Logo

January 24, 2020, 11:26 pm

সংবাদ শিরোনাম :
«» এবার নাস্তার খরচ বাবদ ১ কেজি মুড়ির বিল ১৪ হাজার ৮৮০ টাকা! «» চুল কাটানোর সিরিয়াল নিয়ে বাতবিতণ্ডা, ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা ! «» বাংলাদেশ রবি দাস সংস্থা(RDS)কেন্দ্রীয় কমিটির ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন «» প্রেম খারাপ না, একলগে পাঁচজনের লগে প্রেম কইরো না: শিক্ষার্থীদের রাষ্ট্রপতি «» আল্লামা শফীর দোয়া নিলেন চট্টগ্রামের ডিআইজি «» স্ত্রী’র ভালবাসায় সিক্ত হলেন জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান মিন্টু রঞ্জন ধর «» অপ্রয়োজনীয় পিআইসি বাতিল করতে হবে– পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ এমপি «» বাহুবলে ইউ.পি সদস্যের উপর অতর্কিত হামলা, এলাকায় উত্তেজনা «» হার দিয়ে পাকিস্তান সফর শুরু বাংলাদেশের «» বাহুবলে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রক হারিয়ে খাদে: নারীসহ নিহত ৩

২০ লাখের কালা মানিকের দাম ৩ লাখ হাঁকছেন ক্রেতারা!

স্বদেশ ডেস্ক::

এবারের যে কয়টি গরু এসেছিল খবরের শিরোনামে তার মধ্যে একটি হলো কালা মানিক।

দেশের দ্বিতীয় বৃহৎ পশুর হাট চট্টগ্রামের সাগরিকা বাজারের সবচেয়ে বড় গরু এটি। এর দাম হাঁকা হয়েছিল ২০ লাখ টাকা।

 

তবে এখন পর্যন্ত কারও কপালে জুটেনি এই কালা মানিক। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হাটে ঠায় দাঁড়িয়ে রয়েছে পশুটি। কোনো গতি হয়নি তার।

কালা মানিককে বিক্রি করতে না পেরে যতটা না হতাশ এর মালিক সাজিদ এ্যাগ্রো ফার্মের স্বত্বাধিকারী সালাহউদ্দিন, তার চেয়েও বেশি হতাশ এখন ক্রেতাদের মুখে এর দাম শুনে।

জানা গেছে, ২০ লাখ টাকা মূল্য হাঁকা কালা মানিকের দাম মাত্র ৩ লাখ বলছেন কেউ কেউ।

স্থানীয় গণমাধ্যমকে সালাহউদ্দিন বলেন, ‘নিজের ফার্মে মোটাতাজা করা ২৫টি গরু নিয়ে হাটে এসেছিলাম। তার মধ্যে সবচেয়ে বড় গরু হলো এই কালা মানিক। শুরুতে এর দাম চেয়েছিলাম ২০ লাখ টাকা। তবে কাছাকাছি দাম পেলে ছেড়ে দেব ভাবছিলাম। গত দুই দিন একে ৮-১০ লাখ টাকায় অনেকে কিনতে চাইলেও, এখন ৩ লাখ টাকা বলছেন কেউ কেউ।’

 

২৫ টি গরুর মধ্যে এখন পর্যন্ত ১০টি বিক্রি হয়েছে বলে জানান তিনি। বাকিগুলো ভালো দামে বিক্রি না হলে খামারের বড় লোকসান হবে বলে জানালেন সালাহউদ্দিন।

এদিকে শুধু সালাহউদ্দিনই নয় কাঙ্ক্ষিত দাম না পেয়ে হতাশ হয়েছেন সাগরিকা বাজারের আরও অনেক গরু ব্যবসায়ীরা।

 

শনিবার পর্যন্ত ভালো দামে পশু বিক্রি হলেও আজ রোববার সকাল থেকে ক্রেতারা সঠিক দাম বলছেন না বলে জানান কয়েকজন ব্যাপারী।

 

কুষ্টিয়া থেকে ১৭৫টি গরু নিয়ে এ হাটে আসা ব্যাপারি আবদুর লতিফ বলেন, শুরুর দিকে বিক্রি করা গরুতে লাভ হয়েছে। কিন্তু আজ সকাল থেকে যতগুলো বিক্রি করেছি সবই লোকসানে। এতোগুলো গরু তো আর ফিরিয়ে নিয়ে যেতে পারব না। সেটা করতে গেলেও লোকসান।

বাজারের শেষ মুহূর্তে এখনও তার ২৫টি গরু রয়ে গেছে বলে জানান তিনি।

আজকের স্বদেশ/জুয়েল