1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মানুষের ভালোবাসা নিয়ে বাচঁতে চাই -পীর মিসবাহ এমপি অবৈধ অভিবাসীদের ফেরাতে ঢাকার ওপর ইইউ’র চাপ, ভিসা কড়াকড়ির প্রস্তাব সুনামগঞ্জে বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস পালিত জগন্নাথপুরে একটি দোকান আগুনে পুড়ে ছাই: প্রায় ৩লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি আজমিরীগঞ্জে বিয়ের দবিতে প্রেমিকার অনশন সুনামগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতির পিতার মৃত্যুতে জগন্নাথপুর উপজেলা ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের শোক প্রকাশ কানাইঘাট থানার নতুন ওসিকে বরণ ও বিদায়ী ওসিকে সংবর্ধনা প্রদান বেদে পল্লীতে শীতবস্ত্র বিতরণ বার্মিংহাম ওয়েষ্ট মিডল্যান্ড বিএনপি ও বার্মিংহাম সিটি বিএনপির যৌথ উদ্যোগে বিশাল প্রতিবাদ সভা আলিম ১ম বর্ষ ও ফাজিল ১ম বর্ষের নবীন বরণ অনুষ্ঠান-২০২৩ সম্পন্ন

ইলিশে নিষেধাজ্ঞাকে সুপার শপের বৃদ্ধাঙ্গুলি

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৬৮৩ বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে

আজকের স্বদেশ ডেস্ক::

প্রজনন মৌসুম বলে ইলিশ শিকার, পরিবহন বিক্রি-সবই নিষিদ্ধ। কিন্তু খোদ রাজধানীতে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে, মোবাইল ফোনে এসএমএস দিয়ে ইলিশ বিক্রি করছে চেইন সুপার শপগুলো।

প্রজনন মৌসুমে ইলিশ শিকারে নানা সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জেলেদের ধরে সাজা দিয়েছে, জরিমানার পাশাপাশি হয়েছে কারাদণ্ড। কিন্তু এই রাজধানীতে ঘোষণা দিয়ে ইলিশ বিক্রি হলেও প্রশাসন এ বিষয়ে নীরব।

৯০ দশকের পর থেকে প্রধানত রমনা বটমূলে বর্ষবরণ উৎসবকে কেন্দ্র করে পান্তা-ইলিশের চল শুরু হয়। পরে তা গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। তবে এই সময়টা ইলিশের বংশ বিস্তারের কাল। তাই এ সময় ইলিশ-পান্তার সংস্কৃতি বাদ দিতে গত কয়েক বছর ধরে সচেতন করার চেষ্টা করছে সরকার। এর অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্ষবরণের আয়োজনে আপ্যায়নে বাদ দেয়া হয়েছে ইলিশ।

তারপরও নববর্ষকে ঘিরে ইলিশের উন্মাদনা একেবারে থেমে গেছে তা নয়। অলি-গলিতে হকাররা গলা হেঁকেই ‘ইলিশ’ ‘ইলিশ’ বলে চিৎকার করছে। এই প্রবণতা থেকে বাদ যাচ্ছে না চেইন সুপার শপগুলোও। চড়া দামেই বিক্রি হলেও রুপালি মাছের চাহিদাও বেশ।

ইলিশ ধরা, পরিবহন, বিক্রয় সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ মাসে এতো ইলিশ ঢাকায় কোথা থেকে এলো এর কোনো উত্তর নেই এসব বিক্রেতাদের কাছে।

ইলিশ মাছ ও জাটকা রক্ষার জন্য সরকার মার্চ-এপ্রিল দুই মাস পদ্মা ও মেঘনা নদীতে অভয়াশ্রম ঘোষণা করেছে। এ সময় মাছ আহরণ, পরিবহন, বিক্রয় এমনকি মজুদও সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

ইলিশ রক্ষায় ২০০৬ সাল থেকে মার্চ-এপ্রিল এ দুই মাসে এই ব্যবস্থা চলছে। এই সময় মাছ ধরতে নিষেধাজ্ঞার কারণে জেলেদেরকে সহায়তাও দেয়া হয়। তারপরও আইন অমান্য করে এ সময়ের মধ্যে কেউ জাটকা আহরণ করলে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা বা দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

কিন্তু এর মধ্যেই চেইন সুপারশপ আগোরার মগবাজার শাখায় গিয়ে থরে থরে সাজানো ইলিশ দেখতে পাওয়া যায়। ওই শাখার একজন বিক্রয় কর্মী বললেন, ‘পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে দেশের সব জায়গায় ইলিশ বিক্রি হচ্ছে। ঢাকার প্রতিটি বাজারে ইলিশ বিক্রি হচ্ছে। আর আমরা যে মাছ বিক্রি করছি তা ফ্রিজিং করা। অনেক আগেই ধরা হয়েছে এসব ইলিশ।’

আগোরায় এক কেজি ওজনের বেশি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে তিন হাজার ৪০০ টাকা কেজি দরে। মাঝারিটা প্রতি কেজি দুই হাজার ৭৫০ টাকা, ছোটগুলো প্রতিটি ৫৪৮ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

মগবাজার মিনাবাজারে গিয়েও দেখা যায় ইলিশের ছড়াছড়ি। সেখানে একেকটি বড় আকারের ইলিশ এক হাজার ৬০০ টাকা থেকে এক হাজার ৭০০ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা যায়, আর ছোটগুলো বিক্রি হতে দেখা হেছে ৫০০ টাকা দরে।

বিক্রয় নিষিদ্ধ সময়ে ইলিশ বেচার বিষয়ে জানতে চাইলে মীনা বাজারের কেউ বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

একই অবস্থা দেখা গেছে আরেক চেইন সুপার শপ স্বপ্নতেও। সেখানেও নিজেদের মতো করে যুক্তি বানিয়ে নিয়েছে বিক্রয়কর্মীরা। আর সেটা হলো, ‘এই মাছ আগের ধরা’।

কিন্তু আইন অনুযায়ী বিক্রি, প্রদর্শনও যে এই সময় নিষিদ্ধ, সে প্রশ্নের কোনো জবাব মেলেনি কারও কাছে।

ইলিশ বিক্রি নিষিদ্ধের কোনো প্রভাব দেখা যায়নি রাজধানীর পাইকারি কাঁচাবাজার বাজার কারওয়ানবাজারে গিয়েও।

মাছ বিক্রেতা আসাদ বলেন, পয়লা বৈশাখকে সামনে রেখে তারা বড় বিক্রির আশায় থাকেন।

‘এইবার ইলিশের আমদানি বেশি। সারা বছরই কম দামে বেচছি। তয় অহন দাম মেলা বাড়ছে।’

মাছ বিক্রি নিষিদ্ধ থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে চেইন সুপার শপের বিক্রয় কর্মীদের মতো কারওয়ানবাজারের বিক্রেতা আসাদও তার মতো করে একটা ব্যাখ্যা দাঁড় করালেন। বলেন, ‘নিষেধ তো নদীতে। সাগরে তো নিষেধ না। এহন বাজারে যেই ইলিশ দেহেন, হের সবই সাগরে, আর কিছু বরফের মাছ।

কারওয়ান বাজারে ইলিশ মাছ কিনতে এসেছেন কামাল হোসেন। তিনি বলেন, ‘পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে পরিবারের সবার ইলিশ খাওয়ার প্রতি একটু আগ্রহ আছে। দাম হলেও সন্তানদের প্রতি তাকিয়ে ইলিশ কিনতে হচ্ছে। ইলিশ না হলে পহেলা বৈশাখ জমে না।’

মৎস্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, নিষেধাজ্ঞার অন্তর্ভুক্ত ইলিশ অভয়াশ্রমগুলো হলো চাঁদপুরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চর আলেক্সান্ডার পর্যন্ত মেঘনা নদীর নিম্ন অববাহিকার ১০০ কিলোমিটার, ভোলার মদনপুর চর ইলিশা থেকে চর পিয়াল পর্যন্ত মেঘনা নদীর শাহবাজপুর চ্যানেলের ৯০ কিলোমিটার এবং ভোলার ভেদুরিয়া থেকে পটুয়াখালীর চর রুস্তম পর্যন্ত তেঁতুলিয়া নদীর ১০০ কিলোমিটার এলাকা, চাঁদপুরের ষাটনল হতে হাইমচর উপজেলার চরভৈবরীর শেষ প্রান্ত চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত প্রায় একশত কিলোমিটার নৌ-পথে কোনো জাল ফেলে মাছ আহরণ করা যাবে না।

 

 

আজকের স্বদেশ/ফখরুল

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2022 আজকের স্বদেশ
Design and developed By: Syl Service BD