Logo

September 18, 2019, 5:54 am

সংবাদ শিরোনাম :

‌‘দ্বিতীয় ইসরাইল হওয়ার চেষ্টায় মরিয়া আমিরাত’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

যুক্তরাষ্ট্র থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের অস্ত্র কেনার সমালোচনা করে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যে দ্বিতীয় ইসরাইল হওয়ার চেষ্টায় মরিয়া হয়ে উঠেছে আমিরাত। শত শত কোটি ডলারের অস্ত্র কেনার মাধ্যমে তারা এমনটিই চেষ্টা করছে।

মঙ্গলবার আল আরাবি টেলিভিশনে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

 

জারিফ বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের তিনটি দেশ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক রাখাটাকেই তাদের নিরাপত্তার জন্য ভালো মনে করে। তারা মনে করে আমেরিকা তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। কিন্তু তাদের এমন চিন্তা ভুল প্রমাণিত হয়েছে। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের সরবরাহকৃত অস্ত্র দিয়ে শুধু ইসরাইলই লাভবান হয়।

 

২০১২ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে সংযুক্ত আরব আমিরাত ৬৩ শতাংশ অস্ত্র আমদানি বাড়িয়েছে বলে বিভিন্ন সমীক্ষায় উঠে এসেছে। এতে জানানো হয়, ২০১৬ সালে সামরিক খাতে আমিরাতের ব্যয় ছিল ২৩৬০ কোটি ডলার। ২০২১ সাল নাগাদ তা ৩১৮০ কোটি ডলারে নেয়ার পরিকল্পনা করেছে দেশটি।

আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে ইয়েমেন, সিরিয়া ও লিবিয়ার গৃহযুদ্ধে হস্তক্ষেপের অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি সৌদির সমর্থনে ইরানের সঙ্গে ব্যাপক বিবাদে জড়িয়ে পড়ে দেশটি। ইরানের একগুঁয়ে আচরণের কারণে গোটা মধ্যপ্রাচ্যেউত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে বলে কয়েক দিন আগে দাবি করেন আরব আমিরাতের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী আনোয়ার গার্গাশ।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনার জন্য বি-টিমকে দায়ী করেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ।

 

 

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন, ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু, সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ও আরব আমিরাতের যুবরাজ বিন জায়েদকে বি-টিমের চার সদস্য বলে আখ্যায়িত করেন ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বি-টিমের অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ ইরানি জনগণের ক্ষতি করার পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি করছে বলেও অভিযোগ করেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল