1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন
হেড লাইন
জগন্নাথপুরে এবার কোরবানির হাটে উঠবে শখের গরু ‘ভাগ্য রাজ লাল’ নবীগঞ্জের চৈতন্যপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে একের পর এক নাশকতা ও হয়রানির চেষ্টা জগন্নাথপুরে ভাই ব্রাদার্স কার ট্রেনিং সেন্টার এর উদ্যোগে প্রশিক্ষনার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ একদিন পরেই কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন রানীগঞ্জ ফ্রেন্ডস্ ক্লাবের ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নাবিলা ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড সিসিটিভি হাউজ এর উদ্বোধন আজ কন্ঠশিল্পী সুরকার গীতিকার “স্বাধীন বাবুর জন্মদিন” রানীগঞ্জ উন্নয়ন সংস্থা’র প্রথম পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন কানাইঘাট উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলাল আহমেদের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা জগন্নাথপুরে সর্বজনীন পেনশন স্কিম নিয়ে মতবিনিময় সভা করলেন ডিসি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অদক্ষতার খেসারত দিচ্ছে হাজার হাজার শিক্ষার্থী

  • Update Time : শনিবার, ২ জুন, ২০১৮
  • ৪১৭ শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অদক্ষতা ও খামখেয়ালীর মাশুল দিতে হচ্ছে হাজার হাজার শিক্ষার্থীদের।  জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ পরীক্ষার ফল বৃহস্পতিবার (৩১ মে) বিকেল প্রকাশ হয়। পাসের হার ছিল ৯৫ দশমিক ৩০ শতাংশ। এই ফল বিকেল চারটা থেকেই মেসেজ ও সন্ধ্যা ৬টা থেকে ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর থেকে জানানো হয়।

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দপ্তর থেকে বিকেল ৩টা ১১ মিনিটে গণমাধ্যমে একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়। এতে জানানো হয় শিক্ষার্থীদের মুঠোফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে nuhp2Roll লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠিয়ে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট (www.nu.edu.bd এবং www.nubd.info) থেকে জানা যাবে।

একাধিক শিক্ষার্থী দৈনিকশিক্ষার কাছে অভিযোগ করে বলেন, এই নিয়মে মেসেজ পাঠালে উত্তরে জানানো হচ্ছে দুঃখিত, আপনার এসএসসি বোর্ডের নাম (এনইউ) সঠিক নয়। এছাড়া বিভিন্ন বোর্ডের নামের কোড ফিরতি মেসেজে জানানো হচ্ছে।

 

 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মো. ফয়জুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘hp2 হচ্ছে অনার্স দ্বিতীয় পার্ট এর সংক্ষিপ্ত কোড। বিকেল ৫টা ৩৪ মিনিটে মুঠোফোনে এপদ্ধতিতে ফল আসেনা জানালে তিনি বলেন, তাহলে এখনও বোধহয় আপডেট হয়নি। h2 দিয়ে মেসেজ পাঠালে ফল পাওয়া যাচ্ছে জানালে  তিনি বলেন, আমি নিয়ন্ত্রণ বিভাগকে এখনই জানাচ্ছি।’ তিনি আরও বলেন, কিছুসময়ের মধ্যে মেসেজে ফল জানার প্রক্রিয়াটি সংশোধন করে দিচ্ছি। পরে সন্ধ্যা ৬টা ২৬ মিনিটে শুধু hp2 এর স্থলে h2 বসিয়ে সংশোধিত লেখা একটি বার্তা পাঠানো হয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে।

 

 

শিক্ষার্থীদের ভাষ্য, “গণমাধ্যম ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফল প্রকাশের বিষয়টি জানা যায়। সেখানে যতি ভুল বার্তা থাকে তাহলে সকলে ভুল করাটা স্বাভাবিক। এছাড়া যেকোন ফল প্রকাশ বা ভর্তির ফরম পূরণসহ গুরুত্বপূর্ণ সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ওয়বেসাইট স্লো থাকে। তখন বাধ্য হয়েই ১৬২২২ নম্বরে মেসেজ পাঠিয়ে ফল জানতে হয়। আর সেখানে যদি ভুল বার্তা থাকে তাহলে ধরে নেওয়া যায় কর্তৃপক্ষ ভুল নয় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতারণা করছে।”

 

 

দেখা যায়, একবার মেসেজ পাঠালে খরচ হয় ২টাকা ৪৪ পয়সা। পরীক্ষায় তিন লাখ ২৭ হাজার ৮৮৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। এরা যদি একবার করে ভুল মেসেজ পাঠায় তাহলে খরচ হবে ৮ লাখ টাকার বেশি। আর গড়ে যদি অর্ধেক শিক্ষার্থী ফল জানতে মেসেজ পাঠিয়ে থাকে তাহলে চার লাখের অধিক। যদি কেউ একাধিকবার ভুল মেসেজ পাঠিয়ে থাকে তাহলে এর পরিমাণ আরও বেশি।আবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট দুর্বল থাকায় মেসেজের মাধ্যমে সঠিক কোড লিখে ফল জানতে হয়। তখনও একই পরিমাণ টাকা খরচ হয়। এতে করে দেখা যায় একটি ভুল ও একটি সঠিক মেসেজে শিক্ষার্থীর ৪টাকা ৮৮ পয়সা খরচ হয়। আর ৩ লাখ ২৭ হাজার ৮৮৬ জন পরীক্ষার্থী ক্ষেত্রে টাকার পরিমান হয় ১৬ লাখের অধিক।

 

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দপ্তর থেকে পাঠানো দুটি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এবার ৩০ টি বিষয়ে দেশের ৬৭৪ টি কলেজের তিন লাখ ২৭ হাজার ৮৮৬ জন পরীক্ষার্থী ২৩৪ টি কেন্দ্রে ওই পরীক্ষায় অংশ নেয়। এদের মধ্যে নিয়মিত এক লাখ ৯২ হাজার ৭৫৬ জন, মানোন্নয়ন এক লাখ ২৪ হাজার ২০২ জন ও অনিয়মিত ১০ হাজার ৯২৮ জন শিক্ষার্থী। উত্তীর্ণের হার ৯৫ দশমিক ৩০ শতাংশ।

 

 

আইটি বিশেষজ্ঞ আনিসুর রহমানের মতে, শুধু জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় নয় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, সকল শিক্ষাবোর্ড ও চাকরির পরীক্ষাসহ বহু ধরণের ফি সরকারি মুঠোফোন অপারেটর টেলিটকের মাধ্যমে প্রদান করা হয়। শিক্ষার্থীরা যখন বিভিন্ন অপারেটর থেকে মেসেজ পাঠায় তখন সাথে সাথে নির্ধারিত ফি কেটে নেওয়া হয়। ওই টাকার একটি অংশ যেমন টেলিটক পায় তেমনি একটি ক্ষুদ্র অংশ বিশ্ববিদ্যালয়ও পাওয়া কথা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দপ্তরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মো. ফয়জুল করিম বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় মেসেজের কমিশন পায় কি না বিষয়টি আমার জানা নেই।’

যেকোন ফল প্রকাশ হলেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইটের গতি কমে যাওয়া প্রসঙ্গে মো. ফয়জুল করিম বলেন,  ঠিকাদারদের কাছ থেকে সার্ভার কিনি আমরা। টেন্ডারের মাধ্যমে কিনতে হয়। দেখা গেল, তাদের একটা বললে, করে আরেকটা।

 

 

 

বিশ্ববিদ্যালয় কারিগরি বিষয় না বুঝায় ঠিকাদাররা ঠকাচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি  বলেন, “খরচ হচ্ছে কিন্তু সার্ভিস পাচ্ছি না। সরাসরি কিছু কেনার সুযোগ আমাদের নেই। সব ই-টেন্ডারের মাধ্যমে কিনতে হয়। ই-টেন্ডারে কারা বিক্রয় করছে তাও জানা নেই তার”

 

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD