1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ১১:৩৬ পূর্বাহ্ন
হেড লাইন
১২৯০ টি ডাস্টবিন বিতরণ করেছে ওয়ার্ল্ডভিশন সুনামগঞ্জে আমির হোসেন রেজার প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করলেন সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের ১১ মেম্বার শান্তিগঞ্জে ব্যবসায়ীর ওপর দুর্বৃত্তের হামলা, টাকা-মোবাইল লুট কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে নয়া ইউএনও’র মতবিনিময় সভা শান্তিগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলন ও হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বমেক কোম্পানীগঞ্জ সীমান্তে খাসিয়ার গুলিতে নিহত ২ বাংলাদেশীর লাশ হস্তান্তর কানাইঘাটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ফাহিমের ত্রান বিতরণ লন্ডনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তাহমিনার কৃতিত্ব জগন্নাথপুরে বন্যায় সড়কে বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন মানুষের ভোগান্তি! সাংবাদিক ওমর ফারুক নাঈমকে হুমকি, থানায় জিডি

মেট্রোরেলের একটি স্প্যান তুলতেই দেড় বছর পার

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১১০৯ শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

রাজধানীর উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০.১ কিলোমিটার মেট্রোরেল নির্মাণে ২০১৩ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা জাইকার সাথে চুক্তি করে সরকার। তবে মেট্রোরেলের কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয় এর তিন বছর পর ২০১৬ সালের ২৬ জুন। কিন্তু কাজ শুরু হয় আরো পরে। গত বছরের ১ আগস্ট উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার কাজের উদ্বোধন করা হয়।

 

এ অংশের কাজ এখন চলছে। মাঝখানে গুলশানের হোলে আর্টিজান রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসী হামলায় প্রকল্পের সাত জাপানি পরামর্শক নিহত হওয়ায় নির্মাণকাজ থমকে যায়। উদ্বোধনের দেড় বছর পর সম্প্রতি উত্তরার দিয়াবাড়িতে দু’টি পিলারের ওপর একটি স্প্যান স্থাপন করা হয়েছে। আগারগাঁওয়ে আরেকটি স্প্যান বসাতে দু’টি পিলার নির্মাণের কাজ চলছে।

এ অংশের কাজ আগামী বছরের ডিসেম্বরে শেষ করার কথা। ৩৭৭টি পিলারের ওপর এ রকম ৩৭৬টি স্প্যান বসে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত বিস্তৃত হবে মেট্রোরেল। আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত অংশের কাজ শেষ করার কথা ২০২০ সালে; কিন্তু এ অংশে দৃশ্যমান কোনো কাজই হয়নি। ফলে মেট্রোরেল সময়মতো শেষ হওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। এ দিকে মেট্রোরেল নির্মাণের কারণে দীর্ঘ দিন থেকে যানজট, ধুলাসহ নানা সমস্যায় ভুগতে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসীসহ সড়ক ব্যবহারকারীদের।

সরেজমিন মেট্রোরেল প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বর্তমানে আগারগাঁও থেকে উত্তরার দিয়াবাড়ি পর্যন্ত মেট্রোরেল নির্মাণের কাজ চলছে। আগারগাঁও পরিকল্পনা কমিশনের প্রান্তে দু’টি পিলার নির্মাণের কাজ চলছে গত দেড় মাস ধরে। তবে পিলার দু’টি নির্মাণ এখনো সম্পূর্ণ হয়নি। এ পিলার দু’টি নির্মিত হলে মেট্রোরেলে উঠবে দ্বিতীয় স্প্যান। এর আগে উত্তরার দিয়াবাড়িতে প্রথম স্প্যান স্থাপন করা হয় গত পয়লা বৈশাখ। মেট্রোরেল নির্মাণে আগারগাঁও থেকে কাজীপাড়া, মিরপুর-১০, পল্লবী হয়ে ক্যান্টমেন্টের ভেতর দিয়ে কাজ চলছে।

 

এ জন্য সড়কের দু’দিক থেকে কিছু অংশ নিয়ে মাঝখানে বেড়া দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে মেট্রোরেলের কাজে ব্যবহৃত বড় বড় ক্রেন, পাইলিং যন্ত্রপাতিসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি রাখা হয়েছে। এ ছাড়া অবকাঠামো নির্মাণে ব্যবহৃত সিমেন্ট, ইট, বালু ও সুড়কিও রয়েছে সেখানে। শ্রমিকেরা নির্দিষ্ট পোশাক পরে কাজ করছেন। তবে আগারগাঁও থেকে পল্লবী পর্যন্ত কোনো পিলার নির্মাণ হয়নি। পল্লবীর মিলি মটরসের মালিক বাবু জানান, গত চার মাস থেকে সেখানে কাজ চলছে। প্রথমে ধীর গতি হলেও বর্তমানে কিছুটা গতি বেড়েছে। তবে এ্খনো কোনো অবকাঠামো গড়ে ওঠেনি। কাজ সময়মতো শেষ হওয়া নিয়ে সন্দিহান মেট্রোরেলে কর্মরত শ্রমিকেরাও। নাম না প্রকাশ করার শর্তে এক নির্মাণশ্রমিক বলেন, কাজের যে গতি তাতে আগারগাঁও থেকে উত্তরা পর্যন্তের কাজ ২০২৩ সালেও শেষ হবে না।

প্রকল্প এলাকায় দেখা যায়, প্রতিটি সড়কেই যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। বিশেষ করে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এবং বিকেল থেকে গভীর রাত অবধি ঘণ্টার পর ঘণ্টা সড়কে আটকে থাকছে গাড়ি। আগে প্রকল্প এলাকার রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির কারণে প্রায় এক বছর চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় এলাকাবাসীকে। সম্প্রতি পিচ ঢালাই দেয়ার কারণে সড়কের উন্নতি হয়েছে, তবে সরু রাস্তার কারণে যানজট লেগেই থাকছে। এ ছাড়া রাস্তার সামগ্রিক উন্নতি হলেও এখনো বেশ কিছু জায়গায় গর্ত রয়েছে। এর মধ্যে মিরপুর-১২ পল্লবীতে গত ১৮ এপ্রিল গর্তে পড়ে একটি কাভার্ড ভ্যান উল্টে যায়।

 

গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে কয়েকটি স্থানের রাস্তার অবস্থা বেহাল হয়ে গেছে। বিশেষ করে পল্লবীর এ ব্লকের সাত নম্বর রোডের মাথায় গোল্ডেন সান বাংলা রেস্টুরেন্টের সামনের রাস্তায় কাদাপানিতে চলাচল দায় হয়ে পড়েছে। এ ছাড়া মিরপুর-১২ ফুড গ্যালারির সামনের সড়কের অবস্থাও খুবই করুণ। মিরপুর-১০-এর পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনেও রয়েছে বড় বড় গর্ত। মোহাম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটি থেকে আব্দুল্লাহপুরগামী তেতুলিয়া পরিবহনের সুপারভাইজার বাবু গাজী জানায়, আগে পুরো পথ যেতে এক ঘণ্টা লাগত; কিন্তু এখন সাড়ে তিন থেকে চার ঘণ্টা লাগছে। বিশেষ করে তালতলা থেকে মিরপুর-১২ নম্বর পর্যন্ত অংশ পার হতেই দুই ঘণ্টা লেগে যাচ্ছে।

 

সিএনজি চালক মো: উজ্জ্বল বলেন, আগে পল্লবীর পূরবী মোড় থেকে আগারগাঁও যেতে ৪০ মিনিট লাগত। এখন দেড় ঘণ্টায়ও যাওয়া যায় না। বেশি সময় লাগায় ভাড়া বেশি নেন কি না জানতে চাইলে উজ্জ্বল বলেন, আগে ভাড়া নিতাম দেড় শ’ টাকা, এখন সময় ও গ্যাস বেশি লাগে এ জন্য ভাড়া ১৮০ থেকে ২০০ টাকা নিই।

বাংলা মোটরের একটি বেসরকারি ব্যাংকে চাকরি করেন আরিফুর রহমান। পল্লবী থেকে বাংলা মোটর অফিসে যান মোটরসাইকেলে। পূরবী ১০ নম্বর-শেওড়াপাড়া-আগারগাঁও এ পথটুকু পাড়ি দিতে আগে সময় লাগত আধা ঘণ্টা থেকে পৌনে এক ঘণ্টা। এখন সময় লাগছে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা।

একই অবস্থা মিরপুর-১২ নম্বরের বাসিন্দা হুমায়ুন কবীরের। বাসে মতিঝিলে অফিসে যাওয়ার উদ্দেশ্যে আগে রওনা দিতেন সকাল ৮টায়। এখন এক ঘণ্টা আগে রওনা দিলেও অফিসে পৌঁছতে আধা ঘণ্টা, কোনো কোনো দিন এক ঘণ্টাও দেরি হয়। এটা এখন নিত্যদিনের চিত্র।
যানজটের পাশাপাশি ধুলার কারণেও ভুগতে হচ্ছে এলাকাবাসীকে। এর পাশাপাশি রয়েছে তীব্র শব্দদূষণও। উন্নয়নের কর্মযজ্ঞে একপ্রকার অতিষ্ঠ এলাকার মানুষ। তারা দ্রুত এ কাজ সম্পন্নের দাবি জানিয়েছেন।

মেট্র্রোরেল বাস্তবায়নকারী ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল) সূত্র জানায়, আটটি প্যাকেজের মেট্রোরেল (এমআরটি লাইন-৬) প্রকল্পের উত্তরা অংশে যে কাজ হচ্ছে এটি ৩ নম্বর প্যাকেজ। এর অধীনে উত্তরা থেকে পল্লবী পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটারের কাজ চলছে। উত্তরা থেকে পল্লবী পর্যন্ত মেট্রোরেলের চারটি স্টেশন থাকবে। এগুলো হলোÑ উত্তরা নর্থ, উত্তরা সেন্টার, উত্তরা সাউথ ও পল্লবী। এরপর পল্লবী থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত আরো ৬ কিলোমিটারে পাঁচটি স্টেশন থাকবে।

ডিএমটিসিএল প্রকল্প অনুযায়ী, প্যাকেজ ৩ ও ৪-এর কাজ করছে ইতালিয়ান-থাই ডেভেলপমেন্ট পাবলিক কোম্পানি লিমিটেড ও চীনের প্রতিষ্ঠান সিনোহাইড্রো করপোরেশন লিমিটেড। প্যাকেজ-২-এর আওতায় উত্তরায় ডিপো নির্মাণ করছে ইতালি-থাই ও সিনোহাইড্রো। আর প্যাকেজ-১-এর আওতায় ডিপো এলাকায় ভূমি উন্নয়নকাজ করা হচ্ছে। আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল প্রকল্পের প্যাকেজ-৫ ও ৬-এর কাজ চলছে। প্যাকেজ ৭-এ হলো মেট্রোরেলের বৈদ্যুতিক-যান্ত্রিক সব কাজ। বর্তমানে এর মূল্যায়ন কার্যক্রম চলছে। ৮ নম্বর প্যাকেজে রয়েছে রেল কোচ ও ট্র্যাক পরিচালনা রণাবেণ কাজ। আগামী বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে পাঁচ সেট ট্রেন উত্তরা-আগারগাঁও রুটে চালানো শুরু হবে। ২০২১-এর ডিসেম্বরের মধ্যে বাকি ১৯ সেট ট্রেন ও ডিপো যন্ত্রাংশ সরবরাহ শেষ হবে। রেল কোচ আমদানি করা হবে জাপানের গাড়ি প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান কাওয়াসাকি-মিতসুবিশি থেকে। মেট্রোরেলের এ পুরো পথটাই হবে এলিভেটেড (উড়ালপথে)।

প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০.১ কিলোমিটার মেট্রোরেলে মোট ১৬টি স্টেশন থাকবে। সড়কের ওপর এসব স্টেশন নির্মাণ করা হবে। বিদ্যুৎচালিত এ ট্রেনের গতি হবে ঘণ্টায় গড়ে ৩২ কিলোমিটার। উত্তরা থেকে মতিঝিল আসতে সময় লাগবে মাত্র ৩৭ মিনিট। ছয়টি করে বগির ১৪টি ট্রেনে প্রতি ঘণ্টায় উভয় দিক থেকে ৬০ হাজার যাত্রী চলাচল করতে পারবে।

প্রতিটিতে এক হাজার ৬৯৬ জন যাত্রী চলতে পারবে। এরমধ্যে আসনে বসতে পারবে ৯৪২ জন এবং দাঁড়িয়ে থাকবে ৭৫৪ জন। প্রতি ৪ মিনিট পর ট্রেন ছেড়ে যাবে। কর্মকর্তারা জানান, প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা (জাইকা) দেবে ১৬ হাজার ৫৯৫ কোটি টাকা। আর সরকার দেবে পাঁচ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা।

এ ব্যাপারে কথা বলতে মেট্রোরেলের আগারগাঁওয়ের প্রকল্প অফিসে গিয়ে পরিচালক আফতাব উদ্দিন তালুকদার অফিসে না থাকায় সাক্ষাৎ পাওয়া যায়নি। পরে টেলিফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD