Logo

August 13, 2020, 5:34 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ৩ «» ব্যক্তি-গোষ্ঠীর স্বার্থে যেন শোক দিবসের পরিবেশ বিনষ্ট না হয় «» স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তোড়জোড় ত্যাগীদের মূল্যায়ন করবে আওয়ামী লীগ «» কানাইঘাটে ক্যান্সার ও কিডনি সহ জটিল রোগে আক্রান্তের মধ্যে চেক বিতরণ «» জগন্নাথপুর উপজেলা জমিয়তের কাউন্সিল আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর: আহবায়ক কমিটি গঠন «» কানাইঘাট থানা ও ভূমি অফিস পরিদর্শনে সিলেটের জেলা প্রশাসক «» জগন্নাথপুরে স্টুডেন্ড’স ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টের উদ্যোগে এসএসসি, দাখিল ও প্রবাসীদের সংবর্ধনা প্রদান «» ছাতকে অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় সিএনজি খাদে, কিশোরীর মৃত্যু «» সর্বস্থরের জনগনের ভালবাসায় আবারো সিক্ত হলেন জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান মিন্টু রঞ্জন ধর ও উনার সহ-ধর্মিনী হেপী রানী ধর «» প্রকল্পে ‘অস্বাভাবিক খরচ’ না মানার বিষয়ে একমত মন্ত্রীসহ ৩০ সচিব

জামালগঞ্জে পিআইসি নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি::

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের হাওর ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মানে অনিয়ম করে পিআইসি নিয়োগ করা হয়েছে, জেলা প্রশাসকের কাছে এই মর্মে লিখিত অভিযোগ করেছেন জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালী ইউনিয়নের লোকজন। গত ১২ জানুয়ারি ইউনিয়নের ৪টি গ্রামের ৫৪জন স্থানীয় কৃষক এই অভিযোগ করেন।

 

 

 

অভিযোগের প্রেক্ষিতে জানা যায়, জামালগঞ্জ উপজেলার ৩৯নং প্রকল্পে ভীমখালী ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড এলাকাতে পিআইসির অবস্থান। তবে সেখানে ৯নং ওয়ার্ডের কোন কৃষককে প্রকল্প সভাপতি না রেখে ৮নং ওয়ার্ড থেকে পুলিশ এসল্ট মামলার দুই আসামিকে যথাক্রমে সভাপতি ও সদস্য সচিব করা হয়েছে।

 

 

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচন কেন্দ্রিক নাশকতা ও পুলিশের উপর হামলার কারণে ৩৯নং পিআইসিতে নিয়োগকৃত সভাপতি ও  ৮নং ইউপি সদস্য  আবু লেইছ এবং সদস্য সচিব সামছু মিয়া দুজনকেই পুলিশ এসল্ট মাললার আসামি। পুলিশ এসল্ট মামলার আসামিদের হাওর ফসল রক্ষা বাঁধের কাজে সভাপতি-সদস্য সচিব করায় এতে প্রকল্পের সিংহভাগ বরাদ্দ লোপাট হবার আশংকা করছেন স্থানীয়রা।

 

 

 

 

 

 

ক্ষুব্ধ কৃষক জনতা বলছেন, প্রকল্পের বরাদ্দ লোটপাট করার জন্যই এতে অন্য ওয়ার্ডের দূরবর্তী এলাকার লোকদের টেনে এনে প্রকল্পে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। এতে ৮নং ওয়ার্ডের কৃষক জনতার মাঝে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। এব্যপারে  কৃষক জনগণ  পুলিশ এসল্ট মামলার আসামিদের বাদ দিয়ে প্রকল্প স্থানের লোকদের দিয়ে পুনরায় কমিটি গঠনের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে দাবী জানান।

 

 

 

 

এছাড়াও বেহেলী ইউনিয়নের বদরপুর গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে মো. খোকন মিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে ১৫ কি.মি দূরবর্তী উমেদপুর গ্রামের শাহীনুর মিয়াকে ৬৫নং পিআইসির সভাপতি করায় হাওরের কাজে ঝুঁকি থাকবে বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি অভিযোগ দাখিল করেন। করা হয়।

 

 

 

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক (ভারপ্রাপ্ত) মো. শরিফুল হক বলেন, এসব অভিযোগ নিষ্পত্তি করার জন্য ডিডিএলজি স্যারকে আহ্বায়ক করে আমাদের একটা কমিটি আছে। অভিযোগগুলো আমরা এই কমিটিতে প্রেরণ করার পর কমিটি তা নিষ্পত্তি করেন।

 

 

 

 

তিনি এবিষয়ে ডিডিএলজি”র সাথে কথা বলতে জানান। এবিষয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক (ডিডিএলজি) মো. এমরান হোসেন বলেন, বিষয়টি এখনও আমার নজরে আসেনি। অভিযোগটি দেখে এব্যাপারে  প্রয়োজনীয়  ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার