1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ১২:৪৬ অপরাহ্ন
হেড লাইন
১২৯০ টি ডাস্টবিন বিতরণ করেছে ওয়ার্ল্ডভিশন সুনামগঞ্জে আমির হোসেন রেজার প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করলেন সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের ১১ মেম্বার শান্তিগঞ্জে ব্যবসায়ীর ওপর দুর্বৃত্তের হামলা, টাকা-মোবাইল লুট কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে নয়া ইউএনও’র মতবিনিময় সভা শান্তিগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলন ও হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বমেক কোম্পানীগঞ্জ সীমান্তে খাসিয়ার গুলিতে নিহত ২ বাংলাদেশীর লাশ হস্তান্তর কানাইঘাটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ফাহিমের ত্রান বিতরণ লন্ডনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তাহমিনার কৃতিত্ব জগন্নাথপুরে বন্যায় সড়কে বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন মানুষের ভোগান্তি! সাংবাদিক ওমর ফারুক নাঈমকে হুমকি, থানায় জিডি

আসারামের বিপুল সম্পত্তি এখন কার অধীনে?

  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৫৭৪ শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

নাবালিকা ধর্ষণে আজীবন সাজাপ্রাপ্ত ভারতের স্বঘোষিত ধর্মগুরু আসারাম বাপু বাকি জীবনটা জেলের চার দেয়ালের মধ্যেই কাটাতে চলেছেন।

প্রশ্ন হল, এখন আসারামের বিলাসবহুল বাংলো, চারশোর বেশি আশ্রম, চল্লিশের বেশি স্কুল, কয়েক হাজার একর জমি, ব্যবসা এবং কোটি কোটি টাকার সম্পত্তির কী হবে? এখন এগুলোর দেখভাল কে করবে?

এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আসারামের মোট সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা!

আসারামের ছেলে নারায়ণ সাইও বাবার মতো জেলে বন্দি রয়েছে। ধর্ষণ, মারপিঠ ও হত্যার মতো একাধিক মামলা চলছে তার বিরুদ্ধে। যা পরিস্থিতি, সেখান থেকে ছাড়া পাওয়ার সম্ভাবনাও ক্ষীণ। এই পরিস্থিতিতে গোটা এস্টেট ও ব্যবসার ভার ও দায়িত্ব এসে পড়েছে আসারামের মেয়ে ভারতীশ্রীর ওপর।

এক্ষেত্রে অনেকেই এই ঘটনার সঙ্গে ধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত হওয়া আরেক ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম ইনসানের মিল পাচ্ছেন। সেক্ষেত্রেও, গুরমিত জেলে যাওয়ার পর গোটা সম্পত্তির মালকীন হয় তার পালিত কন্যা হানিপ্রীত। যদিও, বর্তমানে সেই মেয়েও জেলে রয়েছে।

জানা গেছে, ইতিমধ্যেই গোটা ব্যবসার দায়িত্ব নিজে তুলে নিয়েছেন আসারামের কন্যা ভারতীশ্রী। তার নির্দেশমতোই সব কিছু হচ্ছে।
এখানে বলে রাখা প্রয়োজন আসারামের মতোই তার মেয়েও ধর্মীয় বক্তৃতা দেন। পাশাপাশি, তিনি ভক্তি-গীতিও গান। বিগত কয়েক বছর ধরেই ব্যবসায় মনোনিবেশ করেছেন ভারতীশ্রী।

জানা গেছে, দেশের বিভিন্ন রাজ্য ও কেন্দ্র-শাসিত অঞ্চলে আসারামের ৪০০-র বেশি আশ্রম রয়েছে। আশ্রমগুলোতে মাঝেমাঝেই দর্শন করেন ভারতীশ্রী। বৈঠক করেন সেখানকার কর্মকর্তাদের সাথে। তাকে এই বিষয়ে সাহায্য করেন মা লক্ষ্মীদেবী।

২০১৩ সালে যখন আসারামের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে, সেই সময় গুজরাতের সুরাত থেকে ভারতীশ্রী ও লক্ষ্মীদেবীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। দুজনের বিরুদ্ধেই অভিযোগ, এই মামলায় তারা আসারামকে সাহায্য করেছেন। যদিও, পরে দুজনই জামিন পেয়ে যান।

আরেকটি প্রশ্ন যেটা সকলের মনে উঠছে তা হল, কী করে স্রেফ ধর্মীয়-প্রবচন দিয়ে এত বিপুল সম্পত্তির মালিক হল আসারাম? সাতের দশকে সবরমতী নদীর তীরে একটি ঝুপড়িতে থাকত আসারাম। সেখানে থেকে বর্তমানে ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি সম্পত্তির উৎস কী?

জানা গেছে, দেশভাগের সময় বাবা-মার সঙ্গে পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশের আমদাবাদ থেকে ভারতে এসেছিল আসারাম। মনিনগরের একটি স্কুলে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করে আসারাম। বাবার মৃত্যুর পর লেখাপড়া ছাড়তে হয়। কিছুদিন ছোটখোটো চাকরি করার পর ‘আধ্যাত্মিক খোঁজে’ হিমালয়ে যায় আসুমল ওরফে আসারাম। সেখানে তার সাক্ষাত হয় গুরু লীলাশাহের সঙ্গে।

জানা গেছে, ১৯৬৪ সালে ওই গুরুই তার নাম আসারাম দিয়েছিলেন। এরপর, গুজরাতের আহমেদাবাদে ফিরে আসে আসারাম। মোতেরায় সবরমতীর তীরে তপস্যা শুরু করে। ১৯৭২ সালে নদীর তীরে ‘মোক্ষ কুটীর’ স্থাপন করে আসারাম। বলা যেতে পারে, সেখান থেকেই আধ্যাত্মিক গুরু হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায় আসারাম। কয়েক বছরের মধ্যেই তার ঝুপড়ি আশ্রমে পরিণত হয়।

মেয়েদের ধর্ষণ করলেও পাপ হয় না আসারামের!

 

মেয়েদের ধর্ষণ করা তার মতো ‘ব্রহ্মজ্ঞানী’ মানুষের জন্য পাপ নয়! এমনটাই না কি বিশ্বাস করতেন আসারাম বাপু! আদালতে এই জবানবন্দি দিয়েছেন এক সাক্ষী।

বুধবার শেষ হয়েছে আসারাম-মামলা। পাঁচ বছর আগে এক নাবালিকাকে ধর্ষণ করার অপরাধে স্বঘোষিত ধর্মগুরুকে দোষী সাব্যস্ত করে যোধপুরের একটি আদালত। তাকে আজীবন হাজতবাসের সাজা দেয়া হয়।

৪৫৩ পাতার রায় থেকে জানা গেছে, রাহুল কে সাচার নামে আসারামের এক ভক্ত সাক্ষ্য দেন। সেখানে তিনি দাবি করেন, যৌন-সক্ষমতা বাড়াতে বিভিন্ন ধরনের ওষুধ নিতেন আসারাম।

আসারামের ঘনিষ্ঠ অনুগামী হওয়ার দরুন সাচারের অবাধ যাতায়াত ছিল আসারামের ‘কুটিয়া’-তে। জানান, ২০০৩ সালে রাজস্থানের পুষ্কর, হরিয়ানার ভিবানী এবং গুজরাতের আহমেদাবাদে তিনি নিজের চোখে আসারামকে মেয়েদের শ্লীলতাহানি করতে দেখেছেন।

আদালতে দেয়া সাচারের জবানবন্দি অনুযায়ী, আসারামের সাথে তিন মহিলা অনুগামী সবসময় ঘুরতেন। তাদের সঙ্গে নিয়ে আশ্রম পরিদর্শনে বের হতেন আসারাম। কোনো মেয়েকে পছন্দ হলে, আসারাম সেই পছন্দ হওয়া মেয়েদের ওপর টর্চের আলো ফেলতেন। সেই অনুযায়ী, এই তিন মহিলা সহযোগী মেয়েদের নিয়ে চলে যেতেন আসারামের কুটিয়াতে।

সাচার জানিয়েছেন, তার সন্দেহ হওয়ায় একদিন কুটিয়ার পাঁচিল টপকে তিনি দেখেন, আসারাম একটি মেয়ের শ্লীলতাহানি করছে। রাঁধুনীর মাধ্যমে আসারামকে তিনি চিঠি লেখেন। কোনো উত্তর না আসায় ফের চিঠি লেখেন। তাতেও কোনো উত্তর না আসায় তিনি সরাসরি আসারামকে প্রশ্ন করেন, কেন এভাবে মেয়েদের ওপর অত্যাচার করা হচ্ছে?

সাচারের জবানবন্দি অনুযায়ী, তখন আসারাম তাকে বলে, এসব করলে ‘ব্রহ্মজ্ঞানী’-দের পাপ লাগে না। একজন ‘ব্রহ্মজ্ঞানী’ হয়ে কীভাবে তার মনে এই লালসা-বাসনা থাকতে পারে প্রশ্ন করায় আসারাম নিরাপত্তারক্ষীদেপ নির্দেশ দেয়, তাকে বাইরে ধাক্কা মেরে বের করে দিতে।

সাচারের দাবি, বিকৃত কাম মেটানোর জন্য বিভিন্ন যৌন উদ্দীপক ওষুধ খেতেন আসারাম। একই সাথে আফিমও সেবন করতেন। আফিমের কোড ছিল ‘পঞ্চবটি’।

সাচার আরও জানান, আসারামের সঙ্গে যে তিন মহিলা সহযোগী ছিল তারা ধর্ষিতা মেয়েদের গর্ভপাতও করাতেন।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD