Logo

May 28, 2020, 8:34 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» ৩১ মে থেকে ব্যাংক লেনদেন চলবে আগের মতো «» করোনা আক্রান্ত কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের সিএ বিপ্লব সুস্থতায় দোয়া ও আর্শিবাদ চেয়েছেন «» বাড়ি বাড়ি প্রশ্নপত্র পাঠিয়ে প্রাথমিকের পরীক্ষার পরিকল্পনা «» সিলেট সীমান্ত দিয়ে গেলেন ১২০ ভারতীয়, এলেন ২০ বাংলাদেশি «» কানাইঘাটে এক শিক্ষকের অর্থায়নে অর্ধ কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার «» টিকিট বিক্রির ঘোষণা দিল বিমান ইউএস-বাংলা নভোএয়ার «» নানা দেশের নানা পদে মজাদার ‘পঙ্গপাল’ রেসিপি «» লোভাছড়ার পাথর কোয়ারীর লীজের মেয়াদ শেষ: পাথর পরিবহন ও বিপণন বন্ধে ইউএনও’র চিঠি «» কুলাউড়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় চালক নিহত «» ২৪ ঘন্টায় করোনা কাড়ল আরও ১৫ প্রাণ, নতুন শনাক্ত দুই হাজার ২৯ জন

দোয়ারাবাজারে কেউ একাধিকবার ত্রাণ পাচ্ছেন, কেউ বঞ্চিত হচ্ছেন !

এম মোতালিব ভুঁইয়া::

করোনা সংকটকালে দোয়ারাবাজারে দরিদ্র ও নিন্ম আয়ের মানুষের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিরতণে সমন্বয়হীনতা দেখা দিয়েছে।

যে যার যার মতো করে বিতরণ করছেন। এমন পরিস্থিতিতে কেউ কেউ একাধিকবার পাচ্ছেন আবার বঞ্চিত হচ্ছেন অনেকেই ।

 

 

 

জানা গেছে, গত কয়েকদিন থেকে সরকারি ত্রাণ ছাড়াও রাজনীতিবিদ, বিত্তশালী ব্যক্তি ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন বিভিন্নভাবে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে আসছেন।এসব তাদের অনুসারীরা যার যার মতো করে বিতরণ করেছেন। বিতরণে কেউ কারও সঙ্গে যোগাযোগ ও সমন্বয় করেনি বলে জানা গেছে।

 

 

 

এছাড়াও ব্যক্তি ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন তাদের মন মতো খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করছেন সমন্বয় ছাড়া।

 

দোয়ারাবাজারের ৯ ইউনিয়নে প্রথম পর্যায়ে ১০ টন চাল ও ১ লক্ষ ১৬ হাজার টাকা দ্বিতীয় পর্যায়ে ৪০.৫ টন চাল ও ১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৫শত ১৭ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিরা এসব বিতরণ করেন।

 

 

 

দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বলেন, যারা যারা ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করবেন একজন অপরজনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে সব অসহায়দের কাছে পৌঁছবে।

অনেক অসহায় পরিবারের মধ্যে করোনা সংকটের খাদ্য পৌঁছেনি। প্রত্যেক ওয়ার্ডে সমন্বয়ের মাধ্যমে তালিকা তৈরি করে যথাযথভাবে দেওয়ার অনুরোধ করেন তিনি।

 

 

 

দোয়ারাবাজার উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও বাংলাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান জসিম মাষ্টার বলেন, খাদ্যসামগ্রী বিতরণে কোনো সমন্বয় নেই। প্রতি ইউনিয়নে ত্রাণ বিতরণ কমিটি আছে তাদের সাথে সমন্বয় করে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মাধ্যমে তালিকা তৈরি করে অসহায়দের মধ্যে ওইসব খাদ্যসামগ্রী বিরতণ করলে কেউ বঞ্চিত হবে না।

 

 

 

 

দোয়ারাবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি এম এ করিম লিলু বলেন, এ মুহূর্তে উপজেলায় কন্ট্রোলরুম করে সেখানে সবাই ত্রাণের অর্থ বা খাদ্যসামগ্রী জমা দেওয়া যেতে পারে। সব ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান একসঙ্গে মিলে ত্রাণ দিলে সমবন্টন হতো। অসহায়রা বাদ পড়তো না।

 

 

 

দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোনিয়া সুলতানা বলেন, এখন থেকে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করতে হবে। প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ ও সমন্বয় থাকতে হবে। কেউ একাধিকবার পাবেন আবার কেউ বঞ্চিত হবেন এমনটি যাতে না হয় সে বিষয়গুলো যথাযথভাবে দেখা হবে।

যে কেউ এসে যে কোনো স্থানে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করতে পারবে না। পুলিশকেও জানাতে হবে এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতের মাধ্যমে বিতরণ করতে হবে।

কোন এনজিও,ব্যক্তি ,সামাজিক সংগঠন ত্রাণ বিতরণ করতে চাইলে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের নামের তালিকার সাথে সমন্বয় করে ত্রাণ বিতরণ করার অনুরোধ করেন তিনি।

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জে.এম