Logo

February 27, 2020, 2:55 am

সংবাদ শিরোনাম :
«» করোনাভাইরাস : ওমরাহ যাত্রীদের প্রবেশ স্থগিত করল সৌদি «» পাপিয়ার অবৈধ সম্পদের খোঁজ নিচ্ছে দুদক «» দেশে প্রথমবারের মতো পুড়ে যাওয়া ইঞ্জিন সচল, বাঁচল ৩০ কোটি টাকা «» কানাইঘাটে রাস্তা কেটে দেওয়ায় বিপাকে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা «» আমরা সত্যিকার অর্থেই জনগণের পুলিশ হতে চাই: আইজিপি «» জগন্নাথপুরে আরাফাত রহমান কোকো গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ২য় রাউন্ড সম্পন্ন «» জগন্নাথপুরে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ «» মৌলভীবাজারে পৃথক অভিযানে ৪ মাদক ব্যবসায়ী আটক «» বিশ্ব মানবতার কল্যাণে মুসলিম জাতির তাকওয়া অর্জনই ইহ-পরকালীন শান্তি ও মুক্তির একমাত্র পথ ——–আল্লামা হাসান জামিল, ঢাকা «» কবর জিয়ারতে বাধা ও হামলার প্রতিবাদে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত

ডাস্টবিনে ৩১ নবজাতকের মরদেহ : দায়ীদের কঠোর ব্যবস্থার দাবি

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাস্টবিন থেকে ৩১ নবজাতকের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছে স্বাস্থ্য সেবা কমিটি।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে মেডিকেল কলেজের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত স্বাস্থ্য সেবা কমিটির বৈঠকে এই দাবি করা হয়।

বৈঠকে স্বাস্থ্য সেবা কমিটির সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপি গত ১৮ ফেব্রুয়ারি মেডিকেলের ডাস্টবিন থেকে ৩১ শিশুর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি করেন।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বরিশাল-২ (বানারীপাড়া-উজিরপুর) আসনের এমপি মো. শাহেআলম, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোশারফ হোসেন, জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান,

পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলাম, হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো বাকির হোসেন, মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মাকসুমুল হক, বরিশাল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি রাতে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাস্টবিন থেকে ৩১ নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। হাসপাতালের গাইনি বিভাগ থেকে মরদেহগুলো ফেলা হয়েছিল। ঘটনা জানাজানি হলে শত শত মানুষ ডাস্টবিনের সামনে ভিড় করে।

এ ঘটনায় বরিশালসহ দেশব্যাপী আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক এ ঘটনা জানতে পেরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

পাশাপাশি দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন। এরপর দায়িত্বে অবহেলার কারণে গাইনি বিভাগের প্রধান ডা. খুরশিদ জাহান এবং ওই বিভাগের ওয়ার্ড ইনচার্জ নার্স জোৎস্না বেগমকে সাময়িক বরখাস্তের জন্য আবেদন পাঠান স্বাস্থ্য অধিদফতরে।

ঘটনা তদন্তে ১৯ ফেব্রুয়ারি সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. জহুরুল হক মানিককে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।

এই কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। ঘটনার পর ৯ দিন পেরিয়ে গেলেও তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দিতে পারেনি। অন্যদিকে অভিযুক্ত ডা. খুরশিদ জাহান হক এখনও গাইনি বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল