1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন
হেড লাইন
১২৯০ টি ডাস্টবিন বিতরণ করেছে ওয়ার্ল্ডভিশন সুনামগঞ্জে আমির হোসেন রেজার প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করলেন সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের ১১ মেম্বার শান্তিগঞ্জে ব্যবসায়ীর ওপর দুর্বৃত্তের হামলা, টাকা-মোবাইল লুট কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে নয়া ইউএনও’র মতবিনিময় সভা শান্তিগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলন ও হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বমেক কোম্পানীগঞ্জ সীমান্তে খাসিয়ার গুলিতে নিহত ২ বাংলাদেশীর লাশ হস্তান্তর কানাইঘাটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ফাহিমের ত্রান বিতরণ লন্ডনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তাহমিনার কৃতিত্ব জগন্নাথপুরে বন্যায় সড়কে বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন মানুষের ভোগান্তি! সাংবাদিক ওমর ফারুক নাঈমকে হুমকি, থানায় জিডি

জগন্নাথপুরে ধান কাটা শুরু হলেও শেষ হয়নি বাঁধের কাজ

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১০ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১০৭৫ শেয়ার হয়েছে

শহীদ নূর আহমেদ,জগ্নাথপুর থেকে ফিরে::
জেলার বিভিন্ন হাওরে শুরু হয়েছে ধান কাটা। আর সপ্তাহ খানেক সময় পর হাওরে পুরোদমে শুরু হয়ে যাবে ধান কাটা। জেলার অনেক হাওরে ধান কাটা শুরু হলেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুর উপজেলার কয়েকটি বাঁধের কাজ। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নতুন নীতিমালা অনুযায়ি বাঁধ নির্মাণের শেষ সময় গত ২৮ ফেব্রুয়ারি পার হওয়ার পর আরো দুই দফা নির্মাণ মেয়াদ বাড়ালেও কাজ শেষ না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাওরপাড়ের কৃষকরা।

 

প্রকৃতির প্রতিকুলতায় যদি আবারো অকাল বন্যা দেখা দেয় তাহলে এ বছরও সব কিছু হারানোর শঙ্কা প্রকাশ করেছেন পাইলগাঁও ইউনিয়নের বড় বন্দের হাওর, খানপুরের হাওর, জালালপুরের হাওর, গুৎগাঁয়ের হাওরসহ কয়েকটি হাওরের কয়েক হাজার কৃষক। তাই দ্রুত সময়ের মধ্যে বাঁধের কাজ সম্পন্ন করতে সংশ্লিষ্টদের অনুরুধ জানিয়েছেন কৃষকরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলার ৯নং পাইলগাঁও ইউনিয়নের প্রায় ১০ লক্ষ টাকা বরাদ্দে ১১৩ নং পিআইসির সুরাইয়া বিবিয়ানা প্রকল্পের ২কিঃমিঃ ৩৩২ মিটার ডুবন্ত বাঁধের ভাঙ্গা বন্ধকরণ, মেরামত রক্ষণাবেক্ষণ কাজ এখনও শেষ হয়নি। এই প্রকল্পে মশায়ান ও জালালপুরে ক্লোজারে কোন মাটি পড়েনি।প্রকল্পের আওতাভূক্ত বিশ্ব রোডের মুখ থেকে সিরাজ মিয়ার বাড়িসহ মশায়ান এলাকার প্রায় ৫০০ মিটার নিচু স্থানে মাটি না পড়ায় অরক্ষিত রয়েছে এলাকার ছোট বড় অসংখ্য হাওর। এই প্রকল্পে যে স্থানে মাটি ফেলা হয়েছে তার উচ্চতা ও দৈর্ঘ্য কোনটাই নিয়ম অনুযায়ি নয় বলে জানান স্থানীয়রা। বাঁধের নামে নামমাত্র মাটি ফেলা হয়েছে বলে অবিযোগ করেছেন তারা। এই পিআইসির সভাপতি টিপু সুলতান স্থানীয় চেয়ারম্যানের ভাগ্না হওয়ায় বাঁধে সঠিক কাজ না করে নানা অজুহাত দেখিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান তারা।

 

এদিকে ২০ লক্ষ টাকা বরাদ্দে ৪৬ নং পিআইসির অধীন কুশিয়ারা নদীর ডান তীরে জালালপুর হতে আলাগদি মনসুর আলীর বাড়ী পর্যন্ত ২কিলোমিাটার সড়কের বাঁধের কাজও বর্ধিত তৃতীয় মেয়াদের পরেও সম্পন্ন হয়নি। তাছাড়া বাঁধের গোড়া থেকে মাটি উত্তোলন, স্লুপ ও ধুর্মুজের কাজ এখনও বাকি। কোথাও দূর্বা ঘাস লাগানো হয়নি। এই পিআইসির সভাপতি সুরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক তমিজ উদ্দিন দুজনই চেয়ারম্যানের লোক।

 

এছাড়াও উপজেলার ১৪, ৩৯, ৯৩, ১০৭, ১০৫, ১১০, ১১৪, নং পিআইসির বাঁধে গোড়া থেকে মাটি উত্তোলন, উচ্চতা কম, ঘাস না লাগানো, ধুর্মুজ না দেয়া সহ নানা অভিযোগ করেছেন সংশ্লিষ্ট হাওর পাড়ের কৃষকরা। কিছু বাঁধে ঘাস লাগানো হচ্ছে তাও অপ্রতুল।

 

পাইলগাঁও ইউনিয়নের একাধিক কৃষক অভিযোগ করে বলেন, ইউনিয়নে বিভিন্ন পিআইসিতে সরকার দলীয় লোক ও ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মখলুছ মিয়ার মনোনীত লোকদের অর্ন্তভূক্ত করা হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যানের মনোনীত লোকরা অধিক লাভে নামমাত্র কাজ করে বাঁধের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। সকল পিআইসির নেপথ্যে রয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান।

 

পিআইসিদের অবহেলা আর উদাসীনতায় ইউনিয়নের কয়েকটি বাঁধের কাজ এখনও শেষ হয়নি। বাঁধের কাজ শেষ না হওয়ার ব্যাপারে ১১৩ নং পিআইসির সভাপতি টিপু সুলতান ও ৪৬ নং পিআইসির সভাপতি মো. সুরুজ্জামানের কাছে জানতে চাইলে দেরীতে ওয়ার্ক পারিমিট পাওয়া ও বাঁধে মাটি না পাওয়াসহ নানান অজুহাত দেখান দুজনই। তবে দুয়েক দিনের মধ্যে কাজ শেষ করা যাবে বলে জানান এই দুই পিআইসির সভাপতি । বাঁধের কাজ সম্পন্ন না হলেও পাইলগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী মখলুছ মিয়া বলেন, আমার জানা মতে ইউনিয়নের সকল বাঁধের কাজ শেষ।তারপরও খোঁজ নিয়ে দেখছি কোথাও বাঁধের কাজ বাকি রয়েছে।

 

বাঁধের কাজ শেষ না হওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, আমরা এবার বাঁধের কাজকে গুরুত্ব নিয়ে দেখছি। ইতোমধ্যে জেলার প্রায় সকল বাঁধের কাজ শেষ হয়ে গেছে। যদি কোথাও বাঁধের কাজ অসম্পন্ন থাকে তাহলে তাদের বিল আটকিয়ে রাখা হবে। এতে কোন ছাড় দেয়া হবে না।

 

আজকের স্বদেশ/জিএস/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD