দলের নতুন নামকরণ হয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ।

 

 

 

১৯৫৭ সালে কাগমারী সম্মেলনে দলের আন্তর্জাতিক নীতির প্রশ্নে সোহরাওয়ার্দী-ভাসানীর মতপার্থক্যের কারণে প্রথমবারের মতো আওয়ামী লীগ ভেঙ্গে যায়। ভাসানীর নেতৃত্বে গঠিত হয় ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ)। আর মূল দল আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন মওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান বহাল থাকেন।

 

 

 

১৯৬৬ সালের কাউন্সিলে দলের সভাপতি পদে নির্বাচিত হন শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তাজউদ্দীন আহমদ। ১৯৭০ সালের কাউন্সিলে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক অপরিবর্তিত থাকেন। এই কমিটির মাধ্যমেই পরিচালিত হয় মহান মুক্তিযুদ্ধ।

 

 

 

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর দলের নামকরণ করা হয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ১৯৭২ সালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রথম কাউন্সিলে সভাপতি হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুুর রহমান। ’৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু সভাপতির পদ ছেড়ে দিলে সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয় এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে। সাধারণ সম্পাদক পদে বহাল থাকেন জিল্লুর রহমান।

 

 

 

 

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর রাজনৈতিক পটপরিবর্তন হলে আওয়ামী লীগের রাজনীতি স্থগিত করা হয়। ১৯৭৬ সালে ঘরোয়া রাজনীতি চালু হলে আওয়ামী লীগকেও পুনরুজ্জীবিত করা হয়। এসময় আওয়ামী লীগ নেতা মিজানুর রহমান চৌধুরী ও মোল্লা জালালউদ্দিনকে নিয়ে নেতৃত্বের কোন্দল শুরু হয়।

 

 

 

 

ওই সময় আওয়ামী লীগের ঐক্য রক্ষা ও পুনরুজ্জীবিত করতে সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীনকে আহ্বায়ক করে একটি আহ্বায়ক কমিটি করা হয়। ’৭৮ সালের কাউন্সিলে দলের সভাপতি করা হয় আবদুল মালেক উকিলকে এবং সাধারণ সম্পাদক হন আবদুর রাজ্জাক। এসময় দলে অভ্যন্তরীন সমস্যা দেখা দিলে নির্বাসনে থাকা বঙ্গবন্ধুকন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।

 

 

 

 

 

দেশে ফেরার আগেই ’৮১ সালের কাউন্সিলে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী  এবং সাধারণ সম্পাদক পদে বহাল থাকেন আবদুর রাজ্জাক। আবারও আঘাত আসে দলটির ওপর। ’৮৩ সালে আবদুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে দলের একটি অংশ পদত্যাগ করে আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে বাকশাল গঠন করে। এ সময় সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ’৮৭ সালের কাউন্সিলে শেখ হাসিনা সভানেত্রী ও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী সাধারণ সম্পাদক হন।

 

 

 

 

 

’৯২ ও ’৯৭ সালের সম্মেলনে শেখ হাসিনা এবং প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুুর রহমান দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০০ সালের বিশেষ কাউন্সিলে একই কমিটি বহাল থাকে। ২০০২ সালের ২৬ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিলে শেখ হাসিনা এবং প্রয়াত আবদুল জলিল দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালের ২৪ জুলাই, ২০১২ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের দুটি কাউন্সিলে শেখ হাসিনা সভানেত্রী বহাল থাকেন এবং সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। ২০১৬ সালের ২৭ ও ২৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে সভাপতি পদে শেখ হাসিনা বহাল থাকলেও নতুন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন বর্তমান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ২০-২১ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিলে সভাপতি পদে শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক পদে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বহাল থাকেন।

 

 

 

দীর্ঘ রাজনৈতিক পথ পরিক্রমায় অনেক ঘাত-প্রতিঘাত, চড়াই-উতরাই ও ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে দলটি আজ এ দেশের গণমানুষের ভাব-ভাবনার ধারক-বাহকে পরিণত হয়েছে। একাত্তর শব্দটি প্রতিটি বাঙালির কাছে অনন্য মর্যাদার। বাংলাদেশের স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী দলের ৭১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীও তাই বিশেষ মর্যাদার দাবি রাখে।জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে আওয়ামী লীগের এবারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনেক বর্ণিল ও জাঁকজমকপূর্ণ হওয়ার কথা ছিল।

 

 

 

 

 

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে সকল অানুষ্ঠানিকতা প্রায় স্থগিত।সংকটকালীন সময়ে মানুষের পাশে থেকে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করছে দলটি।দীর্ঘ পরীক্ষায় উক্তির্ণ হয়ে অসাম্প্রদায়িক প্রগতিশীল  গণতান্ত্রিক ভাবধারার আস্থার প্রতীকে পরিণত হয়েছে সংগঠনটি। বাংলাদেশ অাওয়ামী লীগের ৭১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলের প্রতিষ্ঠাকালীন নেতৃত্বের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা। বাংলাদেশ অাওয়ামী লীগের  সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের শুভেচ্ছা।

মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা : সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ ও জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার