Logo

January 18, 2020, 12:21 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» ম্যানসেস্টার চ্যানেল এস টিভির ব্যুরো চীফসহ প্রবাসীর সাথে বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের মতবিনিময় «» পুলিশ বাহিনীকে আধুনিক করার চেষ্টা চলছে: আইজিপি «» দুরন্ত ক্লাবের অর্থায়নে ইসলামপুর মসজিদের পূর্ন সংস্কার জন্য রাজ মিস্ত্রি কাছে চাবি হসান্তর «» কমলগঞ্জে আন্তঃক্রীড়া মনিপুরী ১৪তম ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্ধোধন «» ইভিএমে জাল ভোট দেয়া সম্ভব: নির্বাচন কমিশনার রফিকুল «» রানীগঞ্জ ইউনিয়ন চ্যাম্পিয়নশীপের ৪র্থ ম্যাচে ইসলামপুর ভাই ভাই ফুটবল ক্লাব বিজয়ী «» গাড়িতে বসা শিশুর প্রতি রিকশাওয়ালার বিরল ভালোবাসা «» শাহবাগের পুলিশ কন্ট্রোল রুম থেকে লাফিয়ে পড়ে কনস্টেবলের আত্মহত্যা «» স্বামীর সঙ্গে বন্ধুর বাড়িতে গিয়ে নববধূ নিখোঁজ! «» পাকনার হাওরের কানাইখালী নদীর সমস্যা সমাধান করা হবে: পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান

ঈদে মেহেদি দিয়ে সাজতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

ভোলায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীর (১২) আর ঈদ করা হলো না। ঈদের আগের রাতে মেহেদি দিয়ে হাত রাঙাতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয়ে রক্তে রঞ্জিত হলো তার শরীর। জীবন-মৃত্যুর মাঝে ছটফট করছে অসহায় ওই কিশোরী।

ধর্ষিতাকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলেও অভিযুক্তদের এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি।

ধর্ষিতার পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, ভোলা সদর উপজেলার উপজেলার চর সামাইয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের চর সিফলী গ্রামের কৃষক মো. হানিফ (৪০) ঈদ উপলক্ষে তার আদরের দুই মেয়ের জন্য বাজার থেকে মেহেদি কিনে আনেন। রোববার (১১ আগস্ট) সন্ধ্যার দিকে তাদের বাবা গরু বিক্রি করার টাকা আনতে ভোলা শহরে যান।

বাবা শহরে চলে যাওয়ার পর দুই বোন রাত ৮টার দিকে পাশ্ববর্তী দুঃসর্ম্পকের আত্মীয় মাহফুজের স্ত্রীর কাছে হাতে মেহেদি দিয়ে সাজতে যায়। ওই সময় আগে থেকে অপেক্ষমাণ মাহফুজের ঘরের ভাড়াটিয়া ভোলা আদালতের মুহুরী আল আমিন (২৫) ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া স্কুলছাত্রীকে ডেকে তার ঘরে নিয়ে যায়।

এ সময় আলমিনের স্ত্রী ঘরে ছিল না। এই সুযোগে হঠাৎ করে ওই ছাত্রীকে আলামিন ও তার সহযোগী বখাটে যুবক মঞ্জুর আলম (৩০) জাপটে ধরে হাত-পা ও মুখে কাপড় বেঁধে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।

পরে ছাত্রীর চিৎকারে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ধর্ষিতার পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে মুমূর্ষু অবস্থায় ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

ভোলা সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. মমিনুল ইসলাম ধর্ষণের আলামত পেয়েছেন বলে স্বীকার করে জানান, ধর্ষিতার বয়স কম হওয়ায় তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ধর্ষিতার গোপন অঙ্গ থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছে। ডাক্তার না থাকায় সেলাই দেয়ার মতো অবস্থাও ভোলায় নেই। ধর্ষিতাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সোমবার (আজ) বরিশালে প্রেরণ করা হবে।’

ভোলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেছে। ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত আল আমিন ও মঞ্জুর আলমকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

 

 

আজকের স্বদেশ/তালুকদার