1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মানুষের ভালোবাসা নিয়ে বাচঁতে চাই -পীর মিসবাহ এমপি অবৈধ অভিবাসীদের ফেরাতে ঢাকার ওপর ইইউ’র চাপ, ভিসা কড়াকড়ির প্রস্তাব সুনামগঞ্জে বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস পালিত জগন্নাথপুরে একটি দোকান আগুনে পুড়ে ছাই: প্রায় ৩লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি আজমিরীগঞ্জে বিয়ের দবিতে প্রেমিকার অনশন সুনামগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতির পিতার মৃত্যুতে জগন্নাথপুর উপজেলা ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের শোক প্রকাশ কানাইঘাট থানার নতুন ওসিকে বরণ ও বিদায়ী ওসিকে সংবর্ধনা প্রদান বেদে পল্লীতে শীতবস্ত্র বিতরণ বার্মিংহাম ওয়েষ্ট মিডল্যান্ড বিএনপি ও বার্মিংহাম সিটি বিএনপির যৌথ উদ্যোগে বিশাল প্রতিবাদ সভা আলিম ১ম বর্ষ ও ফাজিল ১ম বর্ষের নবীন বরণ অনুষ্ঠান-২০২৩ সম্পন্ন

কালবৈশাখীর ছোবলে মুহূর্তেই লণ্ডভণ্ড অনেক এলাকা

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১০৪২ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

কালবৈশাখীর ছোবলে অনেক এলাকা লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। এ পর্যন্ত একজনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। বিভিন্ন এলাকায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

 

লণ্ডভণ্ড ঝালকাঠির বিভিন্ন এলাকা
ঝালকাঠি সংবাদদাতা জানান, ঝালকাঠিতে দুই দফায় কাল বৈশাখী ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়েছে ঝালকাঠির বিভিন্ন এলাকা। প্রচণ্ড ঝড়ো হাওয়ায় লঞ্চঘাটের পল্টুন ছিড়ে সুন্দরবন-১২ লঞ্চসহ ভেসে যায়। গ্যাংওয়ে ও আশেপাশের চারটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ভেঙে নদীতে তলিয়ে গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আজ মঙ্গলবার বেলা পৌনে একটার দিকে কাল বৈশাখী ঝড় শুরু হয়। প্রচন্ড ঝড়ো হাওয়ার ঘরের টিনের চালা ও বিভিন্ন প্রজাতির গাছ উপড়ে পড়ে। বাতাসে লঞ্চঘাটের পল্টুন ছিড়ে যায়। এতে সুন্দরবন-১২ লঞ্চ ও পল্টুনটি নদীতে ভেসে যায়। পরে পল্টুন এলাকার উল্টো দিকে কিস্তাকাঠি নদীর তীরে লঞ্চটি নোঙর করে রাখা হয়। ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় লঞ্চঘাট এলাকার চারটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও দুটি টিকিট বুকিং অফিস।

দ্বিতীয় দফায় বিকেল তিনটার দিকে আবার প্রচন্ড গাতিতে কাল বৈশাখী ঝড় শুরু হয়। এতে জেলার নলছিটি ও রাজাপুর উপজেলাতে অর্ধ শতাধিক বিভিন্ন প্রজাতির গাছ উপড়ে পড়ে। উড়ে যায় বসতঘরের চালা। বন্ধ হয়ে যায় বিদ্যুৎ সংযোগ। খবর পেয়ে ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান সাইফুল্লাহ পনির ও পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার লঞ্চঘাট এলাকা পরিদর্শন করেন।

সুন্দরবন-১২ লঞ্চের মাষ্টার জামাল হোসেন বলেন, প্রচণ্ড ঝড়ো হাওয়া শুরু হলে আমি লঞ্চের সুকান ধরে বসি। কিন্তু বাতাসে পল্টুনের শিকল ছিড়ে লঞ্চসহ নদীতে ভেসে যায়। আমি লঞ্চটি পল্টুনসহ নিয়ন্ত্রণে রেখে নদীর ওপারে নিয়ে যাই। ঘাটের গ্যাংওয়ে নদীতে ডুবে গেছে। আমাদের দুটি টিকিট বুকিং কাউন্টার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।আমাদরে দুটি টকিটি বুককিং কাউন্টার ক্ষতিগ্রস্ত হয়ছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক মো. হামদিুল হক, জলো আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান সাইফুল্লাহ পনির ও পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার।

ত্রিশালে ঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা জানান, ময়মনসিংহের ত্রিশালের কয়েকটি ইউনিয়নে গত তিনদিনের কালবৈশাখী ঝড় ও টানা শিলা বৃষ্টিতে বসতবাড়ি, বোরো ফসল, মৌসুমী ফল ও সবজির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

জানা যায়, উপজেলার মঠবাড়ী, মোক্ষপুর, বৈলরসহ কয়েকটি ইউনয়নের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া গত শনিবার থেকে টানা তিন দিন কালবৈশাখী ঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে শতাধিক ঘরবাড়ি ধসে গেছে। শিলার আঘাতে ছোট ছোট ছিদ্র হয়ে গেছে টিনের চাল। পাকা-আধাপাকা ১ শ’ ২০ হেক্টর বোরো ধান, শাকসবজিসহ অন্যান্য ফসল নষ্ট হয়েছে। এছাড়াও হেলে গেছে প্রায় অনেক জমির ধান গাছ। উপজেলা কৃষি বিভাগ জানায়, মঠবাড়ী, সানকিভাঙ্গা, লালপুর, বৈলর, পাঁচপাড়া ব্লকের ফসলের ক্ষতির পরিমাণ লক্ষণীয়। এসব অঞ্চলে প্রায় ৬০ শতাংশ ফসল নষ্ট হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত আবুল কালাম জানান, শিলা বৃষ্টিতে আমার মত অনেকের বসতঘরের টিনের চালগুলো ছিদ্র ছিদ্র হয়ে গেছে। যারা ধনী তারা হয়তো কোনো না কোনো ব্যবস্থা করতে পারবে। আমার মতো যারা তারা দিনগুলো কোনো রকমে কাটালেও রাত কী ভাবে পার করব তা ভেবে পাচ্ছি না।

মঠবাড়ী গ্রামের রব্বানী, আরিফ ও আমিরুল ইসলামসহ কয়েকজন কৃষক জানান, ধান মাত্র পাকা শুরু হয়েছে এ সময় ঝড় ও টানা শিলা বৃষ্টি সব ধান নষ্ট করে দিয়েছে। নিচু জমির ধান গাছ মাটিতে নুয়ে পড়ে পানির নিচে তলিয়ে গেছে। সবজি ক্ষেত শিলার আঘাতে থেতলে গেছে। এভাবে দুর্যোগ লেগে থাকলে কৃষকদের পথে বসতে হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দ্বীপক কুমার পাল বলেন, কালবৈশাখী ঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে ১ শ’ ২০ হেক্টক বোরো ফসলের ক্ষতি হয়েছে। কয়েকটি ব্লকের ৬০ শতাংশ ধান নষ্ট হয়েছে। শাকসবজি, আম, লিচুসহ অন্যান্য ফসল ও ফলফলাদির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

বাসস জানায়, ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলায় আজ মঙ্গলবার বিকেলে আকস্মিক কালবৈশাখী ঝড়ে একজন নিহত ও ৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ ৪ শতাধিক বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে।
মেঘনায় ঝড়ের কবলে পড়ে নৌকা ডুবে শুকুর মিয়া (৫০) নামে একজন মাঝি মারা যান। তিনি যশোর জেলার বাসিন্দা। যশোর থেকে পাটকাঠি নিয়ে তিনি ভোলার লালমোহনে আসছিলেন।
ঘূর্ণিঝড়ে লালমোহন কলেজিয়েট স্কুলের চালা উড়ে গিয়ে ১০শিক্ষার্থী আহত হয়। আহতদের মধ্যে ৫ জনকে লালমোহন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হচ্ছে, ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী মিথিলা, ৮ম শ্রেণির ছাত্র মাহাদি ও জুগল চন্দ্র, ৯ম শ্রেণির মাইনুদ্দিন এবং ১০ শ্রেণির মাইনুদ্দিন। অন্যান্য শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ সময় মনপুরায় ৩ হাজার বস্তা সিমেন্টসহ একটি কার্গোবোট ডুবে যায়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় বোটটি উদ্ধার করা সম্ভব হলেও প্রায় ১৫ লাখ টাকার সিমেন্ট নষ্ট হয়।
লালমোহন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান রুমি জানান, দুপুরের পর হঠাৎ কালবৈশাখী ঝড় শুরু হয়। মুহূর্তের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের তা-বে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ ৪ শতাধিক বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়। এর মধ্যে ২৫০টি আংশিক ও ১৫০টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়। ঝড়ে অন্তত ১শ’ হেক্টর ফসলী জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলেও জানান তিনি।

 

 

আজকের স্বদেশ/জুয়েল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD