May 24, 2019, 9:21 am

একুশের চেতনা বাস্তবায়নে গুরুত্ব দিন

মহান ভাষা দিবস বাঙালি জাতির মননের গভীরে অনন্য মহিমায় সমুজ্জ্বল। এ দিনই মায়ের ভাষার মর্যাদার দাবিতে বুকের তাজা রক্তে রাজপথ রঞ্জিত করেছিলেন সালাহউদ্দিন, রফিক, সালাম, বরকত, জব্বারসহ নাম না জানা এদেশের অনেক সূর্যসন্তান।

বাংলাকে যথার্থ সম্মানের আসনে অধিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে এ দিন তারা আত্মাহুতি দিয়েছেন। সংগ্রাম, সাধনা এবং চরম আত্মত্যাগের মাধ্যমে তারা নির্মাণ করে গেছেন এক অলোকিত পথ, যে পথ ধরে আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে এসেছে বাঙালি জাতির বহু কাক্সিক্ষত স্বাধীনতা।

বাংলা ভাষার মর্যাদা রক্ষার দিন একুশে ফেব্রুয়ারি তথা মহান শহীদ দিবস আমাদের জাতীয় ইতিহাসের পাতায় বাঙালিকে আপসহীন প্রতিবাদী জাতি হিসেবে চিহ্নিত করে রেখেছে।

মাতৃভাষা বাংলার রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার দাবিতে ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে অসংখ্য ভাষাসৈনিক আত্মোৎসর্গ করেছিলেন। তাদের সে আত্মদানের কথা আজ সারা বিশ্বে স্বীকৃতি লাভ করেছে।

মহান একুশের ভাষা আন্দোলন বাঙালি জাতিকে দীক্ষা দিয়েছে অন্যায়ের কাছে মাথা না নোয়ানোর। শিখিয়েছে অধিকার আদায়ে অকুতোভয় হওয়ার।

তাই একুশে ফেব্রুয়ারিকে বাঙালি জাতীয়তাবাদের বীজভূমি বলা হয়। মূলত বায়ান্নর একুশে ফেব্রুয়ারিই বাঙালি জাতিকে তার ন্যায্য অধিকার আদায়ে সংগ্রামী পথ বেছে নিতে অনুপ্রাণিত করে।

আর বায়ান্নর এপ্রিলে এসে বাংলা রাষ্ট্রীয় ভাষার মর্যাদা লাভ করলে সংগ্রামের পথে দাবি আদায়ের ব্যাপারে বাঙালি জাতি আরো আস্থাশীল হয়ে ওঠে। শেষ পর্যন্ত ভাষা আন্দোলনে বাঙালি জাতীয়তাবাদের যে বীজ উপ্ত হয়েছিল তা পর্যায়ক্রমিকভাবে ব্যাপ্ত হয়ে একাত্তরে এক বিরাট মহীরুহে পরিণত হয়।

অতঃপর ৩০ লাখ শহীদের এক সাগর রক্তের বিনিময়ে একাত্তরের ষোলই ডিসেম্বর বিশ্বের মানচিত্রে আপন মহিমায় প্রতিষ্ঠালাভ করে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রায় তিন দশকের শেষ দিকে এসে ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগ বিশ্বস্বীকৃতি লাভ করে।

একুশে ফেব্রুয়ারি এখন আর কেবল বাংলাদেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। অমর একুশে এখন সারা বিশ্বের সব ভাষার জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষা দিবস রূপে প্রতিষ্ঠালাভ করেছে। পরিণত হয়েছে মর্যাদার প্রতীকে। কারণ পৃথিবীর ইতিহাসে এটাই সর্বপ্রথম ভাষায় জন্য রক্তদানের ঘটনা।

রক্তে রাঙানো একুশের মাধ্যমেই মানুষের মাতৃভাষা যে প্রতিটি মানুষের কাছে পরম প্রিয় এবং তাকে মর্যাদা দান যে প্রত্যেকটি জাতির মৌলিক অধিকার, সে পরম সত্যটি উপলব্ধিতে আসে। সে কারণেই ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দের ১৭ নভেম্বর প্যারিসে অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর এক অধিবেশনে আমাদের মহান শহীদ দিবসকে সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়।

এরপর ২০০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আমাদের মহান শহীদ দিবস ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কোর এ সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিসত্তার এক গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায় বিশ্ব ইতিহাসের এক আলোকোজ্জ্বল অধ্যায়ে পরিণত হয়।

এখন সারা বিশ্বে যথাযোগ্য মর্যাদায় উচ্চারিত হচ্ছে আমাদের ভাষা শহীদের নাম। বিবৃত হচ্ছে মাতৃভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য তাদের আত্মত্যাগের কাহিনী। আর এভাবেই প্রচারিত হতে থাকবে প্রতি বছর।

প্রত্যেক মাতৃভাষাপ্রেমিক মায়ের ভাষার মর্যাদা রক্ষার্থে প্রেরণা পাবে এদিন থেকে, আমাদের বীর শহীদদের আত্মত্যাগ থেকে। এর সঙ্গে সম্মানের সঙ্গে উচ্চারিত হবে বাঙালি আর বাংলাদেশের নামটিও।

তাছাড়া আমাদের মহান শহীদ দিবস বিশ্বব্যাপী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের ফলে বিশ্বের বিভিন্ন মানুষের সহাবস্থান আরো নিবিড় হবে।

বাংলাভাষা আজ শুধু বাংলাদেশ নয়, সুদূর সিয়েরালিওনেও মর্যাদালাভ করেছে। এটি আমাদের জন্য অবশ্যই গৌরবের এবং মর্যাদার। কিন্তু দুঃখজনকভাবে বাংলাদেশে যেভাবে বাংলা ভাষার চর্চা হওয়ার কথা ছিল সে ভাবে হচ্ছে না।

 

বাংলা ভাষার সমৃদ্ধির জন্যে ব্যাপক গবেষণাও হচ্ছে না। এখনো প্রতিষ্ঠিত হয়নি একটি পূর্ণাঙ্গ ভাষা ইনস্টিটিউট। প্রতিষ্ঠিত হয়নি ভাষা আন্দোলন জাদুঘর। ভাষা আন্দোলনেরও অধিকৃত এবং পরিপূর্ণ ইতিহাস নেই।

 

এর দ্বারা নতুন প্রজন্ম বিভ্রান্ত হচ্ছে। একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতির অগ্রযাত্রা নির্মাণ এবং সব মহৎ সাধনার প্রেরণা হলেও একটি পরনির্ভর গোষ্ঠী বাংলা ভাষার শ্রীবৃদ্ধিতে বাধার সৃষ্টি করেছে।

 

সরকারি উদ্যোগও পর্যাপ্ত নয়। মহান শহীদ দিবসের দিন কিছু কর্মসূচি দেখা গেলেও বাস্তবে সারা বছরই বাংলা ভাষার সমৃদ্ধির কর্মসূচি থাকে উপেক্ষিত।

 

আমরা আজকের এই মহান দিনে আশা করতে চাই, সরকার বাংলা ভাষার সমৃদ্ধি সাধনে বাস্তবভিত্তিক কর্মসূচি প্রণয়ন এবং তার যথাযথ বাস্তবায়নে মনোযোগী হবে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রতিটি বাঁকে রয়েছে নির্মল রক্ত কণিকার মণিমুক্তা। দীর্ঘ রক্তাক্ত পথ পাড়ি দিয়েই বাঙালি জাতি তার অস্তিত্বের ইতিহাস রচনা করেছে।

ভাষা আন্দোলন এই ইতিহাসের একটি আলোকোজ্জ্বল অধ্যায়। আর ভাষা আন্দোলনের চূড়ান্ত পরিণতির তথা মহান শহীদ দিবসের চেতনা নিঃসন্দেহে আমাদের মন-মানসকে প্রতিনিয়ত আন্দোলিত করে, প্রসারিত করে অগ্রসরতার পথ। প্রাণবন্ত করে আমাদের উদ্যম-উদ্যোগকে ।

মহান একুশের আবেদন এখন সব শুভ প্রচেষ্টায়, সব মহৎ চিন্তার গভীরে প্রোথিত। আমাদের জাতীয় শিক্ষা, সংস্কৃতিসহ সব শুভ ধারার বিকাশে একুশের অন্তহীন প্রেরণাকে কাজে লাগাতে হবে।

কাজে লাগাতে হবে একটি সুস্থ গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংস্কৃতির বিকাশেও। একুশের চেতনার প্রতিফলন ঘটাতে হবে আমাদের জীবনের সব ক্ষেত্রেই। তবেই সম্ভব হবে একটি সুখী, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়া।

যা হাজার বছর ধরে বাঙালির আরাধ্য ছিল। আজকের এই দিনে আমরা ভাষা শহীদদের পাশাপাশি বাঙালির স্বাধীনতা ও স্বাধিকার আন্দোলনের সব পর্যায়ে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালনকারী সবার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। তাদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

 

গোলাম সারোয়ার

সম্পাদক ও প্রকাশক

আজকের স্বদেশ ডটকম।

 

 

আজকের স্বদেশ/আবু বকর

More News Of This Category