Logo

July 10, 2020, 9:34 am

সংবাদ শিরোনাম :

বাবা নামের বটগাছটি হারিয়েও থেমে যায়নি শাওন: সব বাধা পেরিয়েও এসএসসিতে এ প্লাস পেল

হাসান আল মাহমুদ রাজু, কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি::

দারিদ্রতার বেড়াজাল ডিঙ্গিয়ে নিজের নিরলস চেষ্টায় শত বাধা পেরিয়ে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে কর্মধা উচ্চ বিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী শাহরিয়ার আহমদ শাওন।

 

 

 

 

কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নের নলডরী গ্রামের মৃত মো. লাল মিয়া ও গৃহিনী ফাতেমা বেগম কনিষ্ট পুত্র ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে চমক দেখিয়েছে এ মেধাবী শিক্ষার্থী।

 

 

 

পিতার অবর্তমানে বড় ভাই রায়হান উদ্দিন একটি বেসরকারি কোম্পানীর সেল্সম্যানের চাকুরী করে হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রমে ছোট ভাইকে পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার অর্জিত এ ফলাফলে নিজের পরিবার ও এলাকায় বইছে আনন্দের বন্যা। নিজেদের টিনবেড়ার জরাজীর্ণ বসত ঘরে দ্রারিদ্রতার বেড়াজাল দমাতে পারেনি শাওনের মেধাকে। দুই ভাইয়ের মধ্যে কনিষ্ঠ শাওন  ২০১৭ সালের জেএসসি পরীক্ষায়ও জিপিএ ৫ অর্জন করেছিল।

 

 

 

 

পিতার অবর্তমানে মাতার অনুপ্রেরনা ও বড় ভাইয়ের হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রমের ফসল এবং স্কুল শিক্ষকদের গাইড লাইন তার এ ফলাফল অর্জনে ভূমিকা রেখেছে। নিয়মিত স্কুলে উপস্থিতি ও প্রতিদিন ৮/১০ ঘন্টা বাড়িতে মনোযোগ সহকারে পড়াশোনা মাধ্যমে নিজের মেধাকে বিকাশ ঘটিয়েছে শাওন।

 

 

 

 

নিজের ফলাফল ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে শাহরিয়ার আহমদ শাওন বলেন, ভবিষ্যতে ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে উচ্চ শিক্ষা নিতে আগ্রহী।

 

 

 

এ বিষয়ে কর্মধা উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. মোশাহিদ আলী জানান, কর্মধা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবছর ৮৮% ফলাফল সহ ৪টি জিপিএ-৫ এসেছে। এর মধ্যে শাওনের পরিবারে আর্থিক সমস্যা সত্ত্বেও এই ফলাফলে আমরা গৌরবান্বিত।

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার