1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন
হেড লাইন
জগন্নাথপুরে এবার কোরবানির হাটে উঠবে শখের গরু ‘ভাগ্য রাজ লাল’ নবীগঞ্জের চৈতন্যপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে একের পর এক নাশকতা ও হয়রানির চেষ্টা জগন্নাথপুরে ভাই ব্রাদার্স কার ট্রেনিং সেন্টার এর উদ্যোগে প্রশিক্ষনার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ একদিন পরেই কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন রানীগঞ্জ ফ্রেন্ডস্ ক্লাবের ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নাবিলা ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড সিসিটিভি হাউজ এর উদ্বোধন আজ কন্ঠশিল্পী সুরকার গীতিকার “স্বাধীন বাবুর জন্মদিন” রানীগঞ্জ উন্নয়ন সংস্থা’র প্রথম পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন কানাইঘাট উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলাল আহমেদের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা জগন্নাথপুরে সর্বজনীন পেনশন স্কিম নিয়ে মতবিনিময় সভা করলেন ডিসি

‘হিজাবের ভেতর লুকিয়ে রাখতাম বই-খাতা’

  • Update Time : বুধবার, ২০ জুন, ২০১৮
  • ৩৮০ শেয়ার হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের উপকণ্ঠে প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের বাহিনীর নিয়ন্ত্রনের বাইরের সর্বশেষ এলাকাটি ছিল ইয়ারমুক। এলাকাটি তখন নিয়ন্ত্রণ করতো প্রধানত আইএস। তবে গত মাসে ব্যাপক বোমাবর্ষণ ও সম্মুখযুদ্ধের পর তারা ইয়ারমুক ছেড়ে চলে গেছে।

 

আইএসের নিয়ন্ত্রণে থাকা অবস্থায় ইয়ারমুকের মেয়েদের লেখাপড়া প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। তবে এখন স্কুলগুলো আবার খুলেছে, ক্লাস ও পরীক্ষা হচ্ছে। ইয়ারমুক থেকে বিবিসির প্রতিনিধি ক্যারোলাইন হলি জানিয়েছেন, সেখানকার স্কুলের মেয়েদের মধ্যে এমন অনেকে রয়েছে যারা স্কুলে লেখাপড়া করার জন্য ভয়ংকর সব ঝুঁকি নিয়েছে।

 

তারা যেখানকার বাসিন্দা- সেই এলাকাটি ছিল আইএসের দখলে। তারা মেয়েদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করতে চেয়েছিল, কিন্তু আধুনিক প্রযুক্তি ও প্রবল ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমে ব্যবহার করে এই মেয়েরা তা প্রতিহত করেছে। সেই মেয়েদের একজন জেরিন সুলাইমন, যার বয়স ১৫। তিনি বলেন, ‘লেখাপড়া করার যে মৌলিক অধিকার তা আমাদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়া হয়েছিল। আমাদের স্কুলে যেতে দেয়া হতো না। আমরা যেন শপিং করতে ইয়াল্দায় যাচ্ছি – এমন ভাব করে স্কুলে যেতাম।’

আরেক জন ছাত্রী ১৪ বছরের ফাতিমা। তিনি বলছিলেন, তার এক বান্ধবীকে আইএস পিটিয়েছিল কারণ তার কাছে খাতাপত্র পাওয়া গিয়েছিল। ফাতিমা বলে, ‘আমরা হিজাবের নিচে বা জুতোর মধ্যে বই, খাতাপত্র লুকিয়ে রাখতাম। বা এমন যে কোন জায়গায় যাতে ওরা খুজে না পায়। খুঁজে পেলে – এমনকি তা যদি সাদা কাগজও হতো – তাহলেও তারা তা ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ফেলতো।’

 

জেরিন বলেন, আইএস মেয়েদের নিকাব পরতে বাধ্য করতো, সাথে কোন বই পত্র রাখতে দিতো না। স্কুলের সাথে সম্পর্কিত যে কোন জিনিসই তাদের চোখে ছিল নিষিদ্ধ। তারা এমনকি কলম বা রুলারও ভেঙে ফেলতো।

 

 

আইএসের চোখকে ফাঁকি দেবার জন্য এই মেয়েরা মোবাইল ফোন আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে কাজে লাগায়। ফাতিমা বলছিলেন, বোর্ডে শিক্ষক যা লিখতেন – আমরা মোবাইল ফোন দিয়ে তার ছবি তুলে রাখতাম। সেটা সোশাল মিডিয়ায় বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতাম। ইয়ারমুক আইএসের দখলে থাকার সময় লড়াই চলার মধ্যে নেটওয়ার্ক সবসময় পাওয়া যেতো না। পেতে হলে বিপদের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ির ছাদে উঠতে হতো।

ফাতিমা বলেন, আমাদের কোন বইপত্র ছিল না। ছিল শুধু মোবাইল ফোন। তবে শিক্ষাই হচ্ছে সবকিছু । আর এটাই আমাদের অস্ত্র।

 

 

পরীক্ষা হয়ে যাবার পর এই মেয়েরা অন্য আর দশটা ছাত্রীর মতোই ফলাফল নিয়ে উদ্বিগ্ন। কিন্তু আসলে তারা আরো বড় এক পরীক্ষা পার হয়ে এসেছে – যা অনেক সময় সময় জীবনমৃত্যুর পরীক্ষা। সূত্র : বিবিসি

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD