1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১২:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রানীগঞ্জ সেতুতে কিশোর গ্যাং, টিকটকার ও বখাটেদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে পুলিশ কানাইঘাটের জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান নাসির খানের মতবিনিময় সভা শাকিব-বুবলীর বিয়ে হয় নারায়ণগঞ্জে, ‘তাদের বিচ্ছেদ হয়নি’ কানাইঘাটে বিজিবির ধাওয়ায় ভারতীয় নাসির বিড়ি বোঝাই পিকআপ উল্টে তুলকালাম কান্ড ॥ গ্রেফতার ২ সুনামগঞ্জে এক সাংবাদিকের উপর ২য় দফা হামলা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা কানাইঘাটে আর্ন্তজাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা দেশে আসলেন জগন্নাথপুরের মাউন্ট এভারেস্ট বিজয়ী আকি রহমান সুনামগঞ্জে জয়াসেন মানিক রতন ও ইমনের উদ্যোগে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত ওসমানীনগরে এলজিইডির উদ্যোগে কমিউনিটি সড়ক নিরাপত্তা গ্রুপের সভা দিরাইয়ে কর্মী সমাবেশে ড.জয়া সেনগুপ্তা : সম্প্রীতি আর একতাই অগ্রগতি ও উন্নয়নের পথকে সুগম করে

সে দিনটার কথা মনে করে এখনো চিৎকার করে কাঁদেন আয়েশা

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১০১৩ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সকাল আটটা নাগাদ রানা প্লাজার সামনে আসেন গার্মেন্ট শ্রমিক আয়েশা আক্তার।তার আশঙ্কা ছিল, সেদিন অফিসে না গেলে মাস শেষে বেতন দেবে না কারখানা কর্তৃপক্ষ। মাস শেষ হতে তখন মাত্র ছয়দিন বাকি।মনের ভেতরে এক ধরনের উদ্বেগ আর ভয় নিয়েই তিনি রানা প্লাজার সামনে গিয়েছিলেন।কারণ এর আগের দিন অর্থাৎ ২৩শে এপ্রিল রানা প্লাজা ভবনে ফাটল দেখেছিলেন অনেক শ্রমিক।

রানা প্লাজা ভবনের সপ্তম তলায় নিউ ওয়েভ স্টার লিমিটেড কারখানায় অপারেটর হিসেবে কাজ করতেন আয়েশা আক্তার।তিনি বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘২৩ তারিখ আমাদের বলা হইছিল ৯ তলায় কারেন্টের কাজ করবে। সকালে ছুটি দিয়ে বলা হইছিল যে লাঞ্চের পর আসার জন্য। দুইটার দিকে আইসা দেখি যে লোকজন সবাই নিচে দাঁড়ায়ে আছে। কেউ উপরে যায় না। কিন্তু বাইরে থেকে দেখা গেছে জানালার সাইড দিয়া ফাটা। সেদিন সবাইকে ছুটি দেয়া হয়েছিল। বিল্ডিং-এ আর কেউ ঢুকেনি। ’

২৪ এপ্রিল সকালে রানা প্লাজার সামনে এসে আয়েশা আক্তার দেখলেন, কেউ ভবনের ভেতরে যাচ্ছে, আবার অনেকে বাইরে দাঁড়িয়ে আছে।‘তখন মালিকরা আর বিল্ডিং-এর মালিক রানা গালাগালি করতাছে লোকজনদের। অনেকদের মাইর-ধইর কইরা উঠাইছে। শেষ পর্যন্ত আমি উঠলাম’, বলছিলেন তিনি।

পাঁচ বছর আগের সে ভয়ঙ্কর দিনটির কথা মনে করে এখনো চিৎকার করে কাঁদেন আয়েশা আক্তার।সেদিন শ্রমিকরা চাপে পড়ে ভবনের ভেতরে ঢুকলেও তারা কাজে মনোযোগ দিতে পারছিলেন না।তখন কারখানার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসে তাদের শাসিয়ে যান বলে অভিযোগ করেন আয়েশা আক্তার।‘তারপর গিয়ে বসলাম। আমি এক পিছ কাজ করছি মাত্র। হঠাৎ করে এমন জোরে আওয়াজ হইল, পিছন দিকে ফিরে তাকানোর সময়টুকু ছিল না।’

সকাল ৮:৪৫ মিনিটের দিকে বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায় জেনারেটর চালু করা হয়।জেনারেটর চালু করার সাথে সাথেই বিকট আওয়াজ হয় বলে জানান আয়েশা আক্তার।সে সময়ের বর্ণনা দিতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন আয়েশা আক্তার।‘বিশ্বাস করবেন না। আমি এমন জোরে দৌড় দিছি.. আল্লাহ হায়াত রাখছে..।’দৌড়াতে গিয়ে মেঝেতে পড়ে জ্ঞান হারান তিনি।জ্ঞান ফিরে আয়েশা আক্তার দেখেন, তিনি ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়েছেন।তার বাম হাত এবং বাম পা আটকে যায় কংক্রিটের নিচে।

সে বর্ণনা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘চুল যে রকম বেনি করি, সেই রকম বাম হাত আর বাম পা পিইষা ছিল। তখন আমি বললাম, ভাইয়া আমারে বাঁচান, হাতটা ছুটায়া দেন। আমার মনে শক্তি আছে। আমি পারবো। আমি ঐখান থেকে বের হতে পারবো।’আয়েশা আক্তার যেখানে আটকা পড়েছিলেন সেখানে কিছু ভাঙ্গা লোহা ছিল।সে লোহা দিয়ে তাঁর আটকে পড়া সহকর্মীরা সারাদিন শুয়ে থেকে ধীরে-ধীরে একটু একটু করে কংক্রিটের স্লাব ভাঙতে থাকেন।

আশপাশে তারা উদ্ধার কর্মীদের আওয়াজ শুনতে পাচ্ছিলেন। কিন্তু আটকে পড়াদের চিৎকার উদ্ধার-কর্মীদের কানে পৌঁছাচ্ছিল না।কান্নাজড়িত কণ্ঠে আয়েশা আক্তার বলেন, ‘আমরা সবার কথা শুনতেছি। কিন্তু আমাদের কথা কেউ শুনে না। আমরা যে চিৎকার করতেছি, বাঁচাও-বাঁচাও বলতেছি, কেউ শোনে না।’

আটকেপড়াদের আর্তনাদ একপর্যায়ে একজন উদ্ধারকারীর কানে পৌঁছায়।তারপর উদ্ধারকারীরা এসে ছাদ কেটে তাদের বের করে।আয়েশা আক্তারের যখন জ্ঞান ফেরে তখন তিনি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের বিছানায়।সৌভাগ্যক্রমে তার আঘাত তেমন একটা গুরুতর ছিল না।

পরের দিন হাসপাতাল ছাড়ার অনুমতি দেন চিকিৎসকরা।সেই থেকে আর কোনো কারখানায় কাজ করেন না তিনি।

পাঁচ বছর আগের সে ভয়ঙ্কর স্মৃতি এখনো তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে তাকে।তৈরি পোশাক কারখানার প্রতি মারাত্মক ভীতি তৈরি হয়েছে আয়েশা আক্তারের।তার বর্ণনায়, ‘আমি চাকরি-বাকরি করি না। আমার ভয় লাগে.. পারি না।’

সূত্র: বিবিসি

 

 

আজকের স্বদেশ/ফখরুল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD