July 17, 2019, 3:11 am

স্কুলে সাপের উপদ্রব, আতঙ্কে ছুটি ঘোষণা

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

নাটোরের সিংড়ার উপজেলার ৮নম্বর শেরকোল ইউনিয়নের সোনাপুর-পমগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাপের উপদ্রবের কারণে প্রাক-প্রাথমিকের শিশুদের ক্লাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

শিক্ষক-শিক্ষর্থীরা জানান, গত তিন দিনে ক্লাস চলাকালীন সময়ে অন্তত ১০টি সাপ মেরেছেন তারা। সাপের উপদ্রবে আতঙ্কে রয়েছেন সবাই। বিদ্যালয়ের পুরাতন একটি ভবনেই সাপের উপদ্রব বেশি। এ কক্ষে ক্লাস করত প্রাক-প্রাথমিকের শিশুরা। পরে সিংড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নির্দেশে আগামী রবিবার পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয় প্রাক-প্রাথমিকের ক্লাস। এ সময়ের মধ্যে সংস্কার করা হবে শ্রেণিকক্ষটি।

জানা যায়, গত বছর প্রায় একই সময়ে স্কুলটিতে সাপের উপদ্রব দেখা দিয়েছিল। সে সময় শ্রেণিকক্ষের ভেতরে, বাইরে, বারান্দায়, টেবিল-বেঞ্চের নীচে এমনকি শিক্ষকদের কক্ষ ও শিক্ষার্থীদের বই পুস্তকের ভেতর থেকে আচমকাই বের হত ছোট-বড় বিষধর সাপ। ওই সময় শিক্ষার্থীরা নিজেরাই নিজেদের নিরাপত্তায় হাতে লাঠি তুলে নেয়। মারতে সক্ষম হয় ২০টির অধিক সাপ। কর্তৃপক্ষকে ক্লাস নিতে হয় স্কুল ভবনের বারান্দায়। এবারও একমাত্র প্রাক প্রাথমিক ক্লাস রুম থেকেই ১০টি সাপ মারা হয়। ফলে বারান্দায় ক্লাস নিতে হচ্ছে শিক্ষকদের। তবে কোমলমতি শিশুদের মনে সাপ আতঙ্ক ভর করায় অনেকেই বাড়ি চলে যায়।

মঙ্গলবার সরেজমিন গিয়ে শিক্ষার্থীদের কয়েকজনকে লাঠি নিয়ে সাপের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। স্কুল চত্বরের জঙ্গলে অথবা বাতাসে বই পুস্তক নড়ে ওঠলেই ওই শিক্ষার্থীরা লাঠি নিয়ে ছুটে যায় সেদিকে। লাঠি নিয়ে পাহারারত পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র শাহেদ আলী ও সিফাত রহমান জানায়, তারা প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি কক্ষ থেকে দশটি সাপ মেরেছে। গত বছরও তারা অনেক সাপ মেরেছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের অনেকেই জানায়, তারা এখন ভয়ে ভয়ে ক্লাস করে। বেঞ্চিতে পা উঠিয়ে বসে ক্লাস করছে।

এদিকে স্কুল ভবনে আবারও সাপের উপদ্রব দেখা দেওয়ায় অভিভাবকরা ছুটে যান স্কুলে। অভিভাবকদের কেউ কেউ নিরাপত্তার কথা ভেবে সন্তানদের বাড়ি নিয়ে যান। ফলে বিপাকে পড়েন স্কুলের শিক্ষকসহ কর্তৃপক্ষ।

অভিভাবকরা জানান, তারা স্কুলে সাপের উপদ্রবের কথা শুনে স্কুলে ছুটে এসেছেন। যে সব সাপ মারা পড়েছে সবগুলোই বিষধর ও বিষাক্ত সাপ। তবে সেগুলো বাচ্চা সাপ। সাপের মা কোথাও লুকিয়ে রয়েছে। সুযোগ পেলে কাউকে না কাউকে কামড়ে দিতে পারে বলে তারা আতঙ্কে রয়েছেন। তাই সন্তানদের বাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন। এখানে এখন কোনো শিশুই নিরাপদ নয়। আর পুরাতন ভবনের কারণেই সাপের উপদ্রব বলে জানান অভিভাবকরা।

সহকারী শিক্ষক শিরিনা সুলতানা জানান, মঙ্গলবার তার ক্লাস চলাকালীন সময়ে তিনটি সাপ বের হয়েছে। তারপর ওই কক্ষের ক্লাস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এখন সাপের উপদ্রবে আমরা চিন্তিত। আর সাপের কারণে শিশুদেরও মনে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। প্রতিদিনই শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিও কমছে। তিনি আরো জানান, গত বছর সাপের উপদ্রবে শিশুরা বেশ কিছুদিন স্কুলে আসা বন্ধ করে দিয়েছিল।

প্রধান শিক্ষক ফরিদুল ইসলাম বলেন গত বছরও এ সময়ে সাপ ও পোকা মাকড়ের উপদ্রব দেখা দিয়েছিল। সাপের উপদ্রব বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানানোর পর তিনি মঙ্গলবার সরেজমিনে স্কুল পরিদর্শন করে শিশু শ্রেণি ছুটি দিয়ে ওই কক্ষ সংস্কারের নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী রবিবার পর্যন্ত ক্লাস বন্ধ রেখে কক্ষ সংস্কার করা হবে।

সিংড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মঈনুল হাসান এই প্রতিবেদককে বলেন, তিনি বিষয়টি জানার পর সরেজমিনে ওই স্কুল পরিদর্শন করেছেন। সাপের উপদ্রব থেকে বাঁচতে শিশু শ্রেণি সংস্কার করার জন্য কয়েকদিনের জন্য ক্লাস বন্ধ রাখতে বলেছেন। এ সময়ের মধ্যে স্কুলের চারপাশও পরিষ্কার করা হবে, যাতে সাপের আর কোনো আতঙ্ক না থাকে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/এবি

More News Of This Category


পুরাতন সংবাদ

Fri Sat Sun Mon Tue Wed Thu
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031