Logo

February 21, 2020, 8:49 am

সংবাদ শিরোনাম :

মেয়েকে কোলে নিয়েই ট্রেনের নিচে ঝাঁপ মায়ের

স্বদেশ ডেস্ক::

নীলফামারী সদর উপজেলায় পারিবারিক কলহে তিন বছরের মেয়ে বৃষ্টি আক্তারকে সঙ্গে নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন মা টুনটুনি আক্তার (২৫)।

সোমবার সকালে নীলফামারী জেলা সদরের সোনারায় ইউনিয়নের দারোয়ানী রেল স্টেশনের কাছে মেয়েকে কোলে নিয়ে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেন টুনটুনি।

টুনটুনি জেলা সদরের সোনারায় ইউনিয়নের ধনীপাড়া গ্রামের বাদাম বিক্রেতা তারেক হোসেনের স্ত্রী।

 

এলাকাবাসী জানান, সোমবার সকাল ৬টা ১০ মিনিটের দিকে খুলনা থেকে চিলাহাটিগামী সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিলে মা-মেয়ে ঘটনাস্থলে নিহত হন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, জেলার সৈয়দপুর উপজেলার কয়া গলাহাট পশ্চিমপাড়া গ্রামের বুধারু মামুদের মেয়ে টুনটুনির সঙ্গে ছয় বছর আগে বিয়ে হয় জেলা সদরের সোনারায় ইউনিয়নের ধনীপাড়া গ্রামের হামিদুল ইসলামের ছেলে তারেক হোসেনের। তাদের একমাত্র সন্তান তিন বছরের বৃষ্টি আক্তার। তারেক বাদাম ও বুট ফেরি করে বিক্রি করেন।

 

টুনটুনি বেগমের বড় ভাই দুলাল হোসেন (৩০) অভিযোগ করে বলেন, ‘তারেক প্রায় সময় মাদকাসক্ত হয়ে আমার বোনের ওপর নির্যাতন চালায়। গত রোববার রাতে তারেক আমার বোনকে না জানিয়ে তার এক জোড়া কানের দুল বিক্রি করলে তাদের মধ্যে ঝগড়া বাঁধে। এ সময় তারেক আমার বোনকে বেদম প্রহার করে। ওই রাগ ও দুঃখে সোমবার ভাগ্নিকে কোলে নিয়ে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বোন।

 

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য তারেককে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে তার বাবা হামিদুল ইসলাম (৬৫) বলেন, ‘রাতে ছেলে এবং বৌমার মধ্যে কথা কাটাকাটি শুনতে পেয়েছি। সকালে বৌমা তার বাবার বাড়ি যাওয়ার কথা বলে নাতনিকে নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর ট্রেনে কাটা পড়ে তাদের মৃত্যুর খবর পাই।’

তবে তারেক মাদকাসক্ত নয় বলে দাবি করেন তিনি।

 

সোনারায় ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে মেয়েকে নিয়ে টুনটুনি বেগম আত্মহত্যা করেছে। একই কারণে এর আগে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একবার ছাড়াছাড়িও (তালাক) হয়েছিল। পরে সেটি মিটে গেলে দু’জনে সংসার করছিল।’

তারেক মাদকাসক্ত হতে পারে বলে ধারণা করেন তিনি।

 

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার এসআই ফিরোজুল ইসলাম বলেন, একটি ইউডি মামলা দায়েরের পর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলার মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল