1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ksr.france@gmail.com : kawsar Mihir : kawsar Mihir
  6. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১১:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শান্তিগঞ্জে পুজামন্ডপ পরিদর্শনে বিএনপি-যুবদল-স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃবৃন্দ জগন্নাথপুরে পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ৩ জগন্নাথপুরে জমি নিয়ে বিরোধের পলাতক আসামী ১৭ বছর পর জেলে নবীগঞ্জের সুদখোর ও জুয়াড়ী গুলজার বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ তিমিরপুরবাসী জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল মতিন লাকির নির্বাচনী মতবিনিয় সভা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জগন্নাথপুরে লিবিয়ার একুয়ান মৃত্যুর ঘটনায় মানব পাচার মামলা দায়ের জগন্নাথপুরে ৪০ মণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বন্ধন অটুট রাখতে হবে-গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ মিলাদ এমপি জগন্নাথপুরে লতিফিয়া ক্বারী সোসাইটির নগদ অর্থ বিতরণ

ছয় বছরেও কাজ হয়নি খাড়াই-পিঠাপশি সহ নয় গ্রামের রাস্তার

  • আপডেটের সময় : সোমবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১৩০৩ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জ-৩ (দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুর) ও সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক ও দোয়ারাবাজার) এই দুইটি সংসদীয় আসনের শেষ সীমানা এলাকা খাড়াই ও পিঠাপশি। দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পূর্ব পাগলা ও ছাতকের জাউয়া বাজার ইউনিয়নের সংযোগস্থল। সিলেট-সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়ক থেকে খাড়াই, পিঠাপশি, ঘোড়াডুম্বুর, নাজিমপুর, জাইল্যা, চাতারখই, গণিপুর, সাদারাই ও ছয়হাড়ার কিছু অংশসহ প্রায় ৯টি গ্রামের সংযোগ সড়ক।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) সুনামগঞ্জ’র আওতায় এ রাস্তাটি অর্ধ যুগ ধরে বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে। নির্মাণ তো দূরে থাক সংস্কার করানোর জন্যও কেউ মাথা ঘামাচ্ছেন না। কে করাবে কাজ এমন প্রশ্নে চলে গেছে ৬ বছরেরো বেশি সময়। সময়ের পালা বদলে ক্ষমতা বদলালেও বদলায়নি এ রাস্তার ভাঙ্গা দৃশ্য। কারো চোখে পড়েনি এ রাস্তাটি। ২০০৮-২০০৯ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় একবার সংস্কার ও কার্পেটিংএর কাজ করানো হলেও এর পরে আর কোনো কাজ হয়নি এ রাস্তায়। তবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্ত, সুনামগঞ্জ কার্যালয় থেকে বলা হচ্ছে, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর অক্টোবরের দিকে এ রাস্তার কাজ করানো হবে।

 

সিলেট-সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহা-সড়কের ছাতকের জাউয়া বাউয়া বাজার ইউনিয়নের খাড়াই যাত্রী ছাউনির সামনে থেকে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের পিঠাপশিসহ নয় গ্রামের একমাত্র প্রবেশদ্বার খ্যাত রাস্তাটি মহা-সড়কের শুরু থেকে স্থানীয় খাড়াই পয়েন্ট পর্যন্ত প্রায় ৫শ থেকে ৭শ মিটার জায়গা একেবারে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে আছে। দীর্ঘদিন কোনো সংস্কার বা নির্মাণ কাজ না হওয়ায় তৈরি হয়েছে বড় বড় গর্তের। রাস্তার দু’পাশে পর্যাপ্ত মাটির অভাবে কিছুটা অংশ ভেঙ্গেও যাচ্ছে। উপরে বিটুমিনে তৈরি কার্পেটিং উঠে গিয়ে ইটের পুরো অংশও উঠে গিয়েছে। কোনো কোনো জায়গায় একেবারে নিন্মতরের মাটিও ওঠে গেছে। গর্তের মাঝে বৃষ্টির পানি জমা হয়ে ছোট ছোট পুকুর আকার ধারণ করেছে।

কেউ হঠাৎ দেখলে বুঝতেই পারবে না যে, এটি প্রথমে ইট সোলিং, পরে এর উপরে বিটুমিনের কার্পেটিং করা হয়েছিলো। স্থানীয় লোকদের সাথে আলাপ করে জানা যায় যে, রাস্তার কাজ না হওয়ায় অর্ধ যুগেরও বেশি সময় ধরে বেহাল অবস্থায় পরে আছে ছাতকের খাড়াই থেকে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পিঠাপশি গ্রামের রাস্তার প্রায় ৫শ থেকে ৭শ মিটার জায়গা। এজন্য দুর্ভোগের অন্ত নেই এ রাস্তায় চলাচলকারী খাড়াই, পিঠাপশি, ঘোড়াডুম্বুর, নাজিমপুর, জাইল্যা, চাতারখই, গণিপুর, সাদারাই ও ছয়হাড়ার কিছু অংশসহ প্রায় ৯টি গ্রামের বিশ সস্ত্রধিক মানুষের। ভাঙ্গা রাস্তায় চরম ঝুঁকি নিয়ে ছোট যান চলাচল করলেও হরহামেশাই ঘটে সড়ক দূর্ঘটনার মতো ঘটনা। এসব দূর্ঘটনায় এখনো কেউ নিহত না হলেও আহত হচ্ছেন নিয়মিতই। শুধু যে যাত্রী তা কিন্তু নয়, এ রাস্তায় সাধারণ রোগীদের ভোগ করতে হয় অমানবিক কষ্ট। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য এ রাস্তাটি যেনো একটি মরন ফাঁদ।

 

গত বছর ফেব্রুয়ারি মার্চের দিকে পিঠাপশি গ্রামের জহুরা খাতুন (ছদ্মনাম) নামের এক গর্ভবতী মহিলাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় ভাঙ্গা রাস্তার ঝাঁকুনিতে রাস্তার মাঝেই গর্ভপাতের ঘটনা ঘটেছিলো। এছাড়াও প্রতিদিনই বড় বড় গর্তে পরে উল্টে যাচ্ছে রিকশা, অটো রিকশাসহ ছোট ছোট যানবাহন। বছরের শুষ্ক মৌসুমে ধুলোবালুয় একাকার হয় সমস্থ এলাকা। খাড়াই গ্রামের নূর হোসেন বলেন, ‘রাস্তা ভাঙ্গা থাকায় প্রায় সময় গাড়ি উল্টে পরে। আমরা তুলে দেই। গত বছর পিঠাপশির এক গর্ভবতী মহিলা ভাঙ্গা রাস্তার ঝাকুনিতে রাস্তাতেই সন্তান প্রসব করেছেন।

 

 

এ ব্যাপারে জানতে পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আক্তার হোসেনকে বার বার কল দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। জেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী ইকবাল আহমদ বলেন, ‘রাস্তাটি প্রকৃত পক্ষে একটি ‘ভিলেজ রোড’। তাই এতোদিন নজরে পরেনি। প্রাইরোটিও পাচ্ছেনা। ইতোমধ্যে আমরা একটি তালিকা করেছি। সে তালিকায় এই রাস্তার কাজ আছে। আশা করছি আগামী সেপ্টেম্বর অক্টোবরের দিকে রাস্তার কাজটা করাতে পারবো।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD