Logo

April 8, 2020, 5:41 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» পরীক্ষার জন্য আরও ৬০ জনের নমুনা বিএসএমএমইউ করোনা ল্যাবে «» রংপুরে ২ নারীর মৃত্যু, অ্যাম্বুলেন্সে লাশ রেখে পালাল চালক ও স্বজনরা «» শেরপুর হামরকোনা বয়েজ ক্লাবের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ফ্রি সবজি বাজার «» কানাইঘাটে সাংবাদিকদের সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করলেন ব্যবসায়ী এনামুল হক «» রাষ্টপতির কাছে প্রাণ ভিক্ষার আবেদন মাজেদের «» করোনা প্রতিরোধে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি সুনামগঞ্জ ইউনিটের বিভিন্ন উদ্যোগ «» দোয়ারাবাজারে ৪৫০টি কর্মহীন পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েল «» কানাইঘাট পৌরসভায় সরকারী বরাদ্দকৃত চাল বিতরণে অনিয়ম «» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বাগেরকোনা গ্রামের যুবকদের উদ্যোগে ত্রান সামগ্রী বিতরণ «» জগন্নাথপুরে সৌদি প্রবাসীর অর্থায়নে ৩০০ পরিবারের মধ্যে ত্রান বিতরণ

করোনা বিস্তারের পথেই নিস্তারের ব্যবস্থা!

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

 

করোনাভাইরাস কোনো এলাকায় কাদের মাধ্যমে ছড়িয়েছে, যে ব্যক্তি সংক্রমিত হয়েছেন, তিনি কাদের সঙ্গে মিশেছেন, এ বিষয়গুলো যত বেশি জানা যাবে, এ রোগের নিয়ন্ত্রণে তত নিখুঁত পরিকল্পনা সম্ভব।

 

 

অর্থ হলো– যেভাবে ছড়িয়েছে, সেই পথ ধরে নিয়ন্ত্রণের চিন্তা করতে হবে। যেহেতু আমাদের লোকবল ও সম্পদ সীমিত, তাই করোনা মোকাবেলার প্ল্যান হওয়া উচিত সুনির্দিষ্ট। আক্রান্ত ও সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের অবস্থান, চলাচলের পথের ম্যাপ তৈরি করতে হবে। এভাবে করোনা বিস্তারের পথে রয়েছে এ নিস্তারের পথ।

 

 

 

বিদেশফেরতরা শুনছেন না কথা

ছোট একটি উদাহরণ দেয়া যেতে পারে– গত ১ মার্চ থেকে শুরু করে ১৭ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নিজ এলাকায় ফিরেছেন আট হাজার ৯৭৪ প্রবাসী। দেশে ফিরে এলেও হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন মাত্র অল্প কজন। গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায়, বিদেশ থেকে মানুষ ফিরে এসেছে, কিন্তু কোয়ারেন্টিনে থাকতে চাইছে না।

 

 

সরকার বিদেশফেরতদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু এসব লোকজন ঘুরে বেড়াচ্ছেন রাস্তায়, বাজার, আত্মীয়স্বজনের বাসায়; আবার কেউ বিয়েও করছেন।

 

 

 

বাংলাদেশে এ পর্যন্ত প্রায় ২৭ জন করোনা আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। তাদের অধিকাংশ বিদেশফেরত এবং করোনা আক্রান্ত প্রবাসীদের সংস্পর্শে এসেছে। অধিকাংশ মানুষের স্বাস্থ্য রক্ষায় করোনা আক্রান্ত বা বিদেশফেরত প্রবাসীদের কোয়ারেন্টিনে থাকা বা রাখা জরুরি।

 

 

 

পুলিশ কীভাবে খুঁজবে বিদেশফেরতদের

বাংলাদেশের অনেক মানুষই বর্তমান ঠিকানা বা স্থায়ী ঠিকানায় থাকেন না। মোবাইল নম্বরটি হয়তো আর ব্যবহার করছেন না। বিগত কয়েক মাসে কয়েক লাখ মানুষ বিদেশ থেকে এসেছেন, তাদের এভাবে খুঁজে বের করা পুলিশের পক্ষে কঠিন। প্রয়োজন সেলফ রিপোটিং ব্যবস্থা।

সর্বমোট সাতটি ধাপে কাজটি করতে হবে

১. বাংলাদেশ পুলিশ এই অনলাইনে একটি ফরম দেবে, যাতে বিদেশ থেকে আগত ব্যক্তিরা তাদের পাসপোর্ট নম্বর, মোবাইল নম্বর, বর্তমান অবস্থান, শারীরিক অবস্থা এবং কোথায় কোথায় গেছেন এ সংক্রান্ত তথ্য নির্দিষ্ট ফরম্যাটে প্রদান করবেন।

২. গণবিজ্ঞপ্তি, মোবাইল মেসেজ, মাইকিং, গণমাধ্যমে প্রচার করে তিন দিনের মধ্যে এ ফরম্যাটে তথ্য দিতে বলা হবে।

৩. যারা তিন দিনের মধ্যে তথ্য প্রদান করবেন না, তাদের পাসপোর্ট লক করে দেয়া এবং আগামী ছয় মাসের মধ্যে তারা দেশের বাইরে যেতে পারবেন না। যারা নিবন্ধন করবে না, তাদের পাসপোর্ট বাতিল করে দেয়ার ঘোষণা করা।

৪. নিবন্ধন অনুসারে আগত ব্যক্তিদের তালিকা ও এলাকার তথ্য স্বাস্থ্য অধিদফতর ও ওসিকে দেয়া, যাতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিতে পারে।

৫. ওই এলাকাসমূহে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে পাবলিক প্লেস ও পরিবহন ব্লিচিং পাউডার মিশ্রিত পানি স্প্রে করে জীবাণুনাশক করা।

৬. ওই ব্যক্তিরা বিগত ১৪ দিনে যাদের সঙ্গে মিশেছেন, তাদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার ব্যবস্থা করা।

৭. যারা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকবেন, তাদের জন্য ফ্রি ইন্টারনেট ও মানসিক কাউন্সিলের ব্যবস্থা করা।

 

 

 

করোনা নিয়ন্ত্রণে কেরালা সরকারের সাফল্য

কেরালা সরকার করোনা নিয়ন্ত্রণে ভালো সফল হয়েছে। এ কাজগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে– প্রথমত যোগাযোগ ট্রেসিং ইউনিট স্থাপন। এ ইউনিটে কোনো ব্যক্তি আসার পর পর স্বেচ্ছাসেবীরা তার সম্পর্কে তথ্য রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগে পাঠায় এবং প্রবাস থেকে ব্যক্তির চলাফেরার ওপর নজর রাখেন।

দ্বিতীয়ত আক্রান্ত ব্যক্তির চলাচলের ম্যাপ তৈরি: কোনো ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর তার চলাফেরার পুরো ম্যাপ তৈরি করছে কেরালার স্বাস্থ্য বিভাগ।

যার মাধ্যমে ওই ব্যক্তি সম্প্রতি কোথায় কোথায় গেছেন এবং কাদের সঙ্গে মিশেছে, সব কিছুর একটি মানচিত্র তৈরি করে নেয়। গুগুল ম্যাপে এ কাজ করা খুব একটি কঠিন কাজ নয়।

তৃতীয়ত কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থা। যেখানে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা নিয়েছে, সেখানে কেরালা রাজ্য সরকার ২৮ দিনের জন্য কোয়ারেন্টিন করছে; যাতে করে সংক্রমণ ছড়ানোর আর কোনো সম্ভাবনা না থাকে।

সেই সঙ্গে কোয়ারেন্টিনে থাকা ব্যক্তিদের পছন্দমতো খাবার ব্যবস্থার পাশাপাশি, ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য ওয়াইফাইর ব্যবস্থা ও রোগ থেকে সেরে উঠতে কাউন্সেলিং করছে কেরালা।

 

 

 

কেন প্রবাসীদের চিহ্নিত করতে হবে

কেন প্রথমেই প্রবাসীদের চিহ্নিত করতে হবে– অনেকেই প্রশ্ন করতে পারেন। প্রথমেই বলা হচ্ছে– আগত প্রবাসীদের মাধ্যমে এ রোগ সংক্রমণ হয়েছে। ইতিমধ্যে দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার ওষুধ, কাঁচামাল, মুদি দোকান বাদে সব দোকানপাট ও গণপরিবহন বন্ধের ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

কেননা করোনা আক্রান্তদের অধিকাংশই ওই এলাকার। তাই প্রবাসীরা কোথায় গেছেন, কার সঙ্গে মিশেছেন, তা জানলে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা সহজ হবে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, সচরাচর একই এলাকায় অনেক মানুষ বিদেশ থেকে ফিরেছেন। ওই এলাকাগুলো সহজে চিহ্নিত করা হলে রোগের বিস্তার রোধ করা সম্ভব হবে।

 

 

 

করোনার বিস্তারেই পথ চিহ্নিত করার সুবিধা

রাজনৈতিকভাবে যত বড় কথাই বলা হোক না কেন, এখনও এ দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা জনসংখ্যার তুলনায় অপ্রতুল। রাষ্ট্র অনেক টাকা ব্যয় করেছে স্বাস্থ্য খাতে, তার বড় অংশ অপচয় হয়েছে দুর্নীতি ও অপরিকল্পনার কারণে। যাক এই কঠিন মুহূর্তে সীমিত সম্পদ আর লোকবল দিয়ে কীভাবে এ সমস্যা মোকাবেলা করা যায়; তা চিন্তা করতে হবে।

বর্তমানে করোনা মোকাবেলায় সারা দেশের মানুষকে মাথায় নিয়ে কাজ করছে স্বাস্থ্য অধিদফতর এবং সব সংস্থা। কিন্তু এ মুহূর্তে করোনা যেভাবে এসেছে ও ছড়াচ্ছে, তা চিহ্নিত করা দরকার।

একজন অপরাধীকে যেভাবে খুঁজে বের করা হয়, ঠিক একইভাবে করোনার বিস্তারের পথ খুঁজে নির্মূল করতে হবে। বাংলাদেশ পুলিশ এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

 

 

 

শাস্তি ও প্রণোদনা

করোনা নিয়ন্ত্রণে জনগণকে শাস্তি ও প্রণোদনা দুটিই দেয়া উচিত। সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮ অনুসারে সংক্রান্ত রোগ নিয়ন্ত্রণে সরকারের নির্দেশনা অমান্যের শাস্তি ছয় মাসের জেল বা এক লাখ টাকা জরিমানা বা উভয়দণ্ডের ব্যবস্থা রয়েছে।

এ ছাড়া নির্দেশনা অমান্যে পাসপোর্ট বাতি বা লক করা, আগামী ছয় মাসের মধ্যে বিদেশ যাওয়ার নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা যেতে পারে।

যারা সরকারের নির্দেশনা পালন করবেন, তাদের জন্য প্রণোদনা দেয়ার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। এ ছাড়া যারা এই কঠিন সময়ে ঝুঁকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন; তাদেরও প্রণোদনা দেয়া উচিত।

 

 

 

প্রবাসীদের ভয় নেই, পাশে থাকবে সরকার

এ দেশে অনেক গুজব রটানো হয়। প্রবাসীদের ভয় থাকতে পারে হোম কোয়ারেন্টিন বা নিবন্ধনের বিষয়ে। যারা সরকারকে সহযোগিতা করবে বা নির্দেশনা শুনতে তাদের এ দুর্যোগের শেষে জেলা প্রশাসন কর্তৃক দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে প্রশংসাসূচক চিঠি দেয়া যেতে পারে।

এসব প্রবাসীকে মোবাইলে আগামী এক মাসের জন্য ইন্টারনেট ফ্রি করে দেয়া যেতে পারে। প্রবাসীদের ভয় নেই; সরকার তাদের সহযোগিতার জন্য এ ব্যবস্থা করছেন, এ বিষয়ে প্রচার করতে হবে।

আমরাও পারব, নিজের শক্তিকে চিনি

করোনার শুরুতে স্যানিটাইজার, পার্সোনাল প্রোটেকশন ইকুইপমেন্ট (পিপিই), মাস্ক, করোনা টেস্টিং কিটের অভাব ছিল, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী নানা পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা স্যানিটাজার, মাস্ক বানিয়ে বিতরণ করছে। চিকিৎসকদের জন্য একদল ব্যক্তি কয়েক লাখ পিপিই বানাচ্ছে, ইতিমধ্যে একটি সংগঠন বানিয়ে বিতরণ শুরু করেছে।

একটি প্রতিষ্ঠান স্বল্পমূল্যে করোনা ট্রেস্টিং কিট তৈরি করেছে। কিছু ব্যক্তি পাবলিক প্লেস ও পরিবহনে জীবনমুক্ত করছে। অনেক বাড়িওয়ালা আগামী মাসের বাসা ভাড়া মওকুফ করেছে।

অনেকেই দরিদ্রদের জন্য বিনামূল্যে খাবার বিতরণ করছে। এ মানুষের চেষ্টা বৃথা যেতে পারে না। পরম করুণাময়ের দয়ায় আমরা এই সমস্যার মোকাবেলা করতে পারব। শুধু এক থাকতে হবে, নিজের শক্তিকে চিনতে হবে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার