Logo

September 18, 2019, 5:45 am

সংবাদ শিরোনাম :

দোয়ারায় ৩৬বছরেও পাকা হয়নি মৌলারপাড়  গ্রামের কাঁচা রাস্তা

এম মোতালিব ভুঁইয়া::

দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত মৌলারপাড়  গ্রাম। গ্রামে প্রায় ৪ হাজার মানুষের বসবাস গ্রীষ্মকাল ও বর্ষাকালে সামান্য বৃষ্টি হলেই এক হাঁটু কাদা জমে। তখন যানবাহন তো দূরের কথা, হেঁটে চলাচলও বিপজ্জনক হয়ে পড়ে।

 

মৌলারপাড় গ্রামের একমাত্র সড়কে কাদা জল মারিয়ে চলে  মৌলারপাড়   গ্রামবাসী। একটু বৃষ্টি হলেই সমস্যায় পড়ে শিক্ষার্থী ও বয়স্করা। দীর্ঘদিন ধরে সড়কটি পাকা করার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

 

মৌলারপাড়  গ্রামের প্রায় ৪হাজার লোকের চলাচল দীর্ঘ ৩৬ বছর ধরে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রতি বর্ষা মৌসুমে একটু বৃষ্টি হলে স্কুল,মাদ্রাসা ও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের প্রায় কাঁদা ডিঙিয়ে বিদ্যালয়, মাদ্রাসা কিংবা কলেজে যেতে হয়। রাস্তাটি পাকাকরণের দাবি এখন গণদাবিতে পরিণত হয়েছে।

 

আশপাশের সব রাস্তা পাকা হলেও এ রাস্তাটি পাকা করার কোনো উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না। নির্বাচন এলে রাজনৈতিক নেতারা রাস্তাটি পাকা করার প্রতিশ্রুতি দিলেও পরে আর পাকা করার উদ্যোগ নেয়া হয় না বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকবাসী।

 

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার মৌলারপাড়, চৌধুরীপাড়া, নতুন বাশতলা গ্রামের প্রায় চার থেকে পাঁচ হাজার লোক চলাচল করে। সড়কটি কাঁচা থাকার কারণে চলাচলে তাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ইতিমধ্যে কাদা জলে পড়ে গিয়ে শিক্ষার্থীসহ আহত হয়েছেন অনেকে।জনগণের ব্যাপক চলাচলের কারনে প্রতি বর্ষা মৌসুমে রাস্তাটিতে প্রায় হাটু পর্যন্ত কাঁদা হয়ে থাকে। এ ছাড়া ওই গ্রামের প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থীকে প্রতিদিন ওই কাচাঁ সড়ক দিয়ে কলেজ, বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় আসা-যাওয়ায় সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়।ওই রাস্থা দিয়েই চৌধুরীপাড়া বাজার,হকনগর বাজার,বাংলাবাজার যেতে হয়,এতে করে সাধারন মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়।

 

এলাকাবাসীরা আরো জানান, রাস্তাটি পাকাকরণ খুবই প্রয়োজন। তা না হলে ওই গ্রামের মানুষগুলো প্রতিনিয়ত চরম দুর্ভোগ কিংবা যানবাহন চলাচল করতে অনুপযোগী হয়ে পড়ে। তাই দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তা পাকাকরনের দাবি জানান তারা।

 

সরেজমিনে দেখা যায়,  শিক্ষার্থীরা এ সড়ক দিয়ে স্কুলে যাচ্ছে। অনেক স্থানে বৃষ্টির পানি জমে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

মৌলারপাড়  গ্রামের আব্দুস সামাদ কুডু মিয়া নামের এক ব্যক্তি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এমপি থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কেউ বাকি নেই যে আমরা তাদের কাছে যাইনি। এলাকার সর্দার মুরুব্বিসহ অসংখ্য মানুষ জনপ্রতিনিধিদের কাছে বার বার ধরণা দিয়ে শুধু প্রতিশ্রুতিই পেয়েছি। বাংলাবাজার ইউনিয়নে এরকম রাস্তা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

ক্ষুব্ধ হয়ে আব্দুস সামাদ কুডু মিয়া এ প্রতিবেদককে বলেন, আমাদের প্রাণের দাবি এই রাস্তাটি করে না দিলে বাংলাবাজার ইউনিয়ন থেকে আমাদেরকে বের করে দেওয়া হোক।

 

স্থানীয় সমাজ সেবক ইন্তাজ মিয়া আর্মি জানান, খুবই দুঃখের সঙ্গে বলতে হয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে কয়েকবার অবগত করা হলেও কোনো সাড়া পাইনি। করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন। গত ইউপি নির্বাচনে   চেয়ারম্যান সাহেব আমাদের এ রাস্তাটি করে দেয়ার প্রতিশ্রতি  দিলেও এখনও পর্যন্ত রাস্তাটি হচ্ছে না।

 

বাশতলা চৌধুরীপাড়া শহীদস্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মনির হোসেন জানান, খুব খারাপ লাগে যখন দেখি ছোট ছোট কোমলমতি বাচ্চারা কাদামাটি মেখে স্কুলে আসছে। অনেক গ্রীষ্ম-বর্ষা মৌসুমে অনেক শিক্ষার্থী স্কুলেই আসতে পারেনা। রাস্তাটি দ্রুত পাকাকরণের দাবি জানান তিনি।

 

স্থানীয় সমাজ সেবক আক্কাস আলী মড়ল  বলেন,এ সড়ক দিয়ে  গ্রামের ৪ থেকে ৫হাজার লোকজন চলাচল করে। সড়কটি মেরামত করলে এলাকার দুর্ভোগ কমবে। মৌলারপাড় গ্রামের লোকজনের চলাচলের সুবিধার্থে এ সড়কটি পাকা করা দরকার।দ্রুত সড়কটি পাকা করার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানান তিনি।

 

সাবেক ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম ভুঁইয়া জানান,এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণের জন্য সড়কটি পাকাকরণ করতে হবে। সড়কটি পাকা হলে মানুষেরা কৃষিপণ্য সহজে বাজারে বিক্রি করতে পারবে।

 

বাংলাবাজার  ইউপি চেয়ারম্যান জসিম মাষ্টার  বলেন, বর্তমান সরকারের সময়ে বাংলাবাজার  ইউনিয়ন ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে।রাস্তা পাকা করার কাজের এখতিয়ার আমার নেই।কিছুদিন আগে মৌলারপাড় গ্রামের রাস্তায় আমি মাটির কাজ করেছি।এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি পাকাকরণের দাবি জানিয়ে আসলেও আজও তা বাস্তবায়ন হয়নি। তবে ছাতক-দোয়ারার মাননীয় সংসদ সদস্য আমার অভিভাবক মুহিবুর রহমান মানিক মহোদয়ের সাথে আলোচনাক্রমে দ্রুততম সময়ের মধ্যে ওই রাস্তাটিও পাকাকরণ করার ব্যবস্থা করা হবে।

 

 

 

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল