1. abubakarpressjp@gmail.com : Md Abu bakar : Md Abubakar bakar
  2. sharuarpress@gmail.com : admin520 : Md Gulam sharuar
  3. : alamin328 :
  4. jewela471@gmail.com : Jewel Ahmed : Jewel Ahmed
  5. ajkershodesh@gmail.com : Mdg sharuar : Mdg sharuar
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:০৫ অপরাহ্ন
হেড লাইন
জগন্নাথপুরে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী’র ফুডপ্যাক বিতরণ মৌলভীবাজারে আওয়ামীলীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বন্যা দুর্গত মানুষের পাশে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ মা-বাবার উপস্থিতিতে শপথ নিলেন সাদাত মান্নান অভি নবীগঞ্জে বন্যাদুর্গতদের মাঝে উপজেলা প্রশাসনের ত্রাণ বিতরণ জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জে বন্যার কারনে বাসা ও দোকান ভাড়া মওকুফ করলেন মো. ফজলুল হক নবীগঞ্জের রইছ গঞ্জ বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড! ইলেকট্রনিক দোকান সহ ৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুঁড়ে ছাঁই রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষকের ইন্তেকাল: জানাযা সম্পন্ন শান্তিগঞ্জে চেয়ারম্যান পূত্রের অতর্কিত হামলায় একজন নিহত জগন্নাথপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

জগন্নাথপুরে বোরো ধান কাটা শুরু : ধানের শীষের সবুজ ও সোনালী রংঙেবর্ণিল ফসলী জমি

  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১৪০৫ শেয়ার হয়েছে

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় চলতি ইরি-বোরো মওসুমে আগাম ধান কাটা মাড়াই শুরু হয়েছে।উপজেলায় ৮টি ইউনিয়নে বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে এখন ধানের শীষের সবুজে ও সোনালী রংঙের বর্ণিল ধানের সমাহার। যতদুর চোখ যায় শুধু সবুজ ও সোনালী রঙের চোখ ধাঁধাঁনো দৃশ্য। মাঠ জুড়ে সবুজ ও সোনালী রং বলে দিচ্ছে গ্রাম বাংলার কৃষকের মাথার ঘাম পায়ে ফেলা ইরি-বোরো ধান চাষের দৃশ্য। চলতি মওসুমে ইরি-বোরো ধানের ভাল ফলনের বুকভরা আশা করছে কৃষকরা।

 

গত বন্যায় ধকল কেটে কৃষি বিভাগের পরামর্শে আধুনিক পদ্ধতিতে আগাম ধান চাষ করায় কোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ এখন পর্যন্ত হানা না দেওয়ায় জগন্নাথপুর উপজেলায় ইরি-বোরো ধানের ভাল ফলন হচ্ছে বলে জগন্নাথপুর কৃষি কর্মকর্তা জানান। কিন্তু কৃষকরা বলছেন, মাঠে আধা পাকা ও সোনালী রঙের পাকা ধান পুরোদমে কাটা-মাড়াই শুরু করতে আরো কিছু দিন লাগবে। এখনো উপজেলার কিছু বেরীবাধেঁ কাজ চলছে। কাজ শেষ না হওয়ায় শঙ্কায় আছে মাঠ পর্যায়ের চাষিরা।

 

 

 

জগন্নাথপুর কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ২৩ হাজার ৩শ’ ৩৩ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরে ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও ২০ হাজার ৩শ’ ৩৩ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো ধানের চাষ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় সঠিক সময়ে চারা লাগানো, নিবিড় পরিচর্যা, যথা সময়ে সেচ দেওয়া, সার সংকট না থাকায় উপজেলার কৃষকরা কিছু নতুন জাতের ধান চাষ করেছেন।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, পাকা ধানের সোনালী রং। উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের গন্ধর্ব্বপুর গ্রামের কৃষক হাজী এখলাছুর রহমান আখলই জানান আমি এ বছর ১৯ বিঘা জমিতে নতুন জাতের ধান লাগিয়েছি। উপজেলা কৃষি বিভাগের পরামর্শ যথা সময়ে ভাল পরিচর্যা করায় আমার জমিতে ধান ভালো হয়েছে। তবে বাজার দর ভাল থাকলে গত বছরের ক্ষতি পুষিয়ে কিছুটা লাভ হবে।

 

 

উপজেলা কৃষি অফিসার মো.শওকত মজুনদার জানান, চলতি মওসুমে ইরি-বোরো ধান ভাল হয়েছে। ইতিমধ্যে ধান পেঁকে যাওয়ায় চাষিরা আগাম কাটা-মাড়াই শুরু করেছে। বিশেষ করে ২৩ হাজার ৪শ’ ৮৫ জন কৃষককে বিনামূল্যে সার,বিজ ও নগদ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।আগামীতে আউশ প্রমোদনা সহায়তার আওতায় কার্ডধারী ৫০০ জন কৃষকদের মধ্যে সহায়তা প্রদান করা হবে।

 

 

 

আজকের স্বদেশ/জিএস/জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024
Design and developed By: Syl Service BD