1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১০:৪২ অপরাহ্ন
হেড লাইন
জগন্নাথপুরে এবার কোরবানির হাটে উঠবে শখের গরু ‘ভাগ্য রাজ লাল’ নবীগঞ্জের চৈতন্যপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে একের পর এক নাশকতা ও হয়রানির চেষ্টা জগন্নাথপুরে ভাই ব্রাদার্স কার ট্রেনিং সেন্টার এর উদ্যোগে প্রশিক্ষনার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ একদিন পরেই কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন রানীগঞ্জ ফ্রেন্ডস্ ক্লাবের ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নাবিলা ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড সিসিটিভি হাউজ এর উদ্বোধন আজ কন্ঠশিল্পী সুরকার গীতিকার “স্বাধীন বাবুর জন্মদিন” রানীগঞ্জ উন্নয়ন সংস্থা’র প্রথম পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন কানাইঘাট উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলাল আহমেদের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা জগন্নাথপুরে সর্বজনীন পেনশন স্কিম নিয়ে মতবিনিময় সভা করলেন ডিসি

দোয়ারাবাজারে খাসিয়ামারা নদীতে অপরিকল্পিত বালু উত্তোল বন্ধে এলাকায় ফিরেছে স্বস্তি

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৭ জুন, ২০১৮
  • ৩১৮ শেয়ার হয়েছে

এম মোতালিব ভুঁইয়া  ::
সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার খাসিয়ামারা নদীর বালু মহালের অপরিকল্পিত বালু উত্তোলন বন্ধ করা হয়েছে। এতে নদীর পার্শ্ববর্তী এলাকাসমূহে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার ভোর ৫টায় সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে আলীপুর-টেংরাটিলা খেয়াঘাটে বালু উত্তোলনকারী স্টিলবডি নৌকা ও শ্রমিকদেরকে জড়ো করে বালু উত্তোলন করতে নিষেধ করেন সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খন্দকার মামুনুর রশীদ। পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করায় এতে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।

 

 

জানা যায়, খাসিয়ামারা নদী বিধৌত এলাকার প্রাকৃতিক পরিবেশের পারিপার্শ্বিকতা বিবেচনা না করেই  চলতি বছরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৪ লাখ টাকা মূল্যে খাসিয়ামারা বালু মহাল ইজারা দেওয়া হয়। এরই মধ্যে পাহাড়ি খাসিয়ামারা নদী থেকে অবাধে বালু উত্তোলন করা শুরু করে ইজারা নেওয়া মালিক পক্ষ। নদীর পার ঘেঁষে অবাধে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনে পরিবেশ বিপর্যয় হওয়ার আশঙ্কায় শুরুতেই এতে আপত্তি জানিয়েছিল নদীর দুপারের স্থানীয় বাসিন্দারা। স্থানীয়দের আপত্তি ও পরিবেশ বিপন্নের বিষয়টি বিভিন্ন মিডিয়াতে এসেছে বেশ কয়েকবার।

 

এনিয়ে একাধিক বার এলাকায় প্রতিবাদ সভা/ সমাবেশ, মানববন্দন কর্মসূচিসহ স্থানীয় সুরমা ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ করা হয়েছে বলেও জানা গেছে। তারপরেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কোনো ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় স্থানীয়দের মধ্যে অসন্তোষ বিরাজ করছে দীর্ঘদিন যাবৎ। নদীর পার ঘেঁষে অবাধে বালু উত্তোলন করার ফলশ্রুতিতে সম্প্রতি খাসিয়ামারা নদীর ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এলাকাবাসী। খাসিয়ামারা নদী ভাঙ্গনে হুমকির মুখে রয়েছে উপজেলার সুরমা ইউনিয়েনের রাবার ড্যাম, মহব্বতপুর, টিলাগাও, গিরিস নগর, আজবপুর, টেংরাটিলা এবং আলীপুর গ্রামের ফসলি জমি, বসতবাড়ি, বাজার ও আশপাশের বিস্তীর্ণ এলাকা। জানা যায়, এলাকাবাসীর তীব্র আপত্তি ও অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনের বিষয়ে ইজারাদার মালিক পক্ষের সাথে একাধিকবার আলোচনায় বসার আগ্রহ প্রকাশ করেন সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খন্দকার মামুনুর রশীদ। কিন্তু আলোচনায় বসার আগেই মালিক পক্ষ বার বার নানান তালবাহানা করে সমক্ষেপন করায় এখোনো পর্যন্ত আলোচনায় বসা সম্ভব হয়নি। এদিকে দীর্ঘদিন যাবৎ অবাধে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন করার বিরুদ্ধে আজোবধি কোনো ধরণের প্রশাসনিক ব্যবস্থা না নেওয়ায় খাসিয়ামারা নদীর দুপারের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের লোকজন সম্প্রতি এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে আন্দোলনে নামার হুসিয়ারি উচ্চারণ করেন। এরপর থেকে এলাকায় অস্বস্তি বিরাজ করছিল। অবশেষে ইউপি চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপে বালু উত্তোলন বন্ধ হওয়ায় স্থানীয়রা স্বস্তি প্রকাশ করছে। খাসিয়ামারা নদীগর্ভে ভিটেমাটি হারানো আলীপুর গ্রামের বাসিন্দা বয়োবৃদ্ধা বিধবা ভানু বিবি বলেন, ‘বার বার মানা করার পরেও আমার বসতবাড়ির উঠানের সামন থেকে বালু উত্তোলন করে নিয়ে গেছে। আমরা নিরুপায়, টাকা পয়সার জোড় নাই তাই আমরা কিছুই করতে পারছিনা। আমরা কিছু বললেই তারা প্রশাসনের ভয় দেখায়। আগের ভাঙ্গনে ভিটেমাটি সব হারিয়েছি। যেভাবে বালু উত্তোলন করা হয়েছে এবারের ভাঙনে বোধহয় শেষ সম্বলটুকু হারাতে হবে। বালু উত্তোলনের নামে আমাদের সর্বনাশ করা হচ্ছে। মেম্বার, চেয়ারম্যানকে বেশ কয়েকবার জানিয়েছি। আরো আগেই বালু উত্তোলন বন্ধ করা উচিত ছিলো।’  নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার পথে একই গ্রামের বাসিন্দা সিরাজ মিয়ার জীবিকার একমাত্র দোকান।

 

দোকানি সিরাজ মিয়া বলেন, ‘নদী পারের সাইট থেকে বালু উত্তোলন করে ফেলা হয়েছে। কিছুই বলতে পারছিনা। নদী ভেঙে নিয়ে যাচ্ছে নিয়ে যাক। আমরা কি করবো? কিছু বলার আগেই বলে তারা নাকি লিজ নিয়েছে। যা বুঝার দরকার তা নাকি সরকারের কাছে বুঝতাম!’ সাদেক মিয়া বলেন, ‘ভিটেমাটি সব জমিই হারাইছি। এখন যেটুকু আছে তা আর হারাতে চাইনা। এবার যদি চেয়ারম্যান সাব বালু উত্তোলন বন্ধ না করতো আমরা নিজেরাই ভিটেমাটি বাঁচাতে মাঠে নামার প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। বার বার মানা করার পরেও আমার জমির সাইট থেকে বালু নিয়ে গেছে।

 

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল কাদির বলেন, শুরু থেকেই বালু উত্তোলনের বিষয়ে আমি আপত্তি জানিয়েছি। বালু উত্তোলনের ফলে শুধু আমার ওয়ার্ড নয় আশপাশের সবকটি ওয়ার্ডের জনসাধারণ ক্ষয়ক্ষতির শিকার। এটা আরো আগেই বন্ধ করা উচিত ছিলো।

 

সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খন্দকার মামুনুর রশীদ বলেন, খাসিয়ামারা নদীর বালু মহাল সরকারি ভাবে লিজ দেওয়া হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। কিন্তু তাদের অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের ফলে আমার ইউনিয়নের প্রাকৃতিক পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। সম্প্রতি নদী ভাঙ্গন বেড়ে গেছে। আমি তাদেরকে এব্যাপারে আলোচনায় বসার আহবান করেছিলাম কিন্তু তেমন সাড়া মিলেনি। এলাকা থেকে একাধিক বার আমার কাছে অভিযোগ এসেছে। আমি এই কয়েকদিন যাবৎ বালু উত্তোলনে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসীর চাপে রয়েছি। শেষ পর্যন্ত এলাকাবাসীর তীব্র চাপে বাধ্য হয়েই বালু উত্তোলন করতে নিষেধ করেছি। পরবর্তীতে আলোচনায় বসে সিদ্ধান্ত না নেওয়ার আগ পর্যন্ত আপাতত বালু উত্তোলন বন্ধ থাকবে।

 

 

দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মহুয়া মমতাজ বলেন, ‘বালু উত্তোলন বন্ধের বিষয়ে সুরমা ইউপি চেয়ারম্যান আমাকে কিছুই বলেনি। তবে ইজাদাররা আমাকে জানিয়েছেন বালু উত্তোলনে ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক নিষেধ প্রদান করা হয়েছে। অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে এর আগে এলাকা থেকেও অভিযোগ এসেছিলো।আমি এসিল্যান্ডের মাধ্যমে ইনকোয়ারি করেছি কিন্তু ইনকোয়ারির রিপোর্ট এখনো পর্যন্ত আমার হাতে আসেনি। রিপোর্ট না আসার আগ পর্যন্ত কিছুই বলা যাচ্ছেনা। বিষয়টি আমি দেখবো।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/তুহিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD