Logo

April 8, 2020, 12:40 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» দিরাইয়ে ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করলেন এড.শামসুল ইসলাম «» আপনার সচেতনতাই হতে পারে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত দেশ…ইকবাল আল আজাদ «» জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসীর উদ্যোগে ৫০০ দরিদ্র পরিবারের মধ্যে চাল বিতরণ «» দেশে করোনায় আরও ৩ জনের মৃত্যু: আক্রান্ত হয়েছেন ৫৪ «» শেরপুর হামরকোনা গ্রামে প্রবাসীর নিজ অর্থায়নে ৩৩০ পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ «» জগন্নাথপুরের পাইলগাঁও ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের জিআর চাল বিতরণের উদ্বোধন «» ছাতকে যুক্তরাজ্য ব্রাডফোর্ড যুবলীগ নেতার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ «» জগন্নাথপুরের বাগময়না গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী অর্ধেক বাসা ভাড়া মওকুফ করলেন «» তাবলিগ থেকে ফিরে মুসল্লির মৃত্যু, কাছে যাচ্ছে না কেউ «» জগন্নাথপুরের পাইলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদে জিআর চাল বিতরণের উদ্বোধন

৩৩ লাখ টাকা আত্মসাৎ করায় ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

অবশেষে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় জন্ম নিবন্ধন ও ট্রেড লাইসেন্স বাবদ ৩৩ লাখ ৭২ হাজার টাকা আত্মসাতের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন আহমেদকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

 

 

 

সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে তাকে বরখাস্ত করা হয়। মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বরখাস্তের বিষয়টি প্রকাশ পায়। একই সঙ্গে চূড়ান্তভাবে তাকে কেন বরখাস্ত করা হবে না সে বিষয়ে জানতে চেয়ে চেয়ারম্যান বরাবর চিঠি দিয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

এছাড়াও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অপর এক স্মারকে আত্মসাতকৃত টাকা আদায়ের জন্য চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন আহমেদ ও সাবেক সচিব মোহাম্মদ ইউসুফের বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

 

 

 

এর আগে জন্ম নিবন্ধন ও ট্রেড লাইসেন্স বাবদ ৩৩ লাখ ৭২ হাজার টাকা আত্মসাতের ঘটনায় বন্দর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সচিব মোহাম্মদ ইউসুফকে বরখাস্ত করা হয়।

 

 

 

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৫-১৬ ও ২০১৬-১৭ এই দুই অর্থ বছরের জন্ম নিবন্ধন ও ২০১৭ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত ছয় মাসের ট্রেড লাইসেন্স খাতে আদায়কৃত অর্থ আত্মসাৎ করেছেন বন্দর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন আহম্মেদ ও তার সচিব মোহাম্মদ ইউসুফ। এই দুই খাতে মোট ৩৩ লাখ ৭২ হাজার টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ২০১৮ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর এ ঘটনায় অডিট আপত্তি তোলা হয়। পরে তদন্তে নামে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

 

 

তদন্তে জানা যায়, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে জন্ম নিবন্ধন ফি বাবদ ৭ লাখ ৭৩ হাজার ৩৮০ টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে একই খাতে ১৪ লাখ ৩৩ হাজার ৭২০ টাকা এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৯০০ টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে।

 

 

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে উক্ত টাকা আদায়সহ ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিবের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসককে। একই সঙ্গে আত্মসাতকৃত টাকা ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। তবে এ ঘটনায় ইউপি সচিবকে বরখাস্ত করা হলেও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এমনকি আত্মসাতকৃত টাকাও আদায় করা হয়নি। এ বিষয়ে স্থানীয় ও জাতীয় গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

 

 

 

 

এ বিষয়ে বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শুক্লা সরকার বলেন, এ বিষয়ে এখনও আমি চিঠি পাইনি। জেলা প্রশাসক হয়ে চিঠি আসবে। আমরা ওয়েবসাইটে বরখাস্তের আদেশ দেখেছি।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার