Logo

September 22, 2019, 6:29 am

সংবাদ শিরোনাম :

দোয়ারাবাজারে শ্বশুরের বিরুদ্ধে আদালতে শ্লীলতাহানির মামলা করায় গৃহহীন পুত্রবধু

দোয়ারাবাজার সংবাদদাতা::

দোয়ারাবাজারে প্রবাসীর স্ত্রী কর্তৃক আপন শ্বশুরের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল সুনামগঞ্জে মামলা দায়ের করায় দুই সন্তানের জননী গৃহবধুকে স্বামীর বসত বাড়ি থেকে জোর পূর্বক তাড়িয়ে দিয়েছেন পাষন্ড শ্বশুর মো গোলাম মোস্তফা ওরফে গোলাপ মিয়া। সে দোয়ারাবাজার উপজেলার মান্নারগাও ইউনিয়নের হাজারীগাওঁয়ের বাসিন্দা।

 

গত ২১ মে পুত্রবধু বাদী হয়ে বিজ্ঞ আদালতে মো গোলাম মোস্তফা ওরফে গোলাপ মিয়াকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়। যার শ্লীলতাহানি মোকদ্দমা নং-২০৮/২০১৯ইং।

 

গৃহবধু ও মামলা সূত্রে জানা যায়, হাজারীগাঁও নিবাসী আদম বেপারি মো গোলাম মোস্তফার ছেলে মনির আহমদের সাথে একই গ্রামের হাছন আলীর মেয়েকে বিবাহ দেওয়া হয়। বিয়ের পর তিনি দুই সন্তানের জন্ম দেন। বিয়ের পর স্বামী সংসার নিয়ে গৃহবধু সুখেই ছিলেন। আড়াই বছর যাবৎ তার স্বামী প্রবাসে থাকেন। সন্তান নিয়ে শ্বশুরের কাছেই থাকতেন। শ্বশুর গোলাপ মিয়ার পাচঁ ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে চার ছেলে বিদেশ থাকেন। অন্য ছেলে সিলেটে চাকুরী করেন। দুই মেয়ের বিয়ে হয়ে শ^শুর বাড়িতে থাকেন। ঘরে শুধু অসুস্থ্য বৃদ্ধ শ্বাশুরি ও পাষন্ড শ্বশুর। এই সুযোগে তার শ্বশুর শারীরিক মেলামেশার জন্য পুত্রবধুকে কু-প্রস্তাব দেয়। ঘটনাটি পুত্রবধু তার স্বামীকে মোবাইল ফোনে জানান। এই ঘঁটনা নিয়ে ছেলে তার বাবার সাথে পিতা-পুত্রের সম্পর্ক ছিন্ন করে ফেলেন। শ্বশুর গৃহবধুর উপর বিষণ রাগানিত্ব হয়ে উঠেন।

 

১৬ মে রাতে পুত্রবধু তার শয়ন কক্ষে ঘুমিয়ে পড়লে গভীর রাতে শ্বশুর গৃহবধুর কক্ষে প্রবেশ করে তাকে জোর পূর্বক শ্লীলতাহানি করেন। পুত্রবধু আর্ত চিৎকার করলে তার অসুস্থ্য শ্বাশুরি এগিয়ে গেলে শ্বশুর ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত পালিয়ে যান। পরবতী ঘটনা তার প্রবাসী স্বামীকে অবঘত করতে চাইলে শ্বাশুরি বাধা দেন। তারপরও গৃহবধু ঘটনাটি স্বামীকে জানান। ঐ কারণে শ্বশুর-শ্বাশুরি গৃহবধুকে ঝড় বৃষ্টির রাতে দুটি সন্তান সহ তাদেরকে ঘর থেকে বের করে দেন। পরে স্বামীর অনুরুদে গৃহবধু আদালতে মামলা দায়ের করেন।

 

উল্লেখ্য গোলাপ মিয়ার বড় ছেলে ফারুক মিয়ার স্ত্রীও শ্বশুরের অত্যাচারে স্বামীর বাড়ি ছেড়ে বাবার বাড়ি সদর উপজেলার মঙ্গলকাটা গ্রামে বসবাস করছেন।

এ ব্যাপারে আসামি গোলাপ মিয়া বলেন, একটি কু-চক্রী মহলের পরামর্শে পুত্রবধু আমার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছে। আমিও দেখব মামলা করে সে কি করতে পারে।

এ ব্যাপারে মহিলা ইউপি সদস্য সুলতানা দীপু বলেন, আমাদের গ্রামে এই সমস্ত নোংরা ঘটনা পূর্বেও কোন দিন ঘটেনি। কিন্তু শ্বশুর-গৃহবধুর ঘটনা শুনে আমি খুবই লজ্জিত। আপোষ মিমাংসা করার জন্য চেষ্ঠা করছি।

এ ব্যাপারে দোয়ারাবাজার থানার সেকেন্ড অফিসার সজিব জানান, আদালতের নির্দেশ মোতাবেক তদন্ত কাজ চলছে।