Logo

April 9, 2020, 11:32 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» দোয়ারাবাজারে করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত যুবকের লাশ বহনে খাটিয়া দেয়নি গ্রামবাসী, ছবি ভাইরাল «» সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা «» কানাইঘাটে ছাত্রনেতা হারুণ রশিদের ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে ৩০০পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ «» লকডাউন সফল করতে পেটে ভাত থাকা চাই «» থুতু দিয়ে করোনা ছড়ানোর হুমকি দিয়ে গ্রেফতার দুই «» মসজিদে নয় বাসায় শবে বরাতের আমলের আহ্বান আলেমদের «» করোনা: অন্য এলাকা থেকে এলে থাকতে হবে হোম কোয়ারেন্টিনে…. এসআই আফসার আহমদ «» কালীবাড়ি ও আশেপাশের এলাকার অর্ধশত পরিবারে অধ্যক্ষ শেরগুল আহমদ মানবিক খাদ্য সহযোগিতা প্রদান «» জগন্নাথপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ব্লিচিং পাউডার দেয়া হচ্ছে «» চীনকে ধন্যবাদ জানালেন প্রধানমন্ত্রী

জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ বাজারের দোকান পাট বন্ধের অভিযানে ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক::

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে জন্য সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সন্ধ্যা সাতটা থেকে ঔষধের দোকান ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান ছাড়া সকল প্রকার মার্কেট ও দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন জগন্নাথপুর উপজেলা প্রশাসন।

 

 

 

আজ সোমবার উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশ দেওয়ার পরও উপজেলা প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী রানীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ না করে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এ খবর পাওয়ার সাথে সাথে পাইলগাঁও ও রানীগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র পুরকায়স্থ বাজারের প্রত্যেকটা দোকানে গিয়ে ব্যবসায়ীদের সরকারী আইন পালনের অনুরোধ করেন।

 

 

 

 

 

বাজার ব্যবসায়ীরা সহকারী ভূমি কর্মকর্তার অনুরোধে সাড়া দিয়ে বাজারের প্রত্যেক দোকান বন্ধ করেন। এসময় পাইলগাঁও ও রানীগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপ সহকারী কর্মকর্তা জহুর আহমদ, রানীগঞ্জ বাজার সেক্রেটারী আজমল হোসেন মিটু, রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ সহ আরো অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

পাইলগাঁও ও রানীগঞ্জ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র পুরকায়স্থ জানান, আজ আমাদেরকে উপজেলা করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটি কর্তৃক ঘোষিত জরুরী নির্দেশনায় বলা হয়েছে সম্ভাব্য করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধের উদ্দেশ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় ঔষধ খাদ্য সামগ্রী ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান ব্যতীত সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দুপুর একটা হতে পরবর্তী দিন সকাল আটটা পর্যন্ত সম্পূর্ণরুপে বন্ধ থাকবে।

 

 

চায়ের দোকান, খাবারের রেস্টুরেন্ট, চুল কাটার সেলুন পরবর্তী নির্দেশনা দেয়ার আগ পর্যন্ত সম্পুর্ণরুপে বন্ধ থাকবে। সকল সরকারি অফিসের সামনে জনসাধারণের জন্য সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে। হাসপাতালের জনসাধারণের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সার্বক্ষণিক পুলিশ ও আনসার মোতায়েন করতে হবে এবং হাসপাতালে রোগীর সাথে দর্শনার্থী প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে হবে।

 

 

হোম কোয়ারেন্টাইন সংক্রান্ত সরকার নির্দেশিত বিধান লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে গঠিত পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি কার্যকর করতে হবে এবং এবং কমিটিকে সহায়তার জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক দল গঠন করে তাদেরকে ইউনিয়ন ভিত্তিক পর্যাপ্ত নিরাপত্তা সাথে প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

 

 

 

প্রতিটি হাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতি নিজ নিজ বাজার এলাকায় উপজেলা কমিটির সিদ্ধান্ত সমূহ বাস্তবায়নের জন্য পর্যাপ্ত মাইকিং ও অন্যান্য মাধ্যমে প্রচারণার ব্যবস্থা নিশ্চিত করবেন। আগামী ২৪ মার্চ ২০২০ থেকে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ ও বিভিন্ন আধা সামরিক বাহিনীর সহায়তায় উপর্যুক্ত সিদ্ধান্ত সমূহ বাস্তবায়ন করবে। আসুন আমরা সকলে মিলে সরকারী আইন মেনে চলি।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার