Logo

February 27, 2020, 2:03 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» পাপিয়ার অবৈধ সম্পদের খোঁজ নিচ্ছে দুদক «» দেশে প্রথমবারের মতো পুড়ে যাওয়া ইঞ্জিন সচল, বাঁচল ৩০ কোটি টাকা «» কানাইঘাটে রাস্তা কেটে দেওয়ায় বিপাকে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা «» আমরা সত্যিকার অর্থেই জনগণের পুলিশ হতে চাই: আইজিপি «» জগন্নাথপুরে আরাফাত রহমান কোকো গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় রাউন্ড সম্পন্ন «» জগন্নাথপুরে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ «» মৌলভীবাজারে পৃথক অভিযানে ৪ মাদক ব্যবসায়ী আটক «» বিশ্ব মানবতার কল্যাণে মুসলিম জাতির তাকওয়া অর্জনই ইহ-পরকালীন শান্তি ও মুক্তির একমাত্র পথ ——–আল্লামা হাসান জামিল, ঢাকা «» কবর জিয়ারতে বাধা ও হামলার প্রতিবাদে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত «» নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা

সিরিয়ায় তুরস্কের সামরিক অভিযান শুরু (ভিডিও)

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

সিরিয়ার উত্তর-পূর্ব সীমান্ত এলাকায় কুর্দি যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে পূর্ণমাত্রার সামরিক অভিযান শুরু করেছে তুরস্ক।

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে কুর্দি ও আইএসের বিরুদ্ধে অপারেশন পিস স্প্রিং শুরু হয়েছে বলে দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান জানিয়েছেন।

 

এক টুইটবার্তায় এরদোগান বলেন, সিরিয়ার জাতীয় সেনাবাহিনীর সঙ্গে আমাদের তুর্কি সশস্ত্র বাহিনী সিরিয়ার উত্তরে কুর্দি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে। আমরা আমাদের দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের হুমকি দূর করব।

 

তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, শরণার্থীদের জন্য আমরা নিরাপদ জোন তৈরি করব। সিরিয়ার শরণার্থীদের তাদের দেশে ফিরিয়ে দিতে চাই। আমরা সিরিয়ার অখণ্ডতা রক্ষা করব এবং এই অঞ্চলের সব মানুষকে সন্ত্রাসবাদের হুমকি থেকে রক্ষা করব।

এর আগে বুধবার ভোরের দিকে সেনাবাহিনীর অগ্রবর্তী দলগুলো তাল আবায়েদ ও রাস আল-আইন শহরের দুটি পয়েন্ট দিয়ে সিরিয়ায় ঢুকে বলে তুরস্কের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

 

তুর্কি সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে কুর্দি সন্ত্রাসীদের আস্তানা গুঁড়িয়ে দিতে সোমবার সামরিক অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয় এরদোগান সরকার। সামরিক অভিযানের প্রস্তুতি হিসেবে সিরিয়া সীমান্তে তুরস্কের সাঁজোয়া যান মোতায়েনের ছবি ও ভিডিও প্রকাশিত হয়েছিল।

 

প্রেসিডেন্ট এরদোগানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন বলেন, সন্ত্রাসী আস্তানা গুঁড়িয়ে দিতেই তুর্কি সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে সামরিক অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আঙ্কারা।

 

সীমান্তে একটি ‘নিরাপদ অঞ্চল’ প্রতিষ্ঠা করে সিরীয় শরণার্থীদের দেশে ফেরার পথ করে দিতে এ অভিযান হবে বলেও জানিয়েছিল তারা।

 

তুরস্কের অভিযান চালানোর ঘোষণার পর ওই অঞ্চল থেকে নিজেদের সেনা সরিয়ে নিতে শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র। এই সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেছেন ট্রাম্পের রিপাবলিকান মিত্ররাও।

মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের ফলে তুরস্কের জন্য কুর্দি যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে পূর্ণমাত্রার সামরিক অভিযান চালানোর সুযোগ তৈরি হয়।

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল