Logo

September 18, 2019, 5:44 am

সংবাদ শিরোনাম :

মোটরসাইকেল কেনার টাকা না দেয়ায় স্ত্রীকে সিগারেটের ছ্যাঁকা

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

ভোলায় মোটরসাইকেল কেনার টাকা না দেয়ায় তাসলিমা বেগম (৩০) নামে এক গৃহবধূকে সিগারেটের আগুন দিয়ে হাত ও পায়ে ছ্যাঁকা দিয়েছেন তার স্বামী।

ভুক্তভোগীর স্বামীর নাম মো. কামাল হোসেন (৩৫)। তিনি ভোলা সদর উপজেলার ইলিশা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কলিমদ্দিন বাড়ির আবু তাহেদের ছেলে। এ ঘটনায় স্ত্রী তাসলিমা বেগম বাদী হয়ে ভোলা মডেল থানায় একটি মামলা করেছেন।

গৃহবধূ তাসলিমা জানান, প্রায় ১৬ বছর আগে কামালের সঙ্গে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন। তাই কামালের বাবা-মা তাদের বিয়ে আজ পর্যন্ত মেনে নেননি। এ জন্য তিনি তার বাবার বাড়ি ভোলার ইলিশা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বসবাস করতেন। কামালও সেখানে নিয়মিত যাতায়াত করতেন। বিয়ের কয়েক বছর পর তাদের একমাত্র সন্তান রাব্বি (১৩) জন্ম গ্রহণ করে। এরপর থেকে কামাল তাকে বিদেশে পাঠানোর জন্য বিভিন্ন সময় চাপ দিয়ে আসছিলেন। রাজি না হলে তাসলিমাকে বিভিন্ন সময় মারধর করতেন কামাল।

তিনি আরও জানান, পরে বাধ্য হয়ে তিন বছর আগে জর্ডানে যান তাসলিমা। সেখানে দুই বছর দুই মাস থাকার পর দেশে ফিরে আসেন। এতে কামাল ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। বিভিন্ন সময় মারধর করতে থাকেন। সেই সঙ্গে তাসলিমার টাকা নিয়ে যেতেন। আবার বিদেশ যাওয়ার জন্য নির্যাতন চালাতে থাকেন তাসলিমার ওপর। পরে গত ৪-৫ মাস আগে কামাল তার কাছ থেকে যৌতুক হিসেবে ৩ লাখ টাকা দাবি করেন। গত ৩ মাস আগে তাসলিমাকে জোর করে নিজের বাড়ি নিয়ে যান কামাল। সেখানে নিয়ে প্রতিদিন যৌতুকের জন্য নির্যাতন চালাতে থাকেন।

এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে রোবার দুপুরে তাসলিমার কাছ থেকে গাড়ি কেনার জন্য টাকা দাবি করেন কামাল। তাসলিমা টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় তার শাশুড়ি ও স্বামী হাত, পা ও মুখ বেঁধে ফেলে। তখন কামাল একটি সিগারেট জ্বালিয়ে বলেন, এখন টাকা দিবি নাকি অন্য কিছু করবো। এ কথা বলে তাসলিমার হাত পা ও শরীরের বিভিন্ন অংশে সিগারেটের ছ্যাঁকাে দিতে থাকেন। এক সময় জ্ঞান হারিয়ে ফেললে মৃত ভেবে ঘর থেকে পালিয়ে যান কামাল ও তার মা। পরে স্থানীয়রা তাসলিমাকে উদ্ধার করে রাতে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

তাসলিমার স্বামী কামালের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি।

ভোলা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ছগীর মিঞা জানান, এ বিষয়ে গৃহবধূ বাদী হয়ে মামলা করেছেন। আমরা আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছি।

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার